Connect with us

হলিউড

প্রিয়াঙ্কার গলায় ২৬৪ কোটি টাকার নেকলেস

সিনেমাওয়ালা ডেস্ক

Published

on

প্রিয়াঙ্কা চোপড়া (ছবি: ইনস্টাগ্রাম)

ভারতীয় অভিনেত্রী প্রিয়াঙ্কা চোপড়ার কাছে যেকোনো বড় আয়োজনের লালগালিচা চেনা আঙিনা। সাম্প্রতিক বছরগুলোতে বাহারি আকর্ষণীয় পোশাকের মাধ্যমে নজর কেড়েছেন তিনি। ফলে তার উপস্থিতি মানেই জমকালো আবহ, এমন ইতিবাচক ধারণা তৈরি হয়েছে। নিউইয়র্ক, লন্ডন কিংবা প্যারিস– সবখানেই ফ্যাশন আইকন হিসেবে ধরা দিয়েছেন ৪০ বছর বয়সী এই তারকা।

যুক্তরাষ্ট্রের নিউইয়র্ক সিটির মেট্রোপলিটান মিউজিয়াম অব আর্টের কস্টিউম ইনস্টিটিউটের কল্যাণে তহবিল সংগ্রহের বার্ষিক আয়োজন মেট গালায় প্রিয়াঙ্কা নিয়মিত মুখ। গত ১ মে বুলগারির লেগুনা ব্লু হীরার নেকলেস পরে অংশ নিয়েছেন তিনি। ইতালিয়ান ফ্যাশন প্রতিষ্ঠানটির সঙ্গে তার সুসম্পর্ক অনেকদিনের। তাই তার গলায় এবার শোভা পেয়েছে তাদের ২৬৪ কোটি টাকা মূল্যের জ্বলজ্বলে নেকলেস। সবার দৃষ্টি আটকে ছিলো সেদিকেই।

প্রিয়াঙ্কা চোপড়া (ছবি: ইনস্টাগ্রাম)

চলতি মাসে ১১ দশমিক ১৬ ক্যারেটের হীরার নেকলেসটি নিলামে তুলবে আমেরিকান বহুজাতিক করপোরেশন সদেবি’স। এর বর্তমান মূল্য ২৬৪ কোটি টাকা। এমনিতে এ ধরনের মুক্তা আকৃতির হীরা পৃথিবীতে দুর্লভ, সেই সঙ্গে এতে যোগ হয়েছে বুলগারির ভাবমূর্তি। ফলে নিলামে নেকলেসটির ভিত্তি মূল্য ৩০০ কোটি টাকা ছাড়িয়ে যেতে পারে।

বুলগারির দুর্লভ হীরার নেকলেস (ছবি: ইনস্টাগ্রাম)

এবারের মেট গালার জন্য ইতালিয়ান ফ্যাশন হাউজ ভ্যালেন্তিনোর কাঁধখোলা কালো গাউন পরেছেন প্রিয়াঙ্কা। এর কোমরের অংশে রয়েছে একটি নেকটাই। পেছনের দিকটা জোব্বার মতো বেশ লম্বা। তার হাতে সাদা অপেরা দস্তানা, পায়ে কালো হিল ও কানের দুল নজর কেড়েছে। এছাড়া কালো ফিতায় বাঁধা ছিলো চুল।

প্রিয়াঙ্কা চোপড়া (ছবি: ইনস্টাগ্রাম)

এ বছরের আয়োজনে প্রয়াত ফ্যাশন ডিজাইনার কার্ল লাগারফেল্ডের প্রতি সম্মান জানানো হয়েছে। জীবদ্দশায় নিজের নামের ব্র্যান্ড, শানেল, ফেন্ডির মতো ব্র্যান্ড তত্ত্বাবধান করতেন তিনি। এবারের থিম ছিলো ‘কার্ল লাগারফেল্ড: অ্যা লাইন অব বিউটি’।

প্রিয়াঙ্কা চোপড়া ও নিক জোনাস (ছবি: ইনস্টাগ্রাম)

কার্ল সাধারণত সাদাকালো পোশাক পরতেন। সেজন্য তাকে সম্মান জানাতে তারকারা প্রায় সবাই এই দুটি রঙ বেছে নিয়েছেন। ব্যতিক্রম ছিলেন না প্রিয়াঙ্কা। এ নিয়ে চতুর্থবার মেট গালায় অংশ নিলেন তিনি। তার পাশে ছিলেন তার স্বামী আমেরিকান গায়ক নিক জোনাস।

প্রিয়াঙ্কা চোপড়া ও নিক জোনাস (ছবি: ইনস্টাগ্রাম)

এদিকে গত ২৮ এপ্রিল অ্যামাজন প্রাইম ভিডিওতে মুক্তি পেয়েছে প্রিয়াঙ্কা অভিনীত নতুন ওয়েব সিরিজ ‘সিটাডেল’। এর গল্পে রয়েছে সিটাডেল নামের বৈশ্বিক সংগনের দুই গুপ্তচরের একটি বিপজ্জনক মিশন। ম্যান্টিকোর নামের একটি সংগঠন পৃথিবীর সব সিটাডেল গোয়েন্দাকে মেরে ফেলার পরিকল্পনা করে। এতে তাকে দেখা গেছে নাদিয়া সিন চরিত্রে। তার প্রধান তিন সহশিল্পী রিচার্ড ম্যাডেন, স্ট্যানলি টুসি ও লেসলি ম্যানভিল। রুশো ভ্রাতৃদ্বয়ের এজিবিও এটি প্রযোজনা করেছে। পরিচালনায় ডেভিড ভাইল।

আগামী ৫ মে বড় পর্দায় মুক্তি পেতে যাচ্ছে প্রিয়াঙ্কার নতুন সিনেমা ‘লাভ অ্যাগেইন’। এতে মীরা রায় চরিত্রে দেখা যাবে তাকে। জেমস সি. স্ট্রাউসের পরিচালনায় এই সিনেমায় আরো অভিনয় করেছেন স্কটিশ তারকা স্যাম হিউয়েন ও ‘টাইটানিক’ সিনেমার গায়িকা সেলিন ডিওন।

হলিউড

আন্তর্জাতিক মুক্তির আগেই বাংলাদেশের পর্দায় ‘দ্য ফল গাই’

সিনেমাওয়ালা ডেস্ক

Published

on

‘দ্য ফল গাই’ সিনেমার পোস্টারে রায়ান গসলিং ও এমিলি ব্লান্ট (ছবি: ইউনিভার্সেল পিকচার্স)

আশির দশকে অ্যাকশন-অ্যাডভেঞ্চারভিত্তিক আমেরিকান টিভি সিরিজ ‘দ্য ফল গাই’ তুমুল জনপ্রিয়তা পায়। সেই ‘দ্য ফল গাই’ এবার এলো বড় পর্দায়। সিরিজের নামেই রাখা হয়েছে সিনেমার নাম। ইউনিভার্সেল পিকচার্সের পরিবেশনায় এটি যুক্তরাষ্ট্র, কানাডাসহ আন্তর্জাতিকভাবে মুক্তি পাবে ৩ মে। তবে চমকপ্রদ খবর হলো, বাংলাদেশের বড় পর্দায় ইতোমধ্যে চলে এসেছে ‘দ্য ফল গাই’। আজ (১ মে) এটি মুক্তি দিয়েছে স্টার সিনেপ্লেক্স। ফলে বিশ্বের অনেক দেশের আগেই বাংলাদেশের দর্শকরা এই সিনেমা দেখার সুযোগ পাচ্ছেন।

অ্যাকশন-কমেডি ধাঁচের সিনেমা ‘দ্য ফল গাই’ পরিচালনা করেছেন আমেরিকার ডেভিড লিচ। ‘জন উইক’, ‘অ্যাটমিক ব্লন্ড’ ও ‘বুলেট ট্রেন’-এর মতো অ্যাকশনধর্মী সিনেমা পরিচালনার আগে তিনি নিজেই একজন স্টান্টম্যান ছিলেন। ব্র্যাড পিট ও ম্যাট ডেমনের স্টান্ট-ডাবল হিসেবে কাজ করেছেন ৪৮ বছর বয়সী এই নির্মাতা। আমেরিকান সংবাদমাধ্যম এন্টারটেইনমেন্ট উইকলিকে তিনি বলেন, ‘সিনেমাটি পুরো স্টান্ট সম্প্রদায়ের প্রতি ভালোবাসার বহিঃপ্রকাশ। স্টান্টম্যান ও পর্দার আড়ালের ক্রুরা মিলেই একটি সিনেমাকে পূর্ণতা এনে দেন। সিনেমায় তাদের অবদান ও না-বলা গল্প সবার সামনে তুলে ধরতেই সিনেমাটি তৈরি করা।’

‘দ্য ফল গাই’ সিনেমার পোস্টারে রায়ান গসলিং (ছবি: ইউনিভার্সেল পিকচার্স)

গল্পে দেখা যাবে, হলিউড স্টান্ট পারফরমার কোল্ট সিভার্স সাবেক প্রেমিকার প্রথম পরিচালিত সিনেমায় কাজ করে। তার উদ্দেশ্য শুধুই সিনেমাটির প্রধান অভিনেতাকে ঘিরে ষড়যন্ত্রের কুলকিনারা করা। কোল্ট সিভার্স চরিত্রে অভিনয় করেছেন ‘বার্বি’ তারকা রায়ান গসলিং। তিনি ও পরিচালক ডেভিড লিচ সিনেমাটির দুই প্রযোজক।

‘দ্য ফল গাই’তে নির্মাতা চরিত্রে অভিনয় করেছেন ‘ওপেনহাইমার’ খ্যাত ব্রিটিশ তারকা এমিলি ব্লান্ট। এছাড়াও আছেন অ্যারন টেলর-জনসন, হানা ওয়াডিংহাম, স্টেফানি সু, উইনস্টন ডিউক, টেরেসা পালমার।

‘দ্য ফল গাই’ সিনেমার পোস্টারে রায়ান গসলিং ও এমিলি ব্লান্ট (ছবি: ইউনিভার্সেল পিকচার্স)

সিনেমাহলে মুক্তির আগে গিনেস বুকে জায়গা করে নিয়েছে ২ ঘণ্টা ৬ মিনিট দৈর্ঘ্যের ‘দ্য ফল গাই’। সর্বাধিক ক্যানন রোলের (শূন্যে গাড়িকে চক্কর দেওয়ানো) অন্যরকম রেকর্ড গড়েছে এটি। অস্ট্রেলিয়ার সিডনিতে শুটিংয়ের সময় স্টান্ট ড্রাইভার লোগান হোলাডে একটি গাড়িতে সর্বাধিক সাড়ে আট বার ক্যানন রোল করে ভেঙেছেন ২০০৬ সালে মুক্তিপ্রাপ্ত জেমস বন্ড ফ্র্যাঞ্চাইজের ‘ক্যাসিনো রয়েল’-এর স্টান্টম্যান অ্যাডাম কার্লির সাতটি ক্যানন রোলের রেকর্ড।

পড়া চালিয়ে যান

হলিউড

‘ট্রান্সফরমার্স ওয়ান’: মহাকাশে ট্রেলার প্রকাশ!

সিনেমাওয়ালা ডেস্ক

Published

on

‘ট্রান্সফরমার্স ওয়ান’ সিনেমার পোস্টার (ছবি: প্যারামাউন্ট পিকচার্স)

হলিউডের জনপ্রিয় ফ্র্যাঞ্চাইজ ‘ট্রান্সফরমার্স’ পৃথিবীর সীমানা পেরিয়ে পৌঁছে গেলো মহাকাশে! ভূ-পৃষ্ঠ থেকে ১ লাখ ২৫ হাজার ফুট ওপরে এর নতুন কিস্তি ‘ট্রান্সফরমার্স ওয়ান’-এর ট্রেলার প্রকাশিত হয়েছে। ইতিহাসে এর আগে এমনটি ঘটেনি!

গতকাল (১৮ এপ্রিল) ইউটিউবে প্যারামাউন্ট পিকচার্সের চ্যানেলে, ট্রান্সফরমার্স মুভির সব সোশ্যাল মিডিয়া অ্যাকাউন্টে এবং ইনস্টাগ্রামে অস্ট্রেলিয়ান অভিনেতা ক্রিস হেমসওয়ার্থের অ্যাকাউন্টে সরাসরি দেখানো হয় মনিটর নিয়ে একটি নভোযানের মহাকাশযাত্রা। ১ লাখ ২৫ হাজার ফুট ওপরে পৌঁছাতে লেগেছে প্রায় ১ ঘণ্টা। ‘ট্রান্সফরমার্স ওয়ান’ সিনেমার ট্রেলারের প্রিমিয়ার শুরুর ৭ সেকেন্ড আগে পর্দায় হাজির হন অস্ট্রেলিয়ান অভিনেতা ক্রিস হেমসওয়ার্থ ও আমেরিকান অভিনেতা ব্রায়ান টাইরি হেনরি। আগে থেকে ধারণকৃত ভিডিওতে তারা বলেন, “ট্রান্সফরমার্স বন্ধুরা, একটুও নড়বেন না। ‘ট্রান্সফরমার্স ওয়ান’ ট্রেলার শুরু হচ্ছে এখন!”

ইউটিউবে মহাকাশযাত্রা ও ট্রেলারের প্রিমিয়ার দেখা হয়েছে প্রায় সাড়ে ৬ লাখ বার। এর হাইলাইটসের ভিউ সংখ্যা ৬০ হাজার। ট্রেলারটির ভিউ ১৮ ঘণ্টায় ছাড়িয়েছে ৭০ লাখের ঘর।

সিনেমাটিতে অরিয়ন প্যাক্স ওরফে অপটিমাস প্রাইম চরিত্রে ক্রিস হেমসওয়ার্থ ও ডি-সিক্সটিন ওরফে মেগাট্রনের ভূমিকায় কণ্ঠ দিয়ে অভিনয় করেছেন ব্রায়ান টাইরি হেনরি। এছাড়া ভয়েস আর্টিস্ট হিসেবে কাজ করেছেন স্কারলেট জোহানসন, কিগ্যান-মাইকেল কি, স্টিভ বুশেমি, লরেন্স ফিশবার্ন ও জন হ্যাম।

‘ট্রান্সফরমার্স ওয়ান’-এ দেখা যাবে, জনপ্রিয় দুই ট্রান্সফরমার অপটিমাস প্রাইম ও মেগাট্রনের শেকড়ের গল্প। তারা শত্রু হিসেবে পরিচিত হলেও একসময় ভাইয়ের মতো বন্ধু ছিলো। চৌকস এই দুই ট্রান্সফরমার মিলেই সাইবারট্রনের ভাগ্য চিরতরে বদলে দিয়েছিলো।

‘ট্রান্সফরমার্স ওয়ান’ কম্পিউটার গ্রাফিক্স অ্যানিমেটেড সিনেমা। এবারই প্রথম ‘ট্রান্সফরমার্স’ সিরিজের কোনো সিনেমার পুরোটাই এভাবে তৈরি হলো। এটি পরিচালনা করেছেন জশ কুলি। নির্বাহী প্রযোজকদের মধ্যে আছেন স্টিভেন স্পিলবার্গ। চলতি বছরের ২০ সেপ্টেম্বর সিনেমাহলে মুক্তি পাবে ‘ট্রান্সফরমার্স ওয়ান’।

পড়া চালিয়ে যান

হলিউড

ঢাকায় বড় পর্দায় আবার গডজিলা বনাম কং

সিনেমাওয়ালা রিপোর্টার

Published

on

‘গডজিলা এক্স কং: দ্য নিউ এম্পায়ার’ সিনেমার পোস্টার (ছবি:ওয়ার্নার ব্রাদার্স পিকচার্স)

মনস্টার জগতের দুই মহারথী গডজিলা ও কংয়ের দ্বৈরথ সিনেমাপ্রেমীদের কাছে বরাবরই বেশ উপভোগ্য। বিশাল আকারের এই দুটি চরিত্র আবার একসঙ্গে আসছে বড় পর্দায়। ‘গডজিলা এক্স কং: দ্য নিউ এম্পায়ার’ নামের সিনেমায় দেখা যাবে তাদের তাণ্ডব। ওয়ার্নার ব্রাদার্স পিকচার্সের পরিবেশনায় আগামীকাল (২৯ মার্চ) আন্তর্জাতিকভাবে মুক্তি পেতে যাচ্ছে এটি। একই দিনে বাংলাদেশের স্টার সিনেপ্লেক্সে মুক্তি পাবে এই সিনেমা।

সর্বশেষ ২০২১ সালে মুক্তিপ্রাপ্ত ‘গডজিলা ভার্সেস কং’ সিনেমায় কিং কং ও গডজিলার দ্বৈরথ দেখা গেছে। করোনা মহামারিতে এটি দর্শকদের দারুণ সাড়া পায়। এবার আসছে এর বহুল প্রতীক্ষিত সিক্যুয়েল। লিজেন্ডারি পিকচার্সের প্রযোজনায় আগের পর্বের সাফল্যের সুবাদে এবারের কিস্তিও পরিচালনা করেছেন অ্যাডাম উইনগার্ড। আগের সিনেমার অভিনয়শিল্পীদের মধ্যে ফিরছেন রেবেকা হল, ব্রায়ান টাইরি হেনরি ও কেইলি হটেল। নতুন যুক্ত হয়েছেন ড্যান স্টিভেনস, অ্যালেক্স ফার্নস, ফালা চেন, র‌্যাচেল হাউস।

‘গডজিলা এক্স কং: দ্য নিউ এম্পায়ার’ সিনেমার দৃশ্য (ছবি:ওয়ার্নার ব্রাদার্স পিকচার্স)

‘গডজিলা এক্স কং: দ্য নিউ এম্পায়ার’ হলো ‘মনস্টারভার্স’ ফ্রাঞ্চাইজের পঞ্চম কিস্তি, গডজিলা ফ্রাঞ্চাইজের ৩৮তম পর্ব এবং কিং কং ফ্রাঞ্চাইজের ১৩তম সিনেমা। ১ ঘণ্টা ৫৫ মিনিটের সিনেমাটি তৈরিতে খরচ হয়েছে ১৫ কোটি ডলার।

‘গডজিলা এক্স কং: দ্য নিউ এম্পায়ার’ সিনেমার দৃশ্য (ছবি:ওয়ার্নার ব্রাদার্স পিকচার্স)

গডজিলা আর কং প্রাগৈতিহাসিক দুই দানব। কং নির্জন রহস্যময় দ্বীপ স্কাল আইল্যান্ডের বাসিন্দা আর গডজিলা প্রশান্ত মহাসাগরের জলরাশির গভীর তলদেশ থেকে উঠে আসে। নতুন সিনেমায় বিশ্বে লুকিয়ে থাকা এক বিশাল অনাবিষ্কৃত হুমকি নিয়ে তাদের মধ্যে লড়াই হবে। গডজিলা আণবিক নিশ্বাস ছাড়লেও শেষ পর্যন্ত কাবু হয় কংয়ের বাহুবলের কাছে, নাকি ‘অবমানব’ কংয়ের মানবিক সত্তার কাছে? সেই উত্তর মিলবে গল্পে। টাইটানদের ইতিহাস, তাদের উৎস, স্কাল আইল্যান্ড এবং তার বাইরের রহস্যগুলো তুলে ধরা হয়েছে এই সিনেমায়। সেই সঙ্গে রয়েছে পৌরাণিক যুদ্ধ।

পড়া চালিয়ে যান

সিনেমাওয়ালা প্রচ্ছদ