Connect with us

ঢালিউড

‘পরাণ’ সিনেমার সাফল্য পুরো ফিল্ম ইন্ডাস্ট্রির জন্য আশীর্বাদ: শরিফুল রাজ

সিনেমাওয়ালা রিপোর্টার

Published

on

শরিফুল রাজ

শরিফুল রাজ (ছবি: ফেসবুক)

রায়হান রাফি পরিচালিত ‘পরাণ’ মুক্তির পর থেকেই প্রশংসায় ভাসছেন শরিফুল রাজ। বখাটে এবং প্রেমিক পুরুষ রোমান চরিত্রে তাকে দেখে দর্শকরা অভিভূত। প্রেমে প্রতারিত হওয়া মাস্তানের চরিত্রে সবার মন জয় করেছেন তিনি। ‘পরাণ’ ব্যবসায়িকভাবে সাফল্য পাওয়ার পেছনে তার অনবদ্য নৈপুণ্য অন্যতম। অনেকে মনে করেন, এরকম অসাধারণ পারফরম্যান্স দেখিয়ে যেতে পারলে বাংলা সিনেমায় রাজত্ব করতে পারেন তিনি।

শরিফুল রাজ এখন দেশের সিনেমা ইন্ডাস্ট্রির সবচেয়ে আলোচিত তারকা। তাকে ঘিরে সোশ্যাল মিডিয়ায় চলছে ব্যাপক হইচই ও উচ্ছ্বাস। তার প্রশংসায় পঞ্চমুখ সবাই। আগামীকাল মুক্তি পাচ্ছে তরুণ এই তারকার নতুন সিনেমা ‘হাওয়া’। ‘পরাণ’ সিনেমার সাফল্য, নিজের সংগ্রামের গল্প ও নতুন সিনেমা প্রসঙ্গে সিনেমাওয়ালা নিউজের সঙ্গে আলাপচারিতায় অংশ নিয়েছেন তিনি।

শরিফুল রাজ

শরিফুল রাজ (ছবি: ফেসবুক)

সিনেমাওয়ালা নিউজ: চারদিকে ‘পরাণ’ সিনেমার জয়জয়কার চলছে। এসব দেখে কেমন অনুভূতি হয়?
শরিফুল রাজ: নিজের অভিনীত কোনো সিনেমা দর্শকদের সাড়া পেলে সত্যি ভালো লাগে। অসংখ্য মানুষ টিকিট কেটে ‘পরাণ’ দেখেছে, তাদের জন্যই মূলত সিনেমায় কাজ করি। এর আগে কয়েকটি সিনেমায় কাজ করেছি, সেসবের জন্যও প্রশংসা পেয়েছি। তবে এতটা সাড়া পাইনি। দর্শকমহলে এতো সুন্দরভাবে আমার সিনেমা সাড়া ফেলেছে বলে সত্যি খুব খুশি হয়েছি।

সিনেমাওয়ালা নিউজ: শুরুতে ১১টি সিনেমা হলে মুক্তি পেলো ‘পরাণ’। দ্বিতীয় সপ্তাহে সেই সংখ্যা পাঁচ গুণ বেড়েছে। এমন অভাবনীয় সাফল্য কি প্রত্যাশা করেছিলেন?
শরিফুল রাজ: না, এতটা প্রত্যাশা ছিলো না। যেহেতু আমরা প্রথমে খুব কম সংখ্যক সিনেমা হল পেয়েছিলাম। এমনকি সিনেপ্লেক্সগুলোতেও আমরা খুব কম শো পাই। কিন্তু প্রথম সপ্তাহে দর্শক যা করে দেখালেন, সেজন্য প্রশংসার দাবিদার তারাই। আমি এমন একটি সিনেমায় কাজ করেছি, যার গল্প ঠিকঠাক ছিলো। তার ওপর রায়হান রাফি খুব ভালো সিনেমা নির্মাণ করে। সবকিছু মিলিয়ে এই সাফল্য ‘পরাণ’ টিম এবং দর্শকদের মাধ্যেমে এসেছে। চতুর্থ সপ্তাহে এসেও ৬০টি সিনেমা হলে চলছে সিনেমাটি। আমাদের এই সাফল্য শুধু আমাদের নয়, পুরো চলচ্চিত্র ইন্ডাস্ট্রির জন্য একটা আশীর্বাদ।

শরিফুল রাজ

শরিফুল রাজ (ছবি: ফেসবুক)

সিনেমাওয়ালা নিউজ: ‘পরাণ’ সিনেমার সুবাদে দর্শকরা বিশেষ করে নারীরাও হলমুখী হয়েছেন।
শরিফুল রাজ: এটি খুব ভালো দিক। সিনেমাটি স্কুল-কলেজ শিক্ষার্থী, মা-বাবা, ভাইবোন, পরিবারসহ প্রতিটি শ্রেণির দর্শক দেখেছে বলেই সাড়া পড়েছে। পরিবার নিয়ে দলবেঁধে সিনেমা দেখার খুব ভালো একটি সম্ভাবনার জায়গা তৈরি করেছে ‘পরাণ’। সব ধরনের দর্শক সিনেমা হলে এলে এটা সম্ভব হয়। আমি প্রচুর নারীকে সিনেমা হলমুখী হতে দেখেছি। অনেক পরিবারের অংশগ্রহণ দেখলাম।

‘পরাণ’ মুক্তির পর গণমাধ্যম ও সোশ্যাল মিডিয়ায় লেখালেখি ও আলোচনার জায়গা একটা অনুঘটক হিসেবে কাজ করেছে। আমার মনে হয়, সিনেমাটির সাফল্যের আরেকটি বড় দিক হলো সংগীত। গানগুলো মানুষ বেশ পছন্দ করেছে। তাই ওই জায়গা থেকে বেশ সাড়া ফেলেছে সিনেমাটি। তার ওপর গল্পটা ছিলো সাধারণ, কিন্তু নির্মাণ ও টুইস্ট মিলিয়ে খুব সুন্দর।

শরিফুল রাজ

শরিফুল রাজ (ছবি: ফেসবুক)

সিনেমাওয়ালা নিউজ: ‘পরাণ’ সিনেমা নিয়ে সাধারণ দর্শকদের প্রতিক্রিয়া সামনে থেকে দেখেছেন। এরমধ্যে আলাদাভাবে একটি ঘটনার কথা বলুন যা সবসময় মনে পড়বে।
শরিফুল রাজ: সিনেমাটি নিয়ে মানুষের কাছাকাছি যাওয়ার সুযোগ হয়েছে, সেগুলোর মধ্যে অনেক ঘটনাই মনে রাখার মতো। এমন অনেক দর্শক দেখেছি যারা ১৯৯৮ সালে সবশেষ বাংলা সিনেমা দেখেছিলেন, তারাও ‘পরাণ’-এর জন্য সিনেমা হলে এসেছেন। অর্থাৎ ২০ বছর পর তারা বাংলা সিনেমা দেখলেন। একদল দর্শক পেলাম যারা সুদূর আমেরিকা থেকে ছুটিতে সিনেমা দেখার জন্য এসেছেন।

এরকম অনেক ঘটনা দেখেছি, যা আমাদের দেশীয় সিনেমার বেলায় বিরল। আশি-নব্বই দশকের দিকে সিনেমার জন্য এমন হতো। পরিবার নিয়ে সিনেমা দেখার একটা হিড়িক পড়তো সেই সময়। ‘পরাণ’কে ঘিরে দর্শক সমাগম বাংলা সিনেমার জন্য একটা উৎসবের মতো। আমি নিজেও বাবা-মা, চাচা-চাচিদের নিয়ে কুমিল্লার একটি ছোট সিনেমা হলে ‘পরাণ’ দেখলাম। বিভিন্ন ধরনের মানুষ সিনেমাটি দেখতে এসেছে, এজন্য আমি আসলে ভাগ্যবান।

সবকিছু মিলিয়ে সিনেমাটি দেখে অনেক বড় একটি ঘটনার জন্ম দিয়েছেন দর্শকরা, যারা সত্যিই বাংলা সিনেমা দেখতে পছন্দ করে। আমার মনে হয়, ঠিকঠাক সিনেমা কেউ বানালে এবং ভালো গল্প হলে সবশ্রেণির দর্শক দিন শেষে একসঙ্গে বাংলা সিনেমা দেখে। ‘পরাণ’ সেই প্রমাণ দিলো। এটাও প্রমাণ হলো, আমাদের দেশ বাংলা সিনেমার জন্য অনেক বড় একটি বাজার।

শরিফুল রাজ

শরিফুল রাজ (ছবি: ফেসবুক)

সিনেমাওয়ালা নিউজ: দর্শকরা বলছে, ‘পরাণ’ সিনেমার মাধ্যমে ঢালিউডে রাজত্ব করতে যাচ্ছেন রাজ। কী মনে হচ্ছে?
শরিফুল রাজ: রাজত্ব নিয়ে কখনো ভাবিনি। ‘পরাণ’ সিনেমা মুক্তির পর আমাকে নিয়ে অনেক মন্তব্য শুনেছি এবং অনেকে লেখালেখি করেছেন। এটাকে খুব ভালোভাবে নিচ্ছি। আমার কাজ নিয়ে এমন আলোচনা বা বিশ্লেষণ আমার জন্য ইতিবাচক দিক। এগুলো আমার জন্য খুব অনুপ্রেরণার। আমার কাজের ধারা অনুযায়ী সাধারণ পন্থায় যেভাবে সিনেমা বাছাই করি কিংবা যেভাবে চিত্রনাট্য পছন্দ করি, সেই জায়গা থেকেই ‘পরাণ’-এর সঙ্গে আমার যুক্ত হওয়া। দিন শেষে দর্শক গল্প ও রোমান চরিত্রটি পছন্দ করেছে। আমি যেরকম ঠিকঠাক কাজ করি, সেই ধারাটা সবসময় অব্যাহত রাখার চেষ্টা করবো। আমি যেরকম ছিলাম, সেরকম কাজ করতে থাকবো। রাজত্ব বা রাজ করা আমার কাজ নয়, দিন শেষে অভিনয়টা ঠিকঠাক করতে পারলেই আমি খুশি। সেটাই আমার মূল কাজ।

সিনেমাওয়ালা নিউজ: ‘পরাণ’ কি আপনার ক্যারিয়ারের টার্নিং পয়েন্ট?
শরিফুল রাজ: আমার ক্যারিয়ারের টার্নিং পয়েন্ট বললে ‘আইসক্রিম’ সিনেমার কথা বলবো। তবে ‘পরাণ’ সিনেমায় অভিনয় করে সবচেয়ে বেশি সাড়া পেয়েছি। এর আগে কখনো এতো প্রশংসা পাইনি। রোমান চরিত্রটির মধ্যে হয়তো ডায়নামিক ও ইন্টারেস্টিং কোনো ব্যাপার ছিল, যে কারণে দর্শকরা তাকে এতোটা পছন্দ করেছে। সেই জায়গা থেকে অসংখ্য মানুষ আমাকে নিয়ে লেখালেখি করেছেন। তাই ‘পরাণ’ আমার ক্যারিয়ারের অন্যতম একটি সিনেমা। আর রোমান চরিত্রটি আমার জীবনে অন্যতম কাজ হয়ে থাকবে।

শরিফুল রাজ

শরিফুল রাজ (ছবি: ফেসবুক)

সিনেমাওয়ালা নিউজ: আপনি অনেক স্ট্রাগল করেছেন। এখন সাফল্যে ভাসছেন। দুটি বিপরীত সময়কে নিয়ে ভাবলে কেমন লাগে?
শরিফুল রাজ: সংগ্রাম ও সাফল্যের ব্যাপার কখনো আলাদা করতে চাই না। আমি এখনও সংগ্রাম করে যাচ্ছি। সংগ্রামের মধ্যে একটা মজা আছে। আর সাফল্যের মধ্যে আছে আরেকটি মজা। তাই আমার কাছে দুটি কখনো আলাদা নয়। শুধু কাজের বেলায় নয়, ব্যক্তিজীবন ও সিনেমার চরিত্রের জন্য সংগ্রাম করার মধ্যে একটা মজা আছে। তবে হ্যাঁ, ব্যক্তিজীবনে আমি অনেক সংগ্রামের মধ্য দিয়ে যাওয়া একটি ছেলে। অনেকদিন অনেকভাবে সংগ্রাম করতে হয়েছে আমাকে। অবশ্য সেই সুবাদে অনেক কাজও করা হয়েছে। এসবের বিপরীতে যখন সাফল্য এসেছে, সেগুলো খুব উপভোগ করেছি।

‘পরাণ’ সিনেমাটি ব্লকবাস্টার হিট হওয়ায় এবং আমার কাজ নিয়ে এতো উৎসাহ-উদ্দীপনা দেখে দারুণ ভালো লাগছে। সব মিলিয়ে সংগ্রামটা সংগ্রামের জায়গায়। তবে হ্যাঁ, সাফল্যকে উপভোগ করি। কারণ সাফল্যটা আমার কাজের জন্য এসেছে। দিন শেষে নিজের কাজকে আমি অনেক ভালোবাসি, তাই সব কাজ মন দিয়ে করার চেষ্টা থাকে আমার। ‘পরাণ’ সিনেমার জন্য পাওয়া সাফল্য আমাকে পরবর্তী কাজের জন্য অনুপ্রাণিত করবে। আমার চেষ্টা থাকবে যেন আন্তরিকভাবে এবং দায়িত্বশীলতা বজায় রেখে ঠিকঠাকভাবে কাজ করতে পারি।

আমার মনে হয়, জীবনে সংগ্রাম বা কষ্ট বা ক্রাইসিস কিংবা আপস অ্যান্ড ডাউন না থাকলে হয়তো এখনকার সাফল্য আসতো না। তাই এই সাফল্যের পেছনে আমার অনেকদিনের অনেক কষ্ট, বিষণ্ণতা ও হতাশা পাড়ি দেওয়ার ঘটনা আছে। আমাকে অনেক কিছুর মধ্য দিয়ে পথ চলতে হয়েছে। তাই সাফল্য ও সংগ্রামের সময় দুটোই সত্যি খুব উপভোগ করি। দুটিকে আলাদা নয়, একসঙ্গে নিয়েই বসবাসের চেষ্টা করি।

শরিফুল রাজ

শরিফুল রাজ (ছবি: ফেসবুক)

সিনেমাওয়ালা নিউজ: ‘পরাণ’ উন্মাদনার মধ্যে এবার আসছে ‘হাওয়া’। এতে আপনার চরিত্রটি কেমন?
শরিফুল রাজ: আনন্দদায়ক ব্যাপার হলো, ‘পরাণ’ উন্মাদনার পরপরই ‘হাওয়া’ আসছে। আর ‘পরাণ’ সিনেমা হলে থাকা অবস্থায় ‘হাওয়া’ আসছে। সেজন্য আমি খুবই উচ্ছ্বসিত। টানা সিনেমা মুক্তির ঘটনা আমার ক্যারিয়ারে এটাই প্রথম। তবে চাপ নেই, কিন্তু চ্যালেঞ্জ আছে। কারণ দুটি সিনেমায় দুই ধরনের চরিত্র এবং পরিচালক রায়হান রাফি ও মেজবাউর রহমান সুমন চিন্তাভাবনার দিক থেকে দুই রকম। সবকিছু মিলিয়ে ‘হাওয়া’ সিনেমায় আমার চরিত্রটি ভিন্ন ধাঁচের। তার নাম ইব্রাহিম। ‘হাওয়া’ মূলত কয়েকজন মাঝির গল্প। এটি একটি আঞ্চলিক সিনেমা। পরিচালক মেজবাউর রহমান সুমন বাংলাদেশের একজন স্বনামধন্য নির্মাতা। ‘হাওয়া’র মতো পেশাদার ফিল্মমেকিং টিম আমাদের দেশে এর আগে কাজ করতে গিয়ে কোথাও পাইনি। সেই জায়গা থেকে আমি ভাগ্যবান, ‘হাওয়া’র মতো একটি টিমের সঙ্গে কাজ করার সুযোগ পেয়েছি। আগামীকাল থেকে দর্শকরা ‘হাওয়া’ দেখবে। তাদের কেমন লাগবে জানার অপেক্ষায় আছি।

সিনেমাওয়ালা নিউজ: ‘হাওয়া’ নিয়ে আপনার প্রত্যাশা কী?
শরিফুল রাজ: আমি কোনো কাজই তেমন প্রত্যাশা নিয়ে করি না। তবে হ্যাঁ, সবসময় একটা ভালো অনুভূতি নিয়ে কাজ করি। যখন চিত্রনাট্য বাছাই করি তখনই বোঝা যায় শুটিং কেমন হবে। যেভাবে ‘হাওয়া’র শুটিং করেছি তাতে আমার মনে হয়, এমন সিনেমা আমাদের দেশে হয়নি এবং কেউ কখনো করেনি এর আগে। অভিনয়শিল্পী থেকে শুরু করে সিনেমাটির সঙ্গে যারা যুক্ত ছিলেন সবাই খুব পেশাদার। সিনেমাটির চিত্রায়ন এমনভাবে হয়েছে যে, সত্যি বলতে আগে কখনও দেখিনি। সবকিছু মিলিয়ে মনে হচ্ছে, ‘হাওয়া’ একটি সুন্দর সিনেমা, ভালো গল্প ও কন্টেন্টের সিনেমা। আমার আশা, সিনেমাটি মানুষ দেখবে। ‘পরাণ’ মুক্তির পর যেমন উন্মাদনা ছড়িয়েছে, ‘হাওয়া’ ইতোমধ্যে সেই উন্মাদনা ছড়িয়েছে। সিনেমাটি নিয়ে আমি খুবই আশাবাদী। ‘পরাণ’-এর মতো ‘হাওয়া’র উন্মাদনা অব্যাহত থাকুক। বাংলা সিনেমার জন্য এটি অনেক বড় একটি ঘটনা হয়ে থাকবে। ইতিহাস হয়ে থাকার মতো অনেক কারণ আছে ‘হাওয়া’য়। এটি মুক্তির পর দর্শকরা তাদের মতামত জানাবেন নিঃসন্দেহে। আমরা আমাদের কাজ করে এসেছি, এখন মানুষ সিনেমা হলে ‘হাওয়া’ দেখলেই আমরা সার্থক।

ঢালিউড

জোড়া সিনেমা নিয়ে ফিরছেন আফরান নিশো

সিনেমাওয়ালা রিপোর্টার

Published

on

আফরান নিশো (ছবি: ফেসবুক)

‘সুড়ঙ্গ’ পেরিয়ে ফিরছেন অভিনেতা আফরান নিশো। নতুন দুটি সিনেমায় চুক্তিবদ্ধ হয়েছেন তিনি। দুটিতেই প্রধান চরিত্রে দেখা যাবে তাকে। তবে পরিচালক ও ছবি দুটির নাম এখনো জানা যায়নি। শিগগিরই আনুষ্ঠানিকভাবে এসব ঘোষণা আসবে বলে আশা করা হচ্ছে।

নতুন সিনেমা দুটি প্রযোজনা করবে এসভিএফ আলফা-আই এন্টারটেইনমেন্ট। ভারতীয় প্রযোজনা প্রতিষ্ঠান শ্রী ভেঙ্কটেশ ফিল্মস (এসভিএফ) ও ঢাকার প্রযোজনা প্রতিষ্ঠান আলফা-আই এন্টারটেইনমেন্ট লিমিটেডের যৌথ উদ্যোগে গঠিত হয়েছে এসভিএফ আলফা-আই এন্টারটেইনমেন্ট লিমিটেড। এসভিএফ আলফা-আই এন্টারটেইনমেন্ট লিমিটেডের ব্যবস্থাপনা পরিচালক শাহরিয়ার শাকিল ও এসভিএফ-এর চেয়ারম্যান মহেন্দ্র সোনি।

২০২৩ সালে ঈদুল আজহায় রায়হান রাফী পরিচালিত ‘সুড়ঙ্গ’ সিনেমার মাধ্যমে বড় পর্দায় অভিষেক হয় আফরান নিশোর। এতে তার অভিনয় প্রশংসা কুড়িয়েছে। এরপর থেকে তার নতুন কাজের ব্যাপারে কৌতূহল ছিলো ভক্ত-দর্শকদের। অবশেষে বড় পর্দায় ফেরার সুখবর দিলেন তিনি।

পড়া চালিয়ে যান

ঢালিউড

‘তুফান’ টিজারে শাকিবের হুংকার

সিনেমাওয়ালা রিপোর্টার

Published

on

‘তুফান’ সিনেমার টিজারে শাকিব খান (ছবি: চরকি)

ঢালিউড সুপারস্টার শাকিব খানের আলোচিত সিনেমা ‘তুফান’-এর টিজার প্রকাশ্যে এলো। রায়হান রাফীর পরিচালনায় এতে অপ্রতিরোধ্য গ্যাংস্টারের আমেজে দেখা গেছে তাকে। বিভিন্ন অ্যাকশন দৃশ্যে তার লুক ও মেজাজ আভাস দিচ্ছে, তুফান বয়ে যাবে সিনেমাহলে!

১ মিনিট ২৮ সেকেন্ডের টিজারের শুরুতে শাকিব বলেন, ‌‘পূর্বের কথা মোতাবেক, এখন থেকে পুরো দেশকে তুফানের হাতে তুলিয়া দেবো। সে যা চাইবে পাইবে, যা করিতে চাইবে করিবে। তাহাকে কোনো কিছুতেই বাধা দেয়ার এখতিয়ার কেউই রাখিতে পারিবে না। আর এর ব্যত্যয় ঘটিলে…।’ এরপরই শুরু হয় তার আগ্রাসী কর্মকাণ্ড।

‘তুফান’ সিনেমার টিজারে শাকিব খান (ছবি: চরকি)

টিজারে শেষ দৃশ্যের আগে অন্যমাত্রা নিয়ে হাজির হন অভিনেতা চঞ্চল চৌধুরী। তিনি উপহাস মোড়ানো হাসি দিয়ে বলেন, ‘তুফান খুব ভয় পাইছিরে।’ এরপর বাথটাবে পানিতে বসে থাকা শাকিব হুংকার ছাড়েন।

‘তুফান’ সিনেমার টিজারে চঞ্চল চৌধুরী (ছবি: চরকি)

গতকাল (৭ মে) বিকেলে সিনেমাটির তিন প্রযোজনা প্রতিষ্ঠান আলফা আই, চরকি ও এসভিএফ-এর সোশ্যাল মিডিয়া পেজে ও ইউটিউব চ্যানেলে প্রকাশিত হয় টিজার।

টিজারে ধুন্ধুমার অ্যাকশন দৃশ্যের সঙ্গে জুড়ে দেওয়া হয়েছে টাইটেল গান। এর কথা এমন– ‘প্রলয়ের তুফান, আসছে এ তুফান, প্রলয়ের তুফান, থামাও এ তুফান’। এটি গেয়েছেন আরিফ রহমান জয়। তার সঙ্গে সহ-কণ্ঠ দিয়েছেন সাম্যব্রত দৃপ্ত। র‍্যাপ গেয়েছেন র‍্যাপস্টা দাদু। এর কথা লিখেছেন তাহসান শুভ, সুর ও সংগীত পরিচালনা করেছেন নাভেদ পারভেজ।

টিজার প্রসঙ্গে পরিচালক রায়হান রাফী বলেন, “বাংলা সিনেমাকে বিশ্ব দরবারে নতুনভাবে চেনাবে ‘তুফান’। অনেক সিনেমা ইন্ডাস্ট্রি পরিবর্তন করে। ‘তুফান’ তেমন একটি সিনেমা হতে যাচ্ছে। বাংলা সিনেমার মানদণ্ড অন্য উচ্চতায় নিয়ে যাবে। বলা যায়, ‘তুফান’ আমার জীবনের একটি স্বপ্নের প্রকল্প। শাকিব ভাইকে এই সিনেমায় পাওয়া আশীর্বাদ।”

‘তুফান’ সিনেমার টিজারে শাকিব খান (ছবি: চরকি)

‘তুফান’ দর্শকের মধ্যে ঝড় তুলবে বলে আশাবাদী এসভিএফ-এর পরিচালক ও সহ-প্রতিষ্ঠাতা মহেন্দ্র সোনি, আলফা-আই স্টুডিওসের ব্যবস্থাপনা পরিচালক শাহরিয়ার শাকিল এবং চরকির প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা রেদওয়ান রনি। তিনজনই জানিয়েছেন, টিজার প্রকাশের পর দারুণ সাড়া মিলছে।

আসন্ন ঈদুল আজহায় সিনেমাহলে মুক্তি পাবে ‘তুফান’। এতে শাকিব ও চঞ্চলের পাশাপাশি অভিনয় করেছেন মিমি চক্রবর্তী, মাসুমা রহমান নাবিলাসহ অনেকেই।

পড়া চালিয়ে যান

ঢালিউড

‘ফাতিমা’ সিনেমাহলে কবে আসছে জানালেন ফারিণ

সিনেমাওয়ালা রিপোর্টার

Published

on

তাসনিয়া ফারিণ (ছবি: ফেসবুক)

বাংলাদেশের বড় পর্দায় অভিষেক হচ্ছে অভিনেত্রী তাসনিয়া ফারিণের। তার নতুন সিনেমা ‘ফাতিমা’ আগামী ২৪ মে সিনেমাহলে মুক্তি পেতে যাচ্ছে। এতে নাম ভূমিকায় দেখা যাবে তাকে।

গতকাল (৫ মে) সোশ্যাল মিডিয়ায় ‘ফাতিমা’র পোস্টার শেয়ার দিয়ে ফারিণ লিখেছেন, “আসছে দুই সময়ের দুই সংগ্রামের আখ্যান ‘ফাতিমা’। দেখুন আগামী ২৪ মে থেকে আপনার কাছের সিনেমা হলে!”

‘ফাতিমা’র পোস্টারে তাসনিয়া ফারিণ (ছবি: আউটকাস্ট ফিল্মস)

পোস্টারে দেখা যাচ্ছে, তাসনিয়া ফারিণ একদৃষ্টিতে একদিকে তাকিয়ে আছেন। এতে ১৯৭১ ও ২০২৩ সাল উল্লেখ রয়েছে। মুক্তিযুদ্ধের সময়কার ও ২০২৩ সালের দুটি পৃথক সময়ের গল্প নিয়ে তৈরি হয়েছে সিনেমাটি। পোস্টারের নিচের অংশে গরুর গাড়িতে চড়ে ও পায়ে হেঁটে অনেককে আশ্রয়ের খোঁজে যেতে দেখা যাচ্ছে।

‘ফাতিমা’য় অসাধারণ অভিনয়ের জন্য ইরানের ৪২তম ফজর আন্তর্জাতিক ফিল্ম ফেস্টিভ্যালে পুরস্কার পেয়েছেন তাসনিয়া ফারিণ। ইস্টার্ন ভিস্তা শাখায় ক্রিস্টাল সিমোর্গ স্বীকৃতি দেওয়া হয়েছে তাকে।

তাসনিয়া ফারিণ (ছবি: ফেসবুক)

ইরানের পর গত বছর অরল্যান্ডো ফিল্ম ফেস্টিভ্যাল এবং ইন্ডি গ্যাদারিং আন্তর্জাতিক ফিল্ম ফেস্টিভ্যালের অফিসিয়াল সিলেকশনে স্থান পায় ‘ফাতিমা’।

‘ফাতিমা’য় তাসনিয়া ফারিণ ছাড়াও অভিনয় করেছেন ইয়াশ রোহান, সংগীতশিল্পী পান্থ কানাই, তারিক আনাম খান, মানস বন্দ্যোপাধ্যায়, আয়েশা মনিকা, গাউসুল আলম শাওন।

আউটকাস্ট ফিল্মস প্রযোজিত ‘ফাতিমা’র নাম শুরুতে ছিলো ‘দাহকাল’। ২০১৭ সালে এর শুটিং শুরু হলেও অর্থনৈতিক জটিলতার কারণে কাজ শেষ করে সাত বছর লেগেছে। চিত্রগ্রহণ করেছেন তুহিন তমিজুল।

তাসনিয়া ফারিণ (ছবি: ইয়াকুব)

সিনেমাটি প্রযোজনা ও পরিচালনা করেছেন ধ্রুব হাসান। গল্পটি তারই। তিনি ও আদনান হাবিব চিত্রনাট্য লিখেছেন। তারাই সম্পাদনা ও নির্বাহী প্রযোজকের দায়িত্ব পালন করেছেন। সহ-প্রযোজক আরমান কাদরী, আরজু মানারা বেগম, শামসুর রাহমান আলভী ও তুনাজ্জিনা চৌধুরী পুনম। শিল্প নির্দেশনায় তারেক বাবলু, শিহাব নুরুন নবী ও উত্তম গুহ। শব্দসজ্জা করেছেন শৈব তালুকদার। পোশাক পরিকল্পনায় জুনায়েদ বোগদাদি জিমি ও এদিলা ফারিদ তুরিন।

গানের সুর ও সংগীত এবং আবহ সংগীত পরিচালনা করেছেন পাভেল আরীন। শারমিন সুলতানা সুমি লেখার পাশাপাশি একটি কণ্ঠ দিয়েছেন। এছাড়া রয়েছে সোমনূর মনির কোনালের গাওয়া একটি গান।

পশ্চিমবঙ্গের ‘আরো এক পৃথিবী’ সিনেমার মাধ্যমে বড় পর্দায় অভিষেক হয় তাসনিয়া ফারিণের। এটি মুক্তি পায় ২০২৩ সালের ফেব্রুয়ারিতে।

পড়া চালিয়ে যান

সিনেমাওয়ালা প্রচ্ছদ