Connect with us

হলিউড

মোটরসাইকেল চালিয়ে পাহাড় থেকে লাফ, টম ক্রুজের অবিশ্বাস্য শুটিং!

সিনেমাওয়ালা ডেস্ক

Published

on

টম ক্রুজ

টম ক্রুজ (ছবি: টুইটার)

হলিউড সুপারস্টার টম ক্রুজ নিজেকে বরাবরই সাহসী প্রমাণ করেছেন। এবার ‘মিশন: ইমপসিবল–ডেড রেকোনিং: পার্ট ওয়ান’ সিনেমার জন্য দুঃসাহসী ও বিপজ্জনক কিছু স্টান্ট করেছেন তিনি। সেগুলোর একটি ভিডিও সোশ্যাল মিডিয়ায় শেয়ার করেছেন ৬০ বছর বয়সী এই তারকা। তার কথায়, ‘আমরা যে ধরনের কাজ করছি সেগুলোর কিছু অংশ আপনাদের সঙ্গে ভাগ করে নিতে পেরে খুব রোমাঞ্চিত লাগছে।’

টম ক্রুজের শেয়ার করা ভিডিওটি ৯ মিনিট ২২ সেকেন্ডের। এর শুরুতে জানানো হয়, ২০২০ সালে নরওয়ের পাহাড়ি গ্রাম হেলেসিল্টে বিপজ্জনক একটি স্টান্ট দৃশ্যের শুটিং করেছেন আমেরিকান এই অভিনেতা। উঁচু পাহাড় থেকে মোটরসাইকেল চালিয়ে নিচে পড়ে প্যারাস্যুটের সহায়তায় মাটিতে নামেন তিনি। এজন্য কোনো বডি ডাবল ব্যবহার করেননি। তাও একবার নয়, ছয়-ছয়বার মোটরসাইকেল চালিয়ে পাহাড় থেকে লাফিয়ে পড়ার দৃশ্যে অভিনয় করেন তিনি। হলিউডের ইতিহাসে এমন স্টান্ট এর আগে কেউ করার দুঃসাহস দেখাননি।

 

View this post on Instagram

 

A post shared by Tom Cruise (@tomcruise)

এমন লোমহর্ষক দৃশ্যের চূড়ান্ত শুটিংয়ের আগে বিভিন্নভাবে মহড়া করেছেন টম ক্রুজ। হেলিকপ্টার থেকে একবার লাফিয়ে পড়ে প্যারাস্যুট খুলে নিচে নেমেছেন তিনি। তার জন্য ছিলো বেজ জাম্পিং কোচ। সেই দৃশ্য ধারণের জন্য হেলিকপ্টারে রাখা হয়েছে ক্যামেরা। সবশেষে সফল হওয়ার পর পরিচালকসহ সংশ্লিষ্টদের সঙ্গে কোলাকুলি করেন ‘মিশন: ইমপসিবল’ তারকা।

ভিডিওটির শুরুতে হেলিকপ্টার থেকে লাফিয়ে পড়ার পর প্যারাস্যুট খুলে টম ক্রুজের মাটিতে নেমে আসার দৃশ্য রয়েছে। এরপর মোটরক্রস জাম্পের একটি দৃশ্যের শুটিং কীভাবে হয়েছে সেই বিষয়ে বিস্তারিত জানিয়েছেন পরিচালক ক্রিস্টোফার ম্যাককোয়ারি। এসব স্টান্ট দৃশ্যধারণে ড্রোন ব্যবহার করেছেন তিনি।

ভক্তদের বড়দিন ও ইংরেজি নববর্ষের শুভেচ্ছা জানাতে সোশ্যাল মিডিয়ায় আরেকটি ভিডিও শেয়ার করেছেন টম ক্রুজ। এতে হেলিকপ্টার থেকে লাফিয়ে পড়ার আগে টম ক্রুজ ‘টপ গান: ম্যাভেরিক’ দেখতে সিনেমা হলে ভিড় করায় দর্শকদের ধন্যবাদ জানিয়েছেন। এটাই তার ক্যারিয়ারের সবচেয়ে ব্যবসাসফল সিনেমা। অ্যামাজন প্রাইম ভিডিওতে আগামী ২৬ ডিসেম্বর মুক্তি পাবে জোসেফ কসিনস্কি পরিচালিত ‘টপ গান: ম্যাভেরিক’। ১৯৮৬ সালে মুক্তিপ্রাপ্ত ‘টপ গান’-এর সিক্যুয়েল এটি। করোনা পরবর্তী সময়ে ১০০ কোটি মার্কিন ডলার ছাড়ানো ব্যবসা করা সিনেমা এটাই প্রথম।

হেলিকপ্টারে পাশেই বসেছিলেন পরিচালক ক্রিস্টোফার ম্যাককোয়ারি। তিনি টম ক্রুজকে মনে করিয়ে দেন, একটি দৃশ্যের শুটিং করতে হবে তখনই! টম জানতে চান, তিনি সহযাত্রী হবেন কিনা। ম্যাককোয়ারির উত্তর ছিলো, ‘কিছুতেই না।’ এমন কথা বলাটাই স্বাভাবিক, টম ক্রুজের মতো দুঃসাহস দেখানো তো আর চাট্টিখানি কথা নয়!

এরপর হেলিকপ্টার থেকে লাফিয়ে পড়ার আগে দর্শকদের ধন্যবাদ জানিয়ে টম ক্রুজ বলেন, ‘আপনাদের চিত্তবিনোদনের সুযোগ দেওয়ার জন্য ধন্যবাদ। এটি একজীবনের সত্যিকারের সম্মান। ছুটির দিন সবার সুখে ও নিরাপদে কাটুক।’

‘মিশন: ইমপসিবল–ডেড রেকোনিং: পার্ট ওয়ান’ এবং ‘মিশন: ইমপসিবল–ডেড রেকোনিং: পার্ট টু’র শুটিং একসঙ্গে করেছেন টম ক্রুজ। ‘মিশন: ইমপসিবল’ সিরিজের সপ্তম ও অষ্টম কিস্তি এগুলো। ইমপসিবল মিশনস ফোর্সের (আইএমএফ) বিশেষ গোয়েন্দা ইথান হান্ট চরিত্রে আবার দেখা যাবে তাকে। এছাড়া ফিরছেন ভিং রেমস, সায়মন পেগ, রেবেকা ফার্গুসন, ভ্যানেসা কার্বি, হেনরি চেরনি ও ফ্রেডেরিক শ্মিট। নতুন যুক্ত হয়েছেন হেইলে অ্যাটওয়েল, পম ক্লেমেন্টিয়েফ, ক্যারি এলওয়েস, রব ডেলানি, ইন্দিরা ভার্মা, শেই হুইগ্যাম, মার্ক গ্যাটিস, ইসাই মোরালেস ও চার্লস পারনেল।

প্যারামাউন্ট পিকচার্স ও স্কাইড্যান্সের পরিবেশনায় ২০২৩ সালের ১৪ জুলাই মুক্তি পাবে ‘মিশন: ইমপসিবল–ডেড রেকোনিং: পার্ট ওয়ান’। এর দ্বিতীয় পর্ব সিনেমা হলে আসবে ২০২৪ সালের ২৮ জুন।

হলিউড

আন্তর্জাতিক মুক্তির আগেই বাংলাদেশের পর্দায় ‘দ্য ফল গাই’

সিনেমাওয়ালা ডেস্ক

Published

on

‘দ্য ফল গাই’ সিনেমার পোস্টারে রায়ান গসলিং ও এমিলি ব্লান্ট (ছবি: ইউনিভার্সেল পিকচার্স)

আশির দশকে অ্যাকশন-অ্যাডভেঞ্চারভিত্তিক আমেরিকান টিভি সিরিজ ‘দ্য ফল গাই’ তুমুল জনপ্রিয়তা পায়। সেই ‘দ্য ফল গাই’ এবার এলো বড় পর্দায়। সিরিজের নামেই রাখা হয়েছে সিনেমার নাম। ইউনিভার্সেল পিকচার্সের পরিবেশনায় এটি যুক্তরাষ্ট্র, কানাডাসহ আন্তর্জাতিকভাবে মুক্তি পাবে ৩ মে। তবে চমকপ্রদ খবর হলো, বাংলাদেশের বড় পর্দায় ইতোমধ্যে চলে এসেছে ‘দ্য ফল গাই’। আজ (১ মে) এটি মুক্তি দিয়েছে স্টার সিনেপ্লেক্স। ফলে বিশ্বের অনেক দেশের আগেই বাংলাদেশের দর্শকরা এই সিনেমা দেখার সুযোগ পাচ্ছেন।

অ্যাকশন-কমেডি ধাঁচের সিনেমা ‘দ্য ফল গাই’ পরিচালনা করেছেন আমেরিকার ডেভিড লিচ। ‘জন উইক’, ‘অ্যাটমিক ব্লন্ড’ ও ‘বুলেট ট্রেন’-এর মতো অ্যাকশনধর্মী সিনেমা পরিচালনার আগে তিনি নিজেই একজন স্টান্টম্যান ছিলেন। ব্র্যাড পিট ও ম্যাট ডেমনের স্টান্ট-ডাবল হিসেবে কাজ করেছেন ৪৮ বছর বয়সী এই নির্মাতা। আমেরিকান সংবাদমাধ্যম এন্টারটেইনমেন্ট উইকলিকে তিনি বলেন, ‘সিনেমাটি পুরো স্টান্ট সম্প্রদায়ের প্রতি ভালোবাসার বহিঃপ্রকাশ। স্টান্টম্যান ও পর্দার আড়ালের ক্রুরা মিলেই একটি সিনেমাকে পূর্ণতা এনে দেন। সিনেমায় তাদের অবদান ও না-বলা গল্প সবার সামনে তুলে ধরতেই সিনেমাটি তৈরি করা।’

‘দ্য ফল গাই’ সিনেমার পোস্টারে রায়ান গসলিং (ছবি: ইউনিভার্সেল পিকচার্স)

গল্পে দেখা যাবে, হলিউড স্টান্ট পারফরমার কোল্ট সিভার্স সাবেক প্রেমিকার প্রথম পরিচালিত সিনেমায় কাজ করে। তার উদ্দেশ্য শুধুই সিনেমাটির প্রধান অভিনেতাকে ঘিরে ষড়যন্ত্রের কুলকিনারা করা। কোল্ট সিভার্স চরিত্রে অভিনয় করেছেন ‘বার্বি’ তারকা রায়ান গসলিং। তিনি ও পরিচালক ডেভিড লিচ সিনেমাটির দুই প্রযোজক।

‘দ্য ফল গাই’তে নির্মাতা চরিত্রে অভিনয় করেছেন ‘ওপেনহাইমার’ খ্যাত ব্রিটিশ তারকা এমিলি ব্লান্ট। এছাড়াও আছেন অ্যারন টেলর-জনসন, হানা ওয়াডিংহাম, স্টেফানি সু, উইনস্টন ডিউক, টেরেসা পালমার।

‘দ্য ফল গাই’ সিনেমার পোস্টারে রায়ান গসলিং ও এমিলি ব্লান্ট (ছবি: ইউনিভার্সেল পিকচার্স)

সিনেমাহলে মুক্তির আগে গিনেস বুকে জায়গা করে নিয়েছে ২ ঘণ্টা ৬ মিনিট দৈর্ঘ্যের ‘দ্য ফল গাই’। সর্বাধিক ক্যানন রোলের (শূন্যে গাড়িকে চক্কর দেওয়ানো) অন্যরকম রেকর্ড গড়েছে এটি। অস্ট্রেলিয়ার সিডনিতে শুটিংয়ের সময় স্টান্ট ড্রাইভার লোগান হোলাডে একটি গাড়িতে সর্বাধিক সাড়ে আট বার ক্যানন রোল করে ভেঙেছেন ২০০৬ সালে মুক্তিপ্রাপ্ত জেমস বন্ড ফ্র্যাঞ্চাইজের ‘ক্যাসিনো রয়েল’-এর স্টান্টম্যান অ্যাডাম কার্লির সাতটি ক্যানন রোলের রেকর্ড।

পড়া চালিয়ে যান

হলিউড

‘ট্রান্সফরমার্স ওয়ান’: মহাকাশে ট্রেলার প্রকাশ!

সিনেমাওয়ালা ডেস্ক

Published

on

‘ট্রান্সফরমার্স ওয়ান’ সিনেমার পোস্টার (ছবি: প্যারামাউন্ট পিকচার্স)

হলিউডের জনপ্রিয় ফ্র্যাঞ্চাইজ ‘ট্রান্সফরমার্স’ পৃথিবীর সীমানা পেরিয়ে পৌঁছে গেলো মহাকাশে! ভূ-পৃষ্ঠ থেকে ১ লাখ ২৫ হাজার ফুট ওপরে এর নতুন কিস্তি ‘ট্রান্সফরমার্স ওয়ান’-এর ট্রেলার প্রকাশিত হয়েছে। ইতিহাসে এর আগে এমনটি ঘটেনি!

গতকাল (১৮ এপ্রিল) ইউটিউবে প্যারামাউন্ট পিকচার্সের চ্যানেলে, ট্রান্সফরমার্স মুভির সব সোশ্যাল মিডিয়া অ্যাকাউন্টে এবং ইনস্টাগ্রামে অস্ট্রেলিয়ান অভিনেতা ক্রিস হেমসওয়ার্থের অ্যাকাউন্টে সরাসরি দেখানো হয় মনিটর নিয়ে একটি নভোযানের মহাকাশযাত্রা। ১ লাখ ২৫ হাজার ফুট ওপরে পৌঁছাতে লেগেছে প্রায় ১ ঘণ্টা। ‘ট্রান্সফরমার্স ওয়ান’ সিনেমার ট্রেলারের প্রিমিয়ার শুরুর ৭ সেকেন্ড আগে পর্দায় হাজির হন অস্ট্রেলিয়ান অভিনেতা ক্রিস হেমসওয়ার্থ ও আমেরিকান অভিনেতা ব্রায়ান টাইরি হেনরি। আগে থেকে ধারণকৃত ভিডিওতে তারা বলেন, “ট্রান্সফরমার্স বন্ধুরা, একটুও নড়বেন না। ‘ট্রান্সফরমার্স ওয়ান’ ট্রেলার শুরু হচ্ছে এখন!”

ইউটিউবে মহাকাশযাত্রা ও ট্রেলারের প্রিমিয়ার দেখা হয়েছে প্রায় সাড়ে ৬ লাখ বার। এর হাইলাইটসের ভিউ সংখ্যা ৬০ হাজার। ট্রেলারটির ভিউ ১৮ ঘণ্টায় ছাড়িয়েছে ৭০ লাখের ঘর।

সিনেমাটিতে অরিয়ন প্যাক্স ওরফে অপটিমাস প্রাইম চরিত্রে ক্রিস হেমসওয়ার্থ ও ডি-সিক্সটিন ওরফে মেগাট্রনের ভূমিকায় কণ্ঠ দিয়ে অভিনয় করেছেন ব্রায়ান টাইরি হেনরি। এছাড়া ভয়েস আর্টিস্ট হিসেবে কাজ করেছেন স্কারলেট জোহানসন, কিগ্যান-মাইকেল কি, স্টিভ বুশেমি, লরেন্স ফিশবার্ন ও জন হ্যাম।

‘ট্রান্সফরমার্স ওয়ান’-এ দেখা যাবে, জনপ্রিয় দুই ট্রান্সফরমার অপটিমাস প্রাইম ও মেগাট্রনের শেকড়ের গল্প। তারা শত্রু হিসেবে পরিচিত হলেও একসময় ভাইয়ের মতো বন্ধু ছিলো। চৌকস এই দুই ট্রান্সফরমার মিলেই সাইবারট্রনের ভাগ্য চিরতরে বদলে দিয়েছিলো।

‘ট্রান্সফরমার্স ওয়ান’ কম্পিউটার গ্রাফিক্স অ্যানিমেটেড সিনেমা। এবারই প্রথম ‘ট্রান্সফরমার্স’ সিরিজের কোনো সিনেমার পুরোটাই এভাবে তৈরি হলো। এটি পরিচালনা করেছেন জশ কুলি। নির্বাহী প্রযোজকদের মধ্যে আছেন স্টিভেন স্পিলবার্গ। চলতি বছরের ২০ সেপ্টেম্বর সিনেমাহলে মুক্তি পাবে ‘ট্রান্সফরমার্স ওয়ান’।

পড়া চালিয়ে যান

হলিউড

ঢাকায় বড় পর্দায় আবার গডজিলা বনাম কং

সিনেমাওয়ালা রিপোর্টার

Published

on

‘গডজিলা এক্স কং: দ্য নিউ এম্পায়ার’ সিনেমার পোস্টার (ছবি:ওয়ার্নার ব্রাদার্স পিকচার্স)

মনস্টার জগতের দুই মহারথী গডজিলা ও কংয়ের দ্বৈরথ সিনেমাপ্রেমীদের কাছে বরাবরই বেশ উপভোগ্য। বিশাল আকারের এই দুটি চরিত্র আবার একসঙ্গে আসছে বড় পর্দায়। ‘গডজিলা এক্স কং: দ্য নিউ এম্পায়ার’ নামের সিনেমায় দেখা যাবে তাদের তাণ্ডব। ওয়ার্নার ব্রাদার্স পিকচার্সের পরিবেশনায় আগামীকাল (২৯ মার্চ) আন্তর্জাতিকভাবে মুক্তি পেতে যাচ্ছে এটি। একই দিনে বাংলাদেশের স্টার সিনেপ্লেক্সে মুক্তি পাবে এই সিনেমা।

সর্বশেষ ২০২১ সালে মুক্তিপ্রাপ্ত ‘গডজিলা ভার্সেস কং’ সিনেমায় কিং কং ও গডজিলার দ্বৈরথ দেখা গেছে। করোনা মহামারিতে এটি দর্শকদের দারুণ সাড়া পায়। এবার আসছে এর বহুল প্রতীক্ষিত সিক্যুয়েল। লিজেন্ডারি পিকচার্সের প্রযোজনায় আগের পর্বের সাফল্যের সুবাদে এবারের কিস্তিও পরিচালনা করেছেন অ্যাডাম উইনগার্ড। আগের সিনেমার অভিনয়শিল্পীদের মধ্যে ফিরছেন রেবেকা হল, ব্রায়ান টাইরি হেনরি ও কেইলি হটেল। নতুন যুক্ত হয়েছেন ড্যান স্টিভেনস, অ্যালেক্স ফার্নস, ফালা চেন, র‌্যাচেল হাউস।

‘গডজিলা এক্স কং: দ্য নিউ এম্পায়ার’ সিনেমার দৃশ্য (ছবি:ওয়ার্নার ব্রাদার্স পিকচার্স)

‘গডজিলা এক্স কং: দ্য নিউ এম্পায়ার’ হলো ‘মনস্টারভার্স’ ফ্রাঞ্চাইজের পঞ্চম কিস্তি, গডজিলা ফ্রাঞ্চাইজের ৩৮তম পর্ব এবং কিং কং ফ্রাঞ্চাইজের ১৩তম সিনেমা। ১ ঘণ্টা ৫৫ মিনিটের সিনেমাটি তৈরিতে খরচ হয়েছে ১৫ কোটি ডলার।

‘গডজিলা এক্স কং: দ্য নিউ এম্পায়ার’ সিনেমার দৃশ্য (ছবি:ওয়ার্নার ব্রাদার্স পিকচার্স)

গডজিলা আর কং প্রাগৈতিহাসিক দুই দানব। কং নির্জন রহস্যময় দ্বীপ স্কাল আইল্যান্ডের বাসিন্দা আর গডজিলা প্রশান্ত মহাসাগরের জলরাশির গভীর তলদেশ থেকে উঠে আসে। নতুন সিনেমায় বিশ্বে লুকিয়ে থাকা এক বিশাল অনাবিষ্কৃত হুমকি নিয়ে তাদের মধ্যে লড়াই হবে। গডজিলা আণবিক নিশ্বাস ছাড়লেও শেষ পর্যন্ত কাবু হয় কংয়ের বাহুবলের কাছে, নাকি ‘অবমানব’ কংয়ের মানবিক সত্তার কাছে? সেই উত্তর মিলবে গল্পে। টাইটানদের ইতিহাস, তাদের উৎস, স্কাল আইল্যান্ড এবং তার বাইরের রহস্যগুলো তুলে ধরা হয়েছে এই সিনেমায়। সেই সঙ্গে রয়েছে পৌরাণিক যুদ্ধ।

পড়া চালিয়ে যান

সিনেমাওয়ালা প্রচ্ছদ