Connect with us

বলিউড

অমিতাভ বচ্চনের যে ৭টি ছবি কখনো দেখেননি

সিনেমাওয়ালা ডেস্ক

Published

on

কিংবদন্তি অভিনেতা অমিতাভ বচ্চনের ৮০তম জন্মদিন আজ ১১ অক্টোবর। ভক্ত, দর্শক ও তারকাদের শুভেচ্ছায় সিক্ত হচ্ছেন বলিউডের ‘শাহেনশাহ’। এখানে তার দুর্লভ সাতটি স্থিরচিত্র ও সেগুলোর গল্প রইলো৷

অমিতাভ বচ্চন ও জয়া ভাদুড়ি

** অমিতাভ বচ্চন ও জয়া ভাদুড়ির ছবিটি ‘অভিমান’ সিনেমার শুটিংয়ে তোলা। এটি অমিতাভের ক্যারিয়ারের শুরুর দিকের ব্যবসাসফল সিনেমা। ১৯৭৩ সালে তাদের বিয়ের এক মাস পর এটি মুক্তি পায়। হৃষিকেশ মুখার্জির পরিচালনায় এর গল্পে দেখা যায়, স্বামী-স্ত্রী দুই জনই কণ্ঠশিল্পী। একপর্যায়ে স্বামীর জনপ্রিয়তাকে ছাড়িয়ে যায় স্ত্রী। বোদ্ধাদের চোখে, বড় পর্দায় অমিতাভ-জয়া জুটির সবচেয়ে জনপ্রিয় সিনেমার মধ্যে এটি অন্যতম।

সুভাষ ঘাই ও অমিতাভ বচ্চন

** বলিউডের শীর্ষস্থানীয় পরিচালক সুভাষ ঘাই ‘দেবা’ সিনেমার জন্য অমিতাভকে নির্বাচন করেছিলেন। কিন্তু শেষ পর্যন্ত এটি স্থগিত হয়ে যায়। যদিও কখনো এর কারণ স্পষ্ট হয়নি। অমিতাভ এতে ডাকাত চরিত্রে অভিনয় করছিলেন। তার অভিনীত নাচনির্ভর একটি গানসহ কিছু দৃশ্যের শুটিং হওয়ার পর থমকে যায় কাজ। আশির দশকের মাঝামাঝি সেই সিনেমার শুটিংয়ে এই ছবিটি তোলা। অমিতাভ ও সুভাষ ঘাই এরপর আর একসঙ্গে কাজ করেননি। ‘দেবা’ তৈরি না হওয়ার পেছনে নিজে দোষ স্বীকার করে সুভাষ ঘাই এক সাক্ষাৎকারে জানান, অমিতাভের সঙ্গে আর কাজ করার সুযোগ পাননি তিনি।

অমিতাভ বচ্চন

** ছবিতে দেখা যাচ্ছে, ভিলেন চরিত্রে রূপদানকারী রঞ্জিতকে চেপে ধরেছেন অমিতাভ বচ্চন। ১৯৭৩ সালে মুক্তিপ্রাপ্ত ‘বান্ধে হাত’ সিনেমার শুটিংয়ে এটি তোলা। তখন দুই অভিনেতার পেছনে ছিলেন পরিচালক ওপি গয়াল। থ্রিলার ধাঁচের এই সিনেমায় চোর হিসেবে দ্বৈত চরিত্রে অভিনয় করেন অমিতাভ। এটি তার ক্যারিয়ারের শুরুর দিকের ফ্লপ সিনেমা।

অমিতাভ বচ্চন

** ১৯৭৯ সালে মুক্তিপ্রাপ্ত ‘জুরমানা’ সিনেমার সেটে তোলা ছবিটিতে অমিতাভ বচ্চন ও অভিনেত্রী রাখীকে দেখা যাচ্ছে। তাদের পেছনে প্রযোজক দেবেশ ঘোষ। হৃষিকেশ মুখার্জির পরিচালনায় এতে প্লেবয় চরিত্রে অভিনয় করেন অমিতাভ। তারা সব মিলিয়ে আটটি সিনেমায় একসঙ্গে কাজ করেছেন।

অমিতাভ বচ্চন

** অমিতাভ বচ্চন ও ভারতের প্রখ্যাত চিত্রগ্রাহক জল মিস্ত্রির (বাঁয়ে) ছবিটি ১৯৮৫ সালে মুক্তিপ্রাপ্ত ‘মর্দ’ সিনেমার আউটডোর শুটিংয়ে তোলা। মনমোহন দেশাই পরিচালিত অ্যাকশনধর্মী সিনেমাটি ছিলো হিট। এতে একজন স্বাধীনতা সংগ্রামীর ছেলের চরিত্রে অভিনয় করেন অমিতাভ, যিনি বড় হয়ে সাম্রাজ্য শাসনের বিরুদ্ধে লড়াইয়ে নামেন। বোদ্ধাদের চোখে, এই সিনেমায় অমিতাভের আধিপত্য ছিলো অবিসংবাদিত। তাকে গণমানুষের নায়কে পরিণত করার ক্ষেত্রে মনমোহন দেশাইয়ের ভূমিকা ব্যাপক।

অমিতাভ বচ্চন

** অমিতাভ বচ্চনের আরেকটি দুর্লভ স্থিরচিত্র। ১৯৯৮ সালে মুক্তিপ্রাপ্ত কেতন মেহতার ‘হিরো হিরালাল’ সিনেমার সেটে তোলা এটি। সবার বাঁয়ে পরিচালক, অভিনেত্রী সানজানা কাপুর (ডান থেকে তৃতীয়), কমেডিয়ান জনি লিভার ও প্রযোজক গুল আনন্দ (সবার ডানে)। সিনেমাটির প্রধান নায়ক ছিলেন নাসিরুদ্দিন শাহ। তাকে দেখা গেছে অটোরিকশা চালক চরিত্রে। উদীয়মান অভিনেত্রী রুপার সঙ্গে পরিচয় হয় তার। এরপর তারা প্রেমে পড়ে। এতে অমিতাভ ছিলেন অতিথি চরিত্রে। কেতন মেহতার পরিচালনায় ক্যারিয়ারে এই একবারই কাজ করেছেন তিনি।

অমিতাভ বচ্চন

** সুপারহিট সিনেমা ‘কালা পাথর’-এর প্রচারণামূলক একটি স্থিরচিত্রে অমিতাভ বচ্চন। এতে বিজয় পাল সিং চরিত্রে দেখা গেছে তাকে। ১৯৭৯ সালে মুক্তিপ্রাপ্ত অ্যাকশনধর্মী সিনেমাটি পরিচালনা করেছেন যশ চোপড়া। এর গল্প ও চিত্রনাট্য লিখেছেন সেলিম-জাভেদ। সেলিম খান ও জাভেদ আখতার জুটির লেখা গল্পে অমিতাভ বেশ কয়েকটি সিনেমায় অভিনয় করেছেন। সবই সুপারহিট। এ তালিকায় আছে ‘শোলে’ (১৯৭৫), ‘জঞ্জির’ (১৯৭৩), ‘মজবুর’ (১৯৭৪), ‘দিওয়ার’ (১৯৭৫), ‘ঈমান ধরম’ (১৯৭৭), ‘ডন’ (১৯৭৮), ‘ত্রিশূল’ (১৯৭৮), ‘দোস্তানা’ (১৯৮০), ‘শান’ (১৯৮০), ‘শক্তি’ (১৯৮২)।

বলিউড

চুপিসারে বিয়ে করেছেন তাপসী

সিনেমাওয়ালা ডেস্ক

Published

on

তাপসী পান্নু ও ম্যাথিয়াস বো (ছবি: এক্স)

বলিউড অভিনেত্রী তাপসী পান্নু চুপিসারে শুভ কাজ সেরে ফেলেছেন। দীর্ঘদিনের প্রেমিক ম্যাথিয়াস বো’কে বিয়ে করেছেন ৩৬ বছর বয়সী এই তারকা। ভারতের উদয়পুরে গত ২৩ মার্চ বিয়ের আনুষ্ঠানিকতা সম্পন্ন হয়। ভারতের একটি সংবাদমাধ্যম এক প্রতিবেদনে এসব তথ্য জানিয়েছে। তবে তাপসী এখনো নিজে থেকে কিছু জানাননি।

ডেনমার্কের ব্যাডমিন্টন তারকা ম্যাথিয়াস বো’র ঝুলিতে আছে অলিম্পিকের স্বর্ণপদক। ৪৩ বছর বয়সী এই খেলোয়াড়ের সঙ্গে প্রায় ১০ বছরের সম্পর্ক তাপসীর। তারা নিজেদের সম্পর্কের ব্যাপারে বরাবরই গোপনীয়তা বজায় রেখেছেন। ব্যক্তিজীবন বরাবরই আড়ালে রেখেছেন দু’জনে। কেবল কয়েক মাস আগে প্রেমের কথা জানান তাপসী। এরপর থেকে তাদের বিয়ে নিয়ে গুঞ্জন শোনা যাচ্ছিলো।

গত ২০ মার্চ শুরু হয় প্রাক-বিবাহ অনুষ্ঠান। বিয়েতে অংশ নেন দুই পরিবারের ঘনিষ্ঠ বন্ধু ও স্বজনেরা। নিমন্ত্রিত অতিথিদের মধ্যে ছিলেন তাপসীর ‘দোবারা’ ও ‘থাপ্পড়’ সিনেমার সহশিল্পী পাভেল গুলাটি, ‘দোবারা’ ও ‘মনমর্জিয়া’ সিনেমার পরিচালক ও ‘সান্ড কি আঁখ’ সিনেমার প্রযোজক অনুরাগ কাশ্যাপ, চিত্রনাট্যকার কনিকা ধিলন।

বলিউড অভিনেত্রীদের মধ্যে সম্প্রতি বিয়ে করেছেন রাকুল প্রীত সিং ও কৃতি খারবান্দা। সেই তালিকায় তাপসী পান্নুর নাম যুক্ত হলো।

তাপসী পান্নুকে সর্বশেষ রাজকুমার হিরানি পরিচালিত ‘ডানকি’ সিনেমায় শাহরুখ খানের সঙ্গে দেখা গেছে। তার হাতে এখন আছে ‘ফির আয়ি হাসিন দিলরুবা’, ‘ও লাড়কি হ্যায় কাহা?’ এবং ‘খেল খেল মে’।

পড়া চালিয়ে যান

বলিউড

পুলকিত-কৃতির বিয়ের ছবি, কী লিখলেন নবদম্পতি

সিনেমাওয়ালা ডেস্ক

Published

on

পুলকিত সম্রাট ও কৃতি খারবান্দা (ছবি: ইনস্টাগ্রাম)

সাত পাকে বাঁধা পড়েছেন বলিউডের দুই তারকা পুলকিত সম্রাট ও কৃতি খারবান্দা। গতকাল (১৫ মার্চ) বিয়ে করলেও একদিন পর সোশ্যাল মিডিয়ায় কয়েকটি ছবি শেয়ার করেছেন দু’জনে। এরমধ্যে একটিতে দেখা গেছে, কনের গলায় মঙ্গলসূত্র পরিয়ে দিচ্ছেন বর।

গতকাল (১৬ মার্চ) ইনস্টাগ্রামে পুলকিত ও কৃতি একই অনুভূতি জানিয়েছেন। তারা লিখেছেন, ‘রোদ ঝলমলে নীল আকাশ থেকে ভোরের শিশির, জীবনের ভালো-মন্দ যেকোনো সময়ে শুধুই তুমি। জীবনের শুরু থেকে শেষ পর্যন্ত আমার প্রতিটি হৃদস্পন্দনে শুধুই তুমি।’

পুলকিত সম্রাট ও কৃতি খারবান্দা (ছবি: ইনস্টাগ্রাম)

গোলাপি লেহাঙ্গার সঙ্গে মানানসই কুন্দনের গয়না পরেছেন কৃতি খারবান্দা। পুলকিতের পরনে পেস্তা রঙের শেরওয়ানি আর মাথায় পাগড়ি। শেরওয়ানিতে ‘গায়ত্রী মন্ত্র’ ছাপা। কনের লেহাঙ্গার সঙ্গে মিলিয়ে পাগড়িতে আছে গোলাপি সুতার কাজ। সংগীতানুষ্ঠান, গায়ে হলুদ, ককটেল পার্টি ও বিয়েসহ চার দিনব্যাপী জমকালো আয়োজন ছিলো দিল্লি এনসিআরের কাছে আইটিসি গ্র্যান্ড ভারত হোটেলে।

‘বীরে কি ওয়েডিং’ (২০১৮) সিনেমায় একসঙ্গে অভিনয় করতে গিয়ে সম্পর্কে জড়ান পুলকিত ও কৃতি খারবান্দা। এরপর ‘পাগলপান্তি’ (২০১৯) ও ‘তেইশ’ (২০২০) সিনেমায় তাদের একত্রে দেখা গেছে। বিয়ের মধ্য দিয়ে সফল পরিণতি পেলো তাদের প্রেম। দু’জনেরই জন্ম দিল্লিতে। তাই বিয়ের যাবতীয় অনুষ্ঠান এই শহরেই করা হয়েছে।

পুলকিত সম্রাট ও কৃতি খারবান্দা (ছবি: ইনস্টাগ্রাম)

বলিউড থেকে বিয়েতে উপস্থিত ছিলেন হাতেগোনা অতিথি। পুলকিত অভিনীত ‘ফুকরে’ সিনেমার অভিনয়শিল্পীদের মধ্যে রিচা চড্ডা ও আলি ফজল দম্পতিকে দেখা গেছে। এছাড়া ফারহান আখতার ও শিবানি দান্ডেকর, সংগীতশিল্পী মিকা সিং নিমন্ত্রিত অতিথি ছিলেন।

৪০ বছর বয়সী পুলকিত সম্রাটের এটি দ্বিতীয় বিয়ে। এর আগে বলিউড সুপারস্টার সালমন খানের ‘রাখি বোন’ শ্বেতা রোহিরাকে ভালোবেসে বিয়ে করেন তিনি। সালমানের হাত ধরে ২০১২ সালে বড় পর্দায় সুযোগ পান পুলকিত। তার প্রথম সিনেমা ‘বিট্টু বস’। শ্বেতার সঙ্গে মাত্র একবছরের দাম্পত্য জীবন কেটেছে তার। এরপর ছাড়াছাড়ি হয়ে যায় তাদের।

পুলকিত সম্রাট ও কৃতি খারবান্দা (ছবি: ইনস্টাগ্রাম)

পুলকিত সম্রাটের সিনেমার তালিকায় উল্লেখযোগ্য– ‘ফুকরে’ (২০১৩), ‘জয় হো’ (২০১৪), ‘ও তেরি’ (২০১৪), ‘ডলি কি ডোলি’ (২০১৫), ‘বাঙ্গিস্তান’ (২০১৫), ‘সনম রে’ (২০১৬), ‘জুনুনিয়াত’ (২০১৬), ‘ফুকরে রিটার্নস’ (২০১৭), ‘ফুকরে থ্রি’ (২০২৩)। তার অভিনয় দর্শকদের মন জয় করেছে।

অন্যদিকে ২০০৯ সালে তেলুগু সিনেমা ‘বনি’র মাধ্যমে বড় পর্দায় পা রাখেন কৃতি খারবান্দা। ২০১৬ সালে ‘রাজ়: রিবুট’ সিনেমার মাধ্যমে বলিউডে অভিষেক হয় তার। ৩৩ বছর বয়সী এই তারকার ক্যারিয়ারে আরো আছে ‘শাদি মে জ়রুর আনা’ (২০১৭), ‘কারবান’ (২০১৮), ‘ইয়ামলা পাগলা দিওয়ানা: ফির সে’ (২০১৮), ‘হাউসফুল ফোর’ (২০১৯), ‘চৌদ্দ ফেরে’ (২০২১)।

পড়া চালিয়ে যান

বলিউড

মধুবালার বায়োপিক আসছে, নায়িকা হচ্ছেন কে?

সিনেমাওয়ালা ডেস্ক

Published

on

মধুবালা (ছবি: এক্স)

বলিউডের কিংবদন্তি অভিনেত্রী মধুবালার বায়োপিক তৈরি হচ্ছে। এর নাম রাখা হয়েছে ‘মধুবালা’। আজ (১৫ মার্চ) সোশ্যাল মিডিয়ায় এই ঘোষণা দিয়েছে সনি পিকচার্স ইন্টারন্যাশনাল প্রোডাকশন্স। এটি পরিচালনা করবেন জাসমিত কে রিন। আলিয়া ভাট অভিনীত ‘ডার্লিংস’ (২০২২) পরিচালনা করে দর্শক ও সমালোচকদের প্রশংসা কুড়ান তিনি।

মধুবালার বায়োপিকে নাম ভূমিকায় কে অভিনয় করবেন তার নাম জানতে নেটিজেনদের মধ্যে কৌতূহল দেখা দিয়েছে। ধারণা করা হচ্ছে, আলিয়া ভাটকে নেওয়া হতে পারে এই চরিত্রে। যদিও নির্মাতারা আনুষ্ঠানিকভাবে কারও নাম ঘোষণা করেননি।

মেয়ের মা হওয়ার জনসমক্ষে খুব কম এসেছেন আলিয়া ভাট।

মধুবালাকে বলা হয় ভারতীয় সিনেমার শুকতারা। বড় পর্দায় কাজ করতে গিয়ে যেসব চ্যালেঞ্জের মুখোমুখি হয়েছেন তিনি, সেগুলো তুলে ধরা হবে বায়োপিকে।

সনি পিকচার্স ইন্টারন্যাশনাল প্রোডাকশন্সের সঙ্গে ‘মধুবালা’ প্রযোজনা করবে ব্রুইং থটস প্রাইভেট লিমিটেডের প্রশান্ত সিং ও মাধুর্য বিনয়। মধুবালার বোন মধুর ব্রিজ ভূষণ এবং অরবিন্দ কুমার মালবিয়া সহ-প্রযোজক হিসেবে থাকবেন।

মধুবালা (ছবি: এক্স)

১৯৪২ সালে ‘বসন্ত’ সিনেমার মাধ্যমে বলিউডে পা রাখেন মধুবালা। ১৯৬০ সালে মুক্তিপ্রাপ্ত ‘মোগল-এ-আজ়ম’ সিনেমায় আনারকলি চরিত্রে তার অভিনয়কে ক্যারিয়ারের সেরা কাজ মনে করা হয়।

ব্যক্তিজীবনে কিংবদন্তি গায়ক-অভিনেতা কিশোর কুমারের সঙ্গে বিয়ের বন্ধনে জড়িয়েছিলেন মধুবালা। মাত্র ৩৬ বছর বয়সে তার জীবনাবসান হয়।

পড়া চালিয়ে যান

সিনেমাওয়ালা প্রচ্ছদ