Connect with us

ঢালিউড

নাটকে গান গাওয়াসহ হুমায়ুন ফরীদির প্রথম যা কিছু

সিনেমাওয়ালা রিপোর্টার

Published

on

হুমায়ুন ফরীদি (ছবি: ফেসবুক)

তারকাদের তারকা বিশেষণটি বাংলাদেশের হাতেগোনা যে কয়েকজনের সঙ্গে মানায়, কিংবদন্তি অভিনেতা হুমায়ুন ফরীদি তাদের মধ্যে অন্যতম। তাঁর অসামান্য অভিনয় কৌশল থেকে শিখে চলেছে প্রজন্ম থেকে প্রজন্মের অভিনয়শিল্পীরা। মরণোত্তর একুশে পদক পাওয়া হুমায়ুন ফরীদি মঞ্চনাটক, টেলিভিশন ও সিনেমা জগতের অন্যতম সেরা অভিনেতা ছিলেন। নায়ক-খলনায়ক দুই চরিত্রেই তিনি ছিলেন বর্ণিল। আজ (১৩ ফেব্রুয়ারি) তাঁর প্রয়াণ দিবসে ফিরে দেখা যাক গুণী মানুষটির প্রথম কিছু ঘটনা।

প্রথম অভিনয়
১৯৫২ সালের ২৯ মে জন্মগ্রহণ করেন হুমায়ুন ফরীদি। বাবার চাকরির সুবাদে দেশের বিভিন্ন জেলায় ঘুরতে হয়েছে তাঁকে। ১৯৬৪ সালে কিশোরগঞ্জে মহল্লায় ‘এক কন্যার জনক’ নাটকে প্রথম অভিনয় করেন তিনি।

প্রথম মঞ্চনাটক
১৯৬৫ সালে হুমায়ুন ফরীদির কৈশোর কাটে মাদারীপুরে। সেখানে কলেজের বার্ষিক নাট্যোৎসবে ‘মুখোশ যখন খুলবে’ নামের নাটকে অভিনয় করেন। মাদারীপুরের নাট্যাঙ্গনে হুমায়ুন ফরীদির গুরু ছিলেন বাশার মাহমুদ। তার নির্দেশনায় শিল্পী নাট্যগোষ্ঠীতে যুক্ত হন। সংগঠনটির প্রযোজনা কল্যাণ মিত্রের ‘ত্রিরত্ন’ নাটকে রত্ন চরিত্রে অভিনয়ের মাধ্যমে প্রথম দর্শকদের সামনে আসেন তিনি।

হুমায়ুন ফরীদি (ছবি: ফেসবুক)

প্রথম নির্দেশনা
জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের অর্থনীতি বিভাগের ছাত্র ছিলেন হুমায়ুন ফরীদি। ১৯৭৬ সালে জাবি’তে অনুষ্ঠিত নাট্যোৎসবের অন্যতম সংগঠক ছিলেন হুমায়ুন ফরীদি। তখন ‘আত্মস্থ ও হিরন্ময়ীদের বৃত্তান্ত’ নামের একটি নাটক রচনা ও নির্দেশনার পাশাপাশি এতে অভিনয় করেন তিনি। সেই উৎসবের মাধ্যমে তিনি নাট্যাঙ্গনে পরিচিতি পান। এর সুবাদে ঢাকা থিয়েটারের সদস্যপদ লাভ করেন। বিশ্ববিদ্যালয় জীবনে নাট্যাচার্য সেলিম আল দীনের সঙ্গে তার দারুণ সম্পর্ক ছিল। রাজস্থানি গল্প নিয়ে ঢাকা থিয়েটারের ‘ভূত’ নাটকটি নির্দেশনা দেন তিনি।

ঢাকা থিয়েটারে প্রথম অভিনয়
ঢাকা থিয়েটারের মাধ্যমে হুমায়ুন ফরীদির মঞ্চযাত্রা শুরু হয়। শুরুতে চা আনা ও কস্টিউম পরিয়ে দেওয়া পর্যন্ত ছিলো তাঁর কাজ। পরে সেলিম আল দীনের ‘চরকাঁকড়ার ডকুমেন্টারি’ নাটকের প্রোডাকশনে যুক্ত ছিলেন। এরপর তার রচনায় ‘সংবাদ কার্টুন’ নাটকে স্বল্প উপস্থিতির একটি চরিত্রে সুযোগ পান তিনি। সেলিম আল দীনের ‘শকুন্তলা’ নাটকে তক্ষক ছিলো ঢাকার মঞ্চে তার প্রথম পূর্ণাঙ্গ চরিত্র। ঢাকা থিয়েটারে তাঁর অভিনীত নাটকের মধ্যে উল্লেখযোগ্য ‘মুনতাসির ফ্যান্টাসি’, ‘কীত্তনখোলা’, ‘ফণিমনসা’, ‘কেরামত মঙ্গল’।

হুমায়ুন ফরীদি (ছবি: ফেসবুক)

প্রথম টিভি নাটক
১৯৯২ সালে মঞ্চের গণ্ডি পেরিয়ে টেলিভিশনে পা রাখেন হুমায়ুন ফরীদি। বাংলাদেশ টেলিভিশনে তাঁর অভিনীত প্রথম নাটক আতিকুল হক চৌধুরীর প্রযোজনায় ‘নিখোঁজ সংবাদ’। শহীদুল্লা কায়সারের উপন্যাস অবলম্বনে আবদুল্লাহ আল মামুনের নির্দেশনায় বিটিভির ধারাবাহিক ‘সংশপ্তক’ নাটকে ‘কান কাটা রমজান’ চরিত্রটি দেশজুড়ে তুমুল জনপ্রিয়তা পেলে হুমায়ুন ফরীদি আলোচনায় আসেন।

‘সংশপ্তক’ নাটকে হুমায়ুন ফরীদি ও খলিল

প্রথম গান গাওয়া
১৯৮৯ সালে বাংলাদেশ টেলিভিশনে প্রচারিত ‘সমুদ্রে গাঙচিল’ নাটকে ‘দেখা হয় তবুও’ শিরোনামের একটি গান গেয়েছেন হুমায়ুন ফরীদি। বিটিভির স্টুডিওতে এর রেকর্ডিং হয়। এটাই ছিলো তাঁর প্রকাশিত প্রথম গান। এর কথা লিখেছেন গীতিকবি নজরুল ইসলাম বাবু, সুর ও সংগীতায়োজনে মো. শাহনেওয়াজ। নাটকে গানটি প্রচারের পর দেশজুড়ে সাড়া পড়ে। মোহন খানের রচনায় নাটকটি প্রযোজনা করেন জিয়া আনসারী। নাটকটিতে তিনি ছাড়াও অভিনয় করেন আফজাল হোসেন ও সুবর্ণা মুস্তাফা।

হুমায়ুন ফরীদি (ছবি: ফেসবুক)

প্রথম স্বল্পদৈর্ঘ্য সিনেমা
১৯৮৪ সালে তানভীর মোকাম্মেলের ‘হুলিয়া’র মাধ্যমে প্রথমবার সিনেমার ক্যামেরার সামনে দাঁড়ান হুমায়ুন ফরীদি। কবি নির্মলেন্দু গুণের কবিতা অবলম্বনে সাজানো হয় এটি। এর গল্প ষাটের দশকে প্রগতিশীল সংগঠনের কর্মীদের ওপর পশ্চিম পাকিস্তান সরকারের নিপীড়ন-নির্যাতনের মধ্যে হুলিয়া বুকে নিয়ে ঘরছাড়া এক তরুণকে কেন্দ্র করে। কবিতার প্রধান চরিত্র খোকার ভূমিকায় প্রথমবার ক্যামেরার সামনে দাঁড়ান আসাদুজ্জামান নূর। এতে গুরুত্বপূর্ণ একটি চরিত্রে দেখা গেছে হুমায়ুন ফরীদিকে। ২৯ মিনিট দৈর্ঘ্যের হুলিয়ায় আরো আছেন আলী যাকের, রামেন্দু মজুমদার, আতাউর রহমান, ইনামুল হক, লিলি চৌধুরী, ডলি আনোয়ারসহ অনেকে। এটি সম্পাদনা করেছেন সাইদুল আনাম টুটুল।

প্রথম পূর্ণদৈর্ঘ্য সিনেমা
১৯৮৫ সালে রাষ্ট্রীয় অনুদানে প্রয়াত নির্মাতা শেখ নিয়ামত আলীর ‘দহন’ ছিলো হুমায়ুন ফরীদির প্রথম পূর্ণদৈর্ঘ্য সিনেমা। এতে মুনীর চরিত্রে দারুণ নৈপুণ্যের জন্য সেরা অভিনেতা হিসেবে বাচসাস পুরস্কার পান তিনি। এতে আরো অভিনয় করেছেন বুলবুল আহমেদ, ববিতা, শর্মিলী আহমেদ, প্রবীর মিত্র, ডলি আনোয়ার, রওশন জামিল, আবুল খায়ের, সাইফুদ্দিন, আসাদুজ্জামান নূর, সৈয়দ আহসান আলীসহ অনেকে।

হুমায়ুন ফরীদি (ছবি: ফেসবুক)

সিনেমায় প্রথম খলচরিত্র
শহীদুল ইসলাম খোকন পরিচালিত ‘সন্ত্রাস’-এর মাধ্যমে বাণিজ্যিক সিনেমায় ক্যারিয়ার শুরু করেন হুমায়ুন ফরীদি। এর মধ্য দিয়ে খলনায়ক হিসেবে তার যাত্রা শুরু হয়। নেতিবাচক চরিত্রে তাঁর মতো খ্যাতি পেয়েছেন খুব কমই। তার অভিনীত সিনেমার তালিকায় রয়েছে সন্ত্রাস, দহন, লড়াকু, দিনমজুর, বীরপুরুষ, বিশ্বপ্রেমিক, আজকের হিটলার, দুর্জয়, শাসন, আঞ্জুমান, আনন্দ অশ্রু, মায়ের অধিকার, আসামি বধূ, একাত্তরের যীশু, প্রাণের চেয়ে প্রিয়, ভালোবাসি তোমাকে, কখনো মেঘ কখনো বৃষ্টি, প্রবেশ নিষেধ, ভণ্ড, ‘ঘাতক’, টাকার অহংকার, অধিকার চাই, মিথ্যার মৃত্যু, বিদ্রোহ চারিদিকে, মনে পড়ে তোমাকে, মাতৃত্ব, টাকা, ব্যাচেলর, জয়যাত্রা, শ্যামল ছায়া, দূরত্ব, চেহারা, আহা!, কী জাদু করিলা।

(বাঁ থেকে) মাসুদ পারভেজ, হুমায়ুন ফরীদি ও মাসুম পারভেজ রুবেল

প্রথম সিনেমা প্রযোজনা
শহীদুল ইসলাম খোকন পরিচালিত ‘পালাবি কোথায়’ সিনেমাটি প্রযোজনা করেন হুমায়ুন ফরীদি। এটি মুক্তি পায় ১৯৯৭ সালে। নারীবাদী হাস্যরসাত্মক গল্প নিয়ে সাজানো হয় এটি। নারী অধিকারের পক্ষে বার্তা দেওয়ায় এই সিনেমা প্রশংসিত হয়। এতে তাঁর পাশাপাশি অভিনয় করেছেন শাবানা, সুবর্ণা মুস্তাফা, চম্পা, আফজাল হোসেন। তাঁর প্রযোজিত একমাত্র সিনেমা এটি।

প্রথম জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার
‘মাতৃত্ব’ সিনেমার জন্য ২০০৪ সালে জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কারে সেরা অভিনেতা হন হুমায়ুন ফরীদি। ২০১৮ সালে মরণোত্তর একুশে পদক পান এই কিংবদন্তি অভিনেতা।

ঢালিউড

জোড়া সিনেমা নিয়ে ফিরছেন আফরান নিশো

সিনেমাওয়ালা রিপোর্টার

Published

on

আফরান নিশো (ছবি: ফেসবুক)

‘সুড়ঙ্গ’ পেরিয়ে ফিরছেন অভিনেতা আফরান নিশো। নতুন দুটি সিনেমায় চুক্তিবদ্ধ হয়েছেন তিনি। দুটিতেই প্রধান চরিত্রে দেখা যাবে তাকে। তবে পরিচালক ও ছবি দুটির নাম এখনো জানা যায়নি। শিগগিরই আনুষ্ঠানিকভাবে এসব ঘোষণা আসবে বলে আশা করা হচ্ছে।

নতুন সিনেমা দুটি প্রযোজনা করবে এসভিএফ আলফা-আই এন্টারটেইনমেন্ট। ভারতীয় প্রযোজনা প্রতিষ্ঠান শ্রী ভেঙ্কটেশ ফিল্মস (এসভিএফ) ও ঢাকার প্রযোজনা প্রতিষ্ঠান আলফা-আই এন্টারটেইনমেন্ট লিমিটেডের যৌথ উদ্যোগে গঠিত হয়েছে এসভিএফ আলফা-আই এন্টারটেইনমেন্ট লিমিটেড। এসভিএফ আলফা-আই এন্টারটেইনমেন্ট লিমিটেডের ব্যবস্থাপনা পরিচালক শাহরিয়ার শাকিল ও এসভিএফ-এর চেয়ারম্যান মহেন্দ্র সোনি।

২০২৩ সালে ঈদুল আজহায় রায়হান রাফী পরিচালিত ‘সুড়ঙ্গ’ সিনেমার মাধ্যমে বড় পর্দায় অভিষেক হয় আফরান নিশোর। এতে তার অভিনয় প্রশংসা কুড়িয়েছে। এরপর থেকে তার নতুন কাজের ব্যাপারে কৌতূহল ছিলো ভক্ত-দর্শকদের। অবশেষে বড় পর্দায় ফেরার সুখবর দিলেন তিনি।

পড়া চালিয়ে যান

ঢালিউড

‘তুফান’ টিজারে শাকিবের হুংকার

সিনেমাওয়ালা রিপোর্টার

Published

on

‘তুফান’ সিনেমার টিজারে শাকিব খান (ছবি: চরকি)

ঢালিউড সুপারস্টার শাকিব খানের আলোচিত সিনেমা ‘তুফান’-এর টিজার প্রকাশ্যে এলো। রায়হান রাফীর পরিচালনায় এতে অপ্রতিরোধ্য গ্যাংস্টারের আমেজে দেখা গেছে তাকে। বিভিন্ন অ্যাকশন দৃশ্যে তার লুক ও মেজাজ আভাস দিচ্ছে, তুফান বয়ে যাবে সিনেমাহলে!

১ মিনিট ২৮ সেকেন্ডের টিজারের শুরুতে শাকিব বলেন, ‌‘পূর্বের কথা মোতাবেক, এখন থেকে পুরো দেশকে তুফানের হাতে তুলিয়া দেবো। সে যা চাইবে পাইবে, যা করিতে চাইবে করিবে। তাহাকে কোনো কিছুতেই বাধা দেয়ার এখতিয়ার কেউই রাখিতে পারিবে না। আর এর ব্যত্যয় ঘটিলে…।’ এরপরই শুরু হয় তার আগ্রাসী কর্মকাণ্ড।

‘তুফান’ সিনেমার টিজারে শাকিব খান (ছবি: চরকি)

টিজারে শেষ দৃশ্যের আগে অন্যমাত্রা নিয়ে হাজির হন অভিনেতা চঞ্চল চৌধুরী। তিনি উপহাস মোড়ানো হাসি দিয়ে বলেন, ‘তুফান খুব ভয় পাইছিরে।’ এরপর বাথটাবে পানিতে বসে থাকা শাকিব হুংকার ছাড়েন।

‘তুফান’ সিনেমার টিজারে চঞ্চল চৌধুরী (ছবি: চরকি)

গতকাল (৭ মে) বিকেলে সিনেমাটির তিন প্রযোজনা প্রতিষ্ঠান আলফা আই, চরকি ও এসভিএফ-এর সোশ্যাল মিডিয়া পেজে ও ইউটিউব চ্যানেলে প্রকাশিত হয় টিজার।

টিজারে ধুন্ধুমার অ্যাকশন দৃশ্যের সঙ্গে জুড়ে দেওয়া হয়েছে টাইটেল গান। এর কথা এমন– ‘প্রলয়ের তুফান, আসছে এ তুফান, প্রলয়ের তুফান, থামাও এ তুফান’। এটি গেয়েছেন আরিফ রহমান জয়। তার সঙ্গে সহ-কণ্ঠ দিয়েছেন সাম্যব্রত দৃপ্ত। র‍্যাপ গেয়েছেন র‍্যাপস্টা দাদু। এর কথা লিখেছেন তাহসান শুভ, সুর ও সংগীত পরিচালনা করেছেন নাভেদ পারভেজ।

টিজার প্রসঙ্গে পরিচালক রায়হান রাফী বলেন, “বাংলা সিনেমাকে বিশ্ব দরবারে নতুনভাবে চেনাবে ‘তুফান’। অনেক সিনেমা ইন্ডাস্ট্রি পরিবর্তন করে। ‘তুফান’ তেমন একটি সিনেমা হতে যাচ্ছে। বাংলা সিনেমার মানদণ্ড অন্য উচ্চতায় নিয়ে যাবে। বলা যায়, ‘তুফান’ আমার জীবনের একটি স্বপ্নের প্রকল্প। শাকিব ভাইকে এই সিনেমায় পাওয়া আশীর্বাদ।”

‘তুফান’ সিনেমার টিজারে শাকিব খান (ছবি: চরকি)

‘তুফান’ দর্শকের মধ্যে ঝড় তুলবে বলে আশাবাদী এসভিএফ-এর পরিচালক ও সহ-প্রতিষ্ঠাতা মহেন্দ্র সোনি, আলফা-আই স্টুডিওসের ব্যবস্থাপনা পরিচালক শাহরিয়ার শাকিল এবং চরকির প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা রেদওয়ান রনি। তিনজনই জানিয়েছেন, টিজার প্রকাশের পর দারুণ সাড়া মিলছে।

আসন্ন ঈদুল আজহায় সিনেমাহলে মুক্তি পাবে ‘তুফান’। এতে শাকিব ও চঞ্চলের পাশাপাশি অভিনয় করেছেন মিমি চক্রবর্তী, মাসুমা রহমান নাবিলাসহ অনেকেই।

পড়া চালিয়ে যান

ঢালিউড

‘ফাতিমা’ সিনেমাহলে কবে আসছে জানালেন ফারিণ

সিনেমাওয়ালা রিপোর্টার

Published

on

তাসনিয়া ফারিণ (ছবি: ফেসবুক)

বাংলাদেশের বড় পর্দায় অভিষেক হচ্ছে অভিনেত্রী তাসনিয়া ফারিণের। তার নতুন সিনেমা ‘ফাতিমা’ আগামী ২৪ মে সিনেমাহলে মুক্তি পেতে যাচ্ছে। এতে নাম ভূমিকায় দেখা যাবে তাকে।

গতকাল (৫ মে) সোশ্যাল মিডিয়ায় ‘ফাতিমা’র পোস্টার শেয়ার দিয়ে ফারিণ লিখেছেন, “আসছে দুই সময়ের দুই সংগ্রামের আখ্যান ‘ফাতিমা’। দেখুন আগামী ২৪ মে থেকে আপনার কাছের সিনেমা হলে!”

‘ফাতিমা’র পোস্টারে তাসনিয়া ফারিণ (ছবি: আউটকাস্ট ফিল্মস)

পোস্টারে দেখা যাচ্ছে, তাসনিয়া ফারিণ একদৃষ্টিতে একদিকে তাকিয়ে আছেন। এতে ১৯৭১ ও ২০২৩ সাল উল্লেখ রয়েছে। মুক্তিযুদ্ধের সময়কার ও ২০২৩ সালের দুটি পৃথক সময়ের গল্প নিয়ে তৈরি হয়েছে সিনেমাটি। পোস্টারের নিচের অংশে গরুর গাড়িতে চড়ে ও পায়ে হেঁটে অনেককে আশ্রয়ের খোঁজে যেতে দেখা যাচ্ছে।

‘ফাতিমা’য় অসাধারণ অভিনয়ের জন্য ইরানের ৪২তম ফজর আন্তর্জাতিক ফিল্ম ফেস্টিভ্যালে পুরস্কার পেয়েছেন তাসনিয়া ফারিণ। ইস্টার্ন ভিস্তা শাখায় ক্রিস্টাল সিমোর্গ স্বীকৃতি দেওয়া হয়েছে তাকে।

তাসনিয়া ফারিণ (ছবি: ফেসবুক)

ইরানের পর গত বছর অরল্যান্ডো ফিল্ম ফেস্টিভ্যাল এবং ইন্ডি গ্যাদারিং আন্তর্জাতিক ফিল্ম ফেস্টিভ্যালের অফিসিয়াল সিলেকশনে স্থান পায় ‘ফাতিমা’।

‘ফাতিমা’য় তাসনিয়া ফারিণ ছাড়াও অভিনয় করেছেন ইয়াশ রোহান, সংগীতশিল্পী পান্থ কানাই, তারিক আনাম খান, মানস বন্দ্যোপাধ্যায়, আয়েশা মনিকা, গাউসুল আলম শাওন।

আউটকাস্ট ফিল্মস প্রযোজিত ‘ফাতিমা’র নাম শুরুতে ছিলো ‘দাহকাল’। ২০১৭ সালে এর শুটিং শুরু হলেও অর্থনৈতিক জটিলতার কারণে কাজ শেষ করে সাত বছর লেগেছে। চিত্রগ্রহণ করেছেন তুহিন তমিজুল।

তাসনিয়া ফারিণ (ছবি: ইয়াকুব)

সিনেমাটি প্রযোজনা ও পরিচালনা করেছেন ধ্রুব হাসান। গল্পটি তারই। তিনি ও আদনান হাবিব চিত্রনাট্য লিখেছেন। তারাই সম্পাদনা ও নির্বাহী প্রযোজকের দায়িত্ব পালন করেছেন। সহ-প্রযোজক আরমান কাদরী, আরজু মানারা বেগম, শামসুর রাহমান আলভী ও তুনাজ্জিনা চৌধুরী পুনম। শিল্প নির্দেশনায় তারেক বাবলু, শিহাব নুরুন নবী ও উত্তম গুহ। শব্দসজ্জা করেছেন শৈব তালুকদার। পোশাক পরিকল্পনায় জুনায়েদ বোগদাদি জিমি ও এদিলা ফারিদ তুরিন।

গানের সুর ও সংগীত এবং আবহ সংগীত পরিচালনা করেছেন পাভেল আরীন। শারমিন সুলতানা সুমি লেখার পাশাপাশি একটি কণ্ঠ দিয়েছেন। এছাড়া রয়েছে সোমনূর মনির কোনালের গাওয়া একটি গান।

পশ্চিমবঙ্গের ‘আরো এক পৃথিবী’ সিনেমার মাধ্যমে বড় পর্দায় অভিষেক হয় তাসনিয়া ফারিণের। এটি মুক্তি পায় ২০২৩ সালের ফেব্রুয়ারিতে।

পড়া চালিয়ে যান

সিনেমাওয়ালা প্রচ্ছদ