Connect with us

নাটক

ইউটিউব ট্রেন্ডিংয়ে ১ নম্বরে ‘চাঁদের হাট’, কী আছে এই নাটকে

সিনেমাওয়ালা রিপোর্টার

Published

on

ইউটিউব ট্রেন্ডিংয়ে ‘চাঁদের হাট’ এক নম্বরে

ঈদ উপলক্ষে মুক্তি পাওয়া নাটকের মধ্যে ইউটিউবে ট্রেন্ডিংয়ে এখন ১ নম্বরে আছে ‘চাঁদের হাট’। এতে গরুর হাটকে কেন্দ্র করে কমেডি, প্রেম ও মানবিকতার সম্মিলনে দারুণ একটি গল্প বলা হয়েছে। ৪৮ মিনিটের এই নাটকের শেষ দৃশ্য বেশিরভাগ দর্শককে আবেগপ্রবণ করেছে। একটি দরিদ্র পরিবারের কষ্ট দেখে অনেকেই অজান্তে চোখের পানি ধরে রাখতে পারেননি সেই মুহূর্তে।

ইউটিউবে সিনেমাওয়ালা চ্যানেলে ঈদের দিন (১৭ জুন) রাত ৮টা ৩০ মিনিটে মুক্তি পায় ‘চাঁদের হাট’। দুই দিনে এটি দেখা হয়েছে ৩০ লাখ বার। এতে লাইক পড়েছে ৬২ হাজার। অসংখ্য দর্শক এর কমেন্টের ঘরে নিজেদের ভালো লাগার অনুভূতি জানিয়েছেন। বেশিরভাগের কথায়, ‘অসাধারণ একটি নাটক।’

‘চাঁদের হাট’ নাটকের পোস্টার (ছবি: সিনেমাওয়ালা)

কী আছে ‘চাঁদের হাট’ নাটকে? ইমন খান নামের একজনের মন্তব্যে রয়েছে এর উত্তর, ‘মাত্র কয়েক মিনিটের নাটকের মধ্যে প্রেম, ভালোবাসা, আবেগ, কমেডি, জীবনযাত্রার মান, সামাজিক প্রেক্ষাপট, বর্তমান প্রেক্ষাপট; সবকিছু যে এত সুন্দর করে ফুটিয়ে তোলা যায় তা এই নাটক না দেখলে বোঝা যাবে না। সত্যিই অসাধারণ একটি নাটক।’

গল্পে দেখা যায়, গরুর হাটে দালালি করে চাঁদ। হাটের পাশে ভাতের হোটেলে মামার সঙ্গে কাজ করে পূর্ণিমা। তাকে পছন্দ করে চাঁদ। কিন্তু মেয়েটি তাকে পাত্তা দেয় না। পূর্ণিমাকে বিয়ে করতে মরিয়া হয়ে মাকে জানায় চাঁদ। ঘটনাক্রমে জানা যায়, চাঁদের মা ও পূর্ণিমার মামা একসময় প্রেমিক-প্রেমিকা ছিলেন। এভাবে এগিয়ে যায় কাহিনি।

ভারতীয় এক নারী দর্শক মন্তব্য করেছেন, ‘আমি একজন ভারতীয় হয়ে বলছি, আপনাদের বাংলাদেশের নাটক আমার খুব ভালো লাগে।’ আসাম থেকে বোরহান উদ্দিন হুসেন লিখেছেন, ‘শেষ দৃশ্যটি খুব আবেগপ্রবণ।’ কঙ্কন আচার্যের একই অনুভূতি, ‘শেষের অংশটুকু আমাকে কাঁদিয়েছে।’

‘চাঁদের হাট’ নাটকে ডা. এজাজুল ইসলাম ও মনিরা আক্তার মিঠু (ছবি: সিনেমাওয়ালা)

ইউসুফ শামীম লিখেছেন, ‘মন থেকে বলছি এটি এই বছরের সেরা নাটক। পরিচালককে মন থেকে দোয়া ও ভালোবাসা দিলাম। শেষের দৃশ্যটা দুনিয়ার মধ্যে যে ভালোবাসা আছে গরিবদের প্রতি, অনেক ভালো লাগলো।’

আলফাদেল গাজীর মতে, ‘পরিবার নিয়ে দেখার মতো নাটক। এমন গল্প এখন হারিয়ে গেছে প্রায়! এরকম সুন্দর আরও নাটক চাই। এই ঈদে এরকম নাটক উপহার দেওয়ার জন্য ধন্যবাদ।’ একই অভিমত জানিয়েছেন দীপু বিশ্বাস, “নাটকটি ভালো লাগছে। কিছু কিছু নাটক পরিবারের সঙ্গে দেখা যায়, যেমন চাঁদের হাট’।”

‘চাঁদের হাট’ নাটকে কেয়া পায়েল (ছবি: সিনেমাওয়ালা)

আরেক দর্শক লিখেছেন, ‘আমার জীবনে প্রায় ১৩ বছর মোবাইল ফোন চালানোর বয়স, কোনোদিন ইউটিউবে ভিডিও দেখে মেসেজ করি নাই। এবারই প্রথম কমেন্ট করলাম। আমার দেখা অন্যরকম একটি নাটক, আমার চোখে পানি চলে এসেছে।’

কেউ কেউ সিনেমার আবহ খুঁজে পেয়েছেন ‘চাঁদের হাট’ নাটকে। এসকে শাকিল তাদেরই একজন, ‘নাটকটি দেখে আমার মনে হলো একটি নতুন বাংলা সিনেমা দেখেছি। পরিচালক ভাইয়াকে বলছি, আপনি স্বল্প বাজেটে সিনেমা তৈরি করুন। আপনি নাম ও টাকা দুটোই মর্যাদার সঙ্গে আয় করতে পারবেন।’

কে এম সোহাগ রানা (ছবি: আকিব রহমান)

‘চাঁদের হাট’ রচনা ও পরিচালনা করেছেন কে এম সোহাগ রানা। হাস্যরসের মোড়কে কয়েকটি বার্তা দিয়েছেন তিনি। এরমধ্যে দালালদের প্রতারণার ঘটনা তুলে ধরায় তার প্রশংসা করেছেন অনেক দর্শক। তাদের মধ্যে বেলাল আহমেদ নামের একজন মন্তব্য করেছেন, ‘আমাদের সমাজে এমন মানুষ রূপী কিছু দালাল আছে, যাদের কারণে প্রকৃত খামারিরা ন্যায্য দাম পায় না।’

‘চাঁদের হাট’ নাটকে তৌসিফ মাহবুব (ছবি: সিনেমাওয়ালা)

আবেদ হুসেন নামের এক দর্শক লিখেছেন, ‘বর্তমানে বাজারে এমন দালাল থাকায় বোঝা যায় না কোনটা ক্রেতা আর কোনটা বিক্রেতা। বাস্তবমুখী নাটক।’

সুমন রানার মন্তব্য, ‘নাটকটির প্রতিটি দৃশ্য হৃদয় কাড়ার মতো। সবার অভিনয় জুতসই। এখন তো এমন সামাজিক গল্প পাওয়া যায় না।’

‘চাঁদের হাট’ নাটকের পোস্টার (ছবি: সিনেমাওয়ালা)

নাটকটিতে প্রধান চারটি চরিত্রে অভিনয় করেছেন তৌসিফ মাহবুব, কেয়া পায়েল, ডা. এজাজুল ইসলাম ও মনিরা আক্তার মিঠু। চাঁদ চরিত্রে তৌসিফ মাহবুব ও পূর্ণিমা চরিত্রে কেয়া পায়েল জুটির প্রতি ভালো লাগার কথা জানিয়েছেন তাদের ভক্তরা। এতে আরো অভিনয় করেছেন সুমন পাটোয়ারী, আনোয়ার হোসেন, মো. আবু বকর রোকন, ইকবাল, মনীষা, সীমান্ত ও আলভিরা রহমান রাইসা।

নাটকটিতে ব্যবহৃত গান আলাদাভাবে ভালো লেগেছে অনেকের। ‘ওরে ও হীরামন পাখি’ শিরোনামের গানটি গাওয়ার পাশাপাশি সুর ও সংগীত পরিচালনা করেছেন শাহরিয়ার মার্সেল। এর কথা লিখেছেন তারিক তুহিন। আবহ সংগীত করেছেন রফিকুল ইসলাম ফরহাদ। গরুর হাটে আদিত্য মনিরের চিত্রগ্রহণ প্রশংসা কুড়িয়েছে। রঙ বিন্যাস ও সম্পাদনায় রাশেদ রাব্বি। প্রযোজনায় মুহাম্মদ মোস্তফা কামাল রাজ।

নাটক

অবিবাহিত ৩০ বছর বয়সী নারীদের প্রতি মেহজাবীনের বার্তা

সিনেমাওয়ালা রিপোর্টার

Published

on

মেহজাবীন চৌধুরী (ছবি: ফেসবুক)

অভিনেত্রী মেহজাবীন চৌধুরী নিজের অভিনীত ‘তিথিডোর’ নাটকের প্রসঙ্গ টেনে ৩০ বছরের বেশি বয়সী অবিবাহিত নারীদের প্রতি সোশ্যাল মিডিয়ায় কয়েকটি বার্তা দিয়েছেন। তার আহ্বান, ‘নিজেকে ভালোবাসুন, নিজের কাছের মানুষকে ভালোবাসুন।’

গতকাল (২১ জুন) বিকেলে ফেসবুকে মেহজাবীন অনুরো:ধ জানিয়েছেন এভাবে, ‘নিজের পাশের মানুষকে, নিজের কাছের মানুষকে জিজ্ঞেস করুন, সে কেমন আছে? তার কষ্ট হচ্ছে কিনা? আপনার একটা ফোন কল, নক, টেক্সট কিংবা সাক্ষাৎ হয়তো কারো জন্য বিশেষ একটি মুহূর্তে অমূল্য হয়ে দাঁড়াতে পারে! দেরি হয়ে যাওয়ার আগে আপনারা চেষ্টা করুন। নিজেকে ভালোবাসুন, নিজের কাছের মানুষকে ভালোবাসুন। জীবন সুন্দর। এর চাইতে সুন্দর আর কোনো কিছু নেই, কখনো হবেও না!’

‘তিথিডোর’ নাটকে মেহজাবীন চৌধুরী (ছবি: চ্যানেল আই)

মেহজাবীন উল্লেখ করেন, “কোনো সাসপেন্স-থ্রিল নেই ‘তিথিডোর’ নাটকে। নেই কোনো খুন-মারামারি। নেই রহস্য কিংবা টুইস্ট। তারপরও এই গল্প বলা খুব জরুরি মনে করছেন তিনি, ‘আমাদের চারপাশে এখন যে অস্থির সময় চলছে, সেখানে এই গল্পটাই সবচেয়ে বেশি প্রাসঙ্গিক। কারণ তিথিডোর একটি অনুভূতির গল্প, যে অনুভুতি প্রত্যেক সাধারণ মানুষের মধ্যে আছে। ‘তিথিডোর’ দেখে এর মূল বক্তব্য অনুধাবন করার চেষ্টা করুন।”

গতকাল সকালে ‘তিথিডোর’ নাটক নিয়ে ফেসবুকে আরেকটি পোস্ট দিয়েছেন মেহজাবীন। তিনি লিখেছেন, ‘আপনার বয়স ৩০ মানেই আপনার অন্তত একটা মন ভাঙার গল্প আছে। হঠাৎ একদিন দেখবেন যে মানুষটা একসময় আপনাকে কষ্ট দিয়েছে, সেই মানুষটা অথবা সেই মানুষগুলো অনেক ভালো আছে। আপনার তখন মনে হবে, দিজ ইজ নট ফেয়ার। আমাদের সবার জীবনেই এমন একটি মুহূর্ত এসেছে যখন আমরা ভেবেছি আর বেঁচে থেকে লাভ কী? তার ওপর আপনি যদি ৩০ বছরের অবিবাহিত নারী হন তাহলে তো আর কথাই নাই। আপনি জীবিত থাকলেও কিছু অঘোষিত নিয়ম আপনার আত্মবিশ্বাস কেড়ে নেবে।’

মেহজাবীন চৌধুরী (ছবি: ফেসবুক)

মেহজাবীনের মন্তব্য, ‘ডিপ্রেশন ইজ রিয়েল, আমাদের আশেপাশে অনেকেই এই রোগে ভুগছেন। কিন্তু তারা হয়তো নিজেরাই জানেন না। ডিপ্রেশনের কোনো স্পেসিফিক সিম্পটম নেই, চোখের দেখায় বোঝা যায় না এবং এই কারণেই আমাদের প্রিয়জনদের আচরণে যদি পরিবর্তন দেখা যায় কিংবা অস্বাভাবিক লাগে তাহলে তার সঙ্গে মন খুলে কথা বলার চেষ্টা করুন এবং ডাক্তারি পরামর্শ নিতে সহযোগিতা করুন।’

‘তিথিডোর’ নাটকে ৩০ বছর বয়সী অবিবাহিত মেয়েদের টানাপোড়েন থেকে হতাশা ও আত্মহননের চিন্তা তুলে ধরা হয়েছে। এ প্রসঙ্গে মেহজাবীন ফেসবুক স্ট্যাটাসে যোগ করেছেন, ‘এই কাজটির সঙ্গে আমাদের ইউনিটের ব্যক্তিগত আবেগ জড়িয়ে আছে নানাভাবে। সেজন্য এই নাটক আমাদের জন্য অনেক স্পেশাল। লেট টুয়েনটিজ এবং ৩০-এর ঊর্ধ্বে যেই নারীরা আছেন, কাজটি আপনাদের উৎসর্গ করলাম।’

মেহজাবীন চৌধুরী (ছবি: ফেসবুক)

ইতোমধ্যে ‘তিথিডোর’ নাটকের জন্য অনেক সাড়া পেয়েছেন মেহজাবীন। বিশেষ করে নারীরা এই ভিন্নধর্মী কাজের জন্য তার ভূয়সী প্রশংসা করেছেন। এতে তার চরিত্রের নাম নিশাত। নাটকটির গল্প ও পরিচালনায় ভিকি জাহেদ। চিত্রনাট্য লিখেছেন জাহান সুলতানা। ঈদের পরদিন (১৮ জুন) চ্যানেল আইয়ে প্রচারিত হয়েছে এটি। এরপরই এটি এসেছে ইউটিউবে।

পড়া চালিয়ে যান

নাটক

খায়রুল বাসার ও কেয়া পায়েলের অন্যরকম ‘ঈদ ভ্যাকেশন’

সিনেমাওয়ালা রিপোর্টার

Published

on

‘ঈদ ভ্যাকেশন’ নাটকের দৃশ্যে খায়রুল বাসার ও কেয়া পায়েল (ছবি: সিনেমাওয়ালা)

ছোট পর্দার জনপ্রিয় দুই তারকা খায়রুল বাসার ও কেয়া পায়েল নতুন একটি নাটকে একসঙ্গে অভিনয় করলেন। এর নাম ‘ঈদ ভ্যাকেশন’। এতে গ্রামের একজোড়া তরুণ-তরুণীর ভূমিকায় দেখা যাবে তাদের।

গতকাল (১৪ জুন) সিনেমাওয়ালার ইউটিউব চ্যানেল ও ফেসবুক পেজে ‘ঈদ ভ্যাকেশন’ নাটকের ১ মিনিট ২৯ সেকেন্ডের টিজার প্রকাশিত হয়েছে। এতে খায়রুল বাসার ও কেয়া পায়েলের রসায়নের কিছু মুহূর্ত দেখা গেছে।

‘ঈদ ভ্যাকেশন’ নাটকের দৃশ্যে কেয়া পায়েল ও খায়রুল বাসার (ছবি: সিনেমাওয়ালা)

মুহাম্মদ মোস্তফা কামাল রাজের রচনা ও পরিচালনায় তৈরি হয়েছে ‘ঈদ ভ্যাকেশন’। ঈদুল আজহা উপলক্ষে ইউটিউবে সিনেমাওয়ালা চ্যানেলে মুক্তি পাবে এটি।

‘ঈদ ভ্যাকেশন’ নাটকের দৃশ্যে খায়রুল বাসার ও কেয়া পায়েল (ছবি: সিনেমাওয়ালা)

‘ঈদ ভ্যাকেশন’ নাটকে নতুন একটি গান রয়েছে। এর কথা হলো, ‘ইচ্ছে যতো, ফড়িঙের মতো, উড়ে উড়ে উড়ে উড়ে যায় তোমার আকাশে/পাখির শিসে সুরভি মিশে, জুড়ে জুড়ে জুড়ে জুড়ে যায় তোমার বাতাসে।’ গানটির সুর ও সংগীত পরিচালনা করেছেন ইমন সাহা। অনেক বছর পর নাটকের জন্য গান বাঁধলেন তিনি। এতে কণ্ঠ দিয়েছেন অয়ন চাকলাদার ও আতিয়া আনিসা। এটি লিখেছেন জনি হক।

‘ঈদ ভ্যাকেশন’ নাটকের দৃশ্যে কেয়া পায়েল ও খায়রুল বাসার (ছবি: সিনেমাওয়ালা)

নাটকটির অন্য অভিনয়শিল্পীরা হলেন– মনিরা আক্তার মিঠু, মাহমুদুল ইসলাম মিঠু, শরিফুল, এবি রোকন, শেখ স্বপ্না, সুমাইয়া অর্পা, শাহীন মৃধাসহ অনেকে। চিত্রগ্রহণ করেছেন ফুয়াদ বিন আলমগীর।

পড়া চালিয়ে যান

নাটক

‘প্রিন্সেস ডায়ানা’ রূপে সাবিলা নূর

সিনেমাওয়ালা রিপোর্টার

Published

on

‘প্রিন্সেস ডায়ানা’ নাটকে সাবিলা নূর (ছবি: চ্যানেল আই)

যাত্রাপালার নর্তকীর চরিত্রে অভিনয় করলেন ছোট পর্দার তারকা সাবিলা নূর। ‘প্রিন্সেস ডায়ানা’ নামের একটি নাটকে তাকে নাম ভূমিকায় দেখা যাবে। এবারই প্রথম এমন চরিত্রে নিজেকে মেলে ধরলেন তিনি।

‘প্রিন্সেস ডায়ানা’ পরিচালনা করছেন নঈম ইমতিয়াজ নেয়ামূল। গত তিন দিন মানিকগঞ্জে নাটকটির দৃশ্যধারণ হয়েছে।

সাবিলা নূর (ছবি: ফেসবুক)

অভিনেত্রী হিসেবে জনপ্রিয়তা পেলেও ছোটবেলা থেকেই নৃত্যচর্চা করেন সাবিলা নূর। মঞ্চে বিভিন্ন আয়োজনে নাচেন তিনি। যাত্রাপালার আদলে নাচের অভিজ্ঞতা এবারই প্রথম হলো তার।

গল্পে দেখা যাবে, প্রিন্সেস ডায়ানার গ্রামে-গঞ্জে যাত্রাপালায় নাচ ও অভিনয় করে। তার প্রতি গ্রাম্য প্রভাবশালীদের লোলুপ দৃষ্টি পড়ে। তারা নর্তকীকে ভোগবিলাসে ব্যবহার করতে চায়।

মেজবাহ উদ্দিন সুমনের লেখা এই নাটকে আরো অভিনয় করেছেন পার্থ শেখ, এরফান মৃধা শিবলু, সোহেল খান প্রমুখ। ঈদের চতুর্থ দিন (২০ জুন) রাত ৯টা ৩৫ মিনিটে চ্যানেল আইয়ে প্রচার হবে ‘প্রিন্সেস ডায়ানা’।

পড়া চালিয়ে যান
Advertisement

সিনেমাওয়ালা প্রচ্ছদ