Connect with us

গান বাজনা

মায়ের কবরে চিরঘুমে গাজী মাজহারুল আনোয়ার

সিনেমাওয়ালা রিপোর্টার

Published

on

গাজী মাজহারুল আনোয়ার

চিরনিদ্রায় শায়িত হলেন বাংলা গানের চিরস্মরণীয় গীতিকবি গাজী মাজহারুল আনোয়ার। সোমবার (৫ সেপ্টেম্বর) সন্ধ্যা ৬টায় ঢাকার বনানী কবরস্থানে মা খোদেজা বেগমের কবরে সমাহিত করা হয় তাঁকে।

সোমবার (৫ সেপ্টেম্বর) সকাল ১১টায় ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় সংলগ্ন কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে গাজী মাজহারুল আনোয়ারকে রাষ্ট্রীয় শ্রদ্ধা হিসেবে ‘গার্ড অব অনার’ দেওয়া হয়। এরপর শ্রদ্ধা নিবেদন করেন সাংস্কৃতিক অঙ্গনের শিল্পী, বিভিন্ন শ্রেণিপেশার মানুষ ও স্বজনরা। এক মিনিট নীরবতা পালনের মাধ্যমে শেষ হয় শহীদ মিনারের বিদায়ী আনুষ্ঠানিকতা।

গাজী মাজহারুল আনোয়ার

কেন্দ্রীয় শহীদ মিনার প্রাঙ্গণে গাজী মাজহারুল আনোয়ারকে রাষ্ট্রীয় শ্রদ্ধা হিসেবে ‘গার্ড অব অনার’ দেওয়া হয় (ছবি: ফেসবুক)

কেন্দ্রীয় শহীদ মিনার থেকে গাজী মাজহারুল আনোয়ারের মরদেহ নেওয়া হয় বাংলাদেশ চলচ্চিত্র উন্নয়ন কর্পোরেশনে (বিএফডিসি)। এখানে বাদ জোহর অনুষ্ঠিত হয় প্রথম জানাজা। তাঁর প্রতি ফুলেল শ্রদ্ধা জানিয়েছে চলচ্চিত্রের ১৮ সংগঠনসহ গীতিকবি সংঘ, বাংলাদেশ চলচ্চিত্র সাংবাদিক সমিতিসহ (বাচসাস) বিভিন্ন সামাজিক-সাংস্কৃতিক সংগঠন। বিএফডিসিতে শ্রদ্ধা জানান তথ্য ও সম্প্রচারমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ।

চ্যানেল আই প্রাঙ্গণে ছিল দ্বিতীয় জানাজা। চ্যানেল আই ভবনে শোকবইয়ে তাঁকে স্মরণ করেছেন অনেকে। সবশেষে গুলশানের আজাদ মসজিদে তৃতীয় জানাজা সম্পন্ন হয়েছে।

গাজী মাজহারুল আনোয়ার রবিবার (৪ সেপ্টেম্বর) ভোরে বাসার বাথরুমে অজ্ঞান হয়ে পড়ে যান। এরপর তাকে নেওয়া হয় ঢাকার একটি হাসপাতালে। সকাল সাড়ে ৭টার দিকে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন। কিছুদিন ধরে বার্ধক্যজনিত জটিলতায় ভুগছিলেন তিনি। তাঁর বয়স হয়েছিল ৭৯ বছর। তিনি স্ত্রী জহুরা আনোয়ার, দুই সন্তান সরফরাজ আনোয়ার উপল ও দিঠি আনোয়ারসহ অসংখ্য গুণগ্রাহী রেখে গেছেন। ঢাকার বারিধারা পার্ক রোডে থাকতেন বাংলা গানের আকাশে উজ্জ্বলতম এই গীতিকবি।

গাজী মাজহারুল আনোয়ার ১৯৪৩ সালের ২২ ফেব্রুয়ারি কুমিল্লা জেলার দাউদকান্দি থানার তালেশ্বর গ্রামে জন্মগ্রহণ করেন। কুমিল্লার ভিক্টোরিয়া কলেজ থেকে উচ্চ মাধ্যমিক পাস করে চিকিৎসা শাস্ত্রে অধ্যয়নের জন্য ঢাকা মেডিক্যাল কলেজে ভর্তি হন। তবে তার অন্তরে ছিল গীতিকবিতার অমৃত রস।

গাজী মাজহারুল আনোয়ার ১৯৬৪ সালে রেডিও পাকিস্তানের মাধ্যমে গান লেখা শুরু করেন। দীর্ঘ ৬০ বছরের বর্ণাঢ্য ক্যারিয়ারে বেতার, টেলিভিশন ও চলচ্চিত্রের জন্য ২০ হাজারের বেশি কাব্যগুণসমৃদ্ধ গানের বিশাল ভাণ্ডার রচনা করেছেন। বাংলাদেশে আধুনিক বাংলা গানকে সুবোধ্য কবিতার মর্যাদায় উন্নীত করতে তাঁর ভূমিকা অপরিসীম। তাঁর রচিত অনেক গান এখনো মানুষের মুখে মুখে ফেরে।

১৯৬৭ সালে সুভাষ দত্ত পরিচালিত ‘আয়না ও অবশিষ্ট’র মাধ্যমে প্রথমবার চলচ্চিত্রের জন্য গান লেখেন গাজী মাজহারুল আনোয়ার। সেটি ছিল সত্য সাহার সুরে আঞ্জুমান আরা বেগমের গাওয়া ‘আকাশের হাতে আছে একরাশ নীল’। এমন অনেক গান রচনার জন্য প্রজন্ম থেকে প্রজন্মে অমর হয়ে থাকবেন তিনি।

২০০৬ সালে বিবিসি বাংলার জরিপে সর্বকালের সেরা কুড়িটি বাংলা গানের তালিকায় স্থান পায় গাজী মাজহারুল আনোয়ারের লেখা তিনটি দেশাত্মবোধক সৃষ্টি। এগুলো হলো– ‘জয় বাংলা, বাংলার জয়’, ‘একবার যেতে দে না আমার ছোট্ট সোনার গাঁয়’ এবং ‘একতারা তুই দেশের কথা বলরে এবার বল’। তিনটি গানই সুর করেন আনোয়ার পারভেজ। এরমধ্যে ‘জয় বাংলা, বাংলার জয়’ গানটি ১৯৭১ সালের মুক্তিযুদ্ধে স্বাধীন বাংলা বেতার কেন্দ্রের শুরু থেকে প্রতিদিন বাজানো হতো।

গাজী মাজহারুল আনোয়ার মূলত চলচ্চিত্রের সবচেয়ে বেশিসংখ্যক গানের রচয়িতা। বাংলাদেশের প্রায় সকল সুরস্রষ্টা তাঁর লেখা গানে সুরারোপ করেছেন। তাদের মধ্যে উল্লেখযোগ্য– সত্য সাহা, আনোয়ার পারভেজ, সুবল দাস, সমর দাস, আলতাফ মাহমুদ, রবীন ঘোষ, আলাউদ্দিন আলী, খোন্দকার নুরুল আলম, আব্দুল আহাদ, শেখ সাদী খান, আহমেদ ইমতিয়াজ বুলবুল।

গাজী মাজহারুল আনোয়ারের গীতিকবিতায় কাব্যের সমারোহ, ছন্দের অপূর্ব কারুকাজ ও শব্দের প্রাচুর্য ছিলো নান্দনিক। যেমন ‘গানেরই খাতায় স্বরলিপি লিখে’, ‘সে যে কেন এলো না’, ‘বন্ধু তিন দিন তোর বাড়িত গেলাম’, ‘শুধু গান গেয়ে পরিচয়’, ‘এই মন তোমাকে দিলাম’, ‘আমি সাত সাগর পাড়ি দিয়ে’, ‘পান খাইয়া ঠোঁট লাল করিলাম’, ‘ইশারায় শিস দিয়ে’ প্রভৃতি।

চলচ্চিত্র প্রযোজনা ও পরিচালনা এবং কাহিনি, চিত্রনাট্য ও সংলাপ রচনায় উজ্জ্বল ছিলেন গাজী মাজহারুল আনোয়ার। বাংলাদেশ টেলিভিশনের জন্মলগ্ন থেকে নিয়মিত গান ও নাটক রচনা করেছেন তিনি। ১৯৮২ সালে মুক্তি পায় তাঁর পরিচালিত প্রথম চলচ্চিত্র ‘নান্টু ঘটক’। তিনি মোট ২১টি চলচ্চিত্র পরিচালনা করেছেন। নিজের প্রতিষ্ঠান দেশ চিত্রকথা থেকে প্রযোজনা করেছেন ‘শর্ত’, ‘চোর’, ‘স্বাক্ষর’, ‘স্নেহ’, ‘উল্কা’সহ ৩১টি ছবি।

মুক্তিযুদ্ধে বিশেষ অবদানের জন্য স্বাধীন দেশের সর্বপ্রথম পুরস্কার ‘বাংলাদেশ প্রেসিডেন্ট গোল্ড মেডেল অ্যাওয়ার্ড’ পান গাজী মাজহারুল আনোয়ার। ২০০২ সালে তিনি একুশে পদকে ভূষিত হন। ২০২১ সালে স্বাধীনতা পুরস্কার লাভ করেন। এছাড়া পাঁচবার জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার, একাধিকবার বাচসাস পুরস্কারসহ জীবনে শতাধিক পুরস্কার ও সম্মাননা পেয়েছেন। গীতিকবি সংঘের আজীবন সদস্য ছিলেন এই গুণীজন।

পড়া চালিয়ে যান
মন্তব্য করতে ক্লিক করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

গান বাজনা

শাড়ির প্রতি ভালোবাসায় ‘কোক স্টুডিও বাংলা’র নতুন গানে জয়া

সিনেমাওয়ালা রিপোর্টার

Published

on

‘তাঁতী’ গানের ভিডিওতে জয়া আহসান (ছবি: কোক স্টুডিও বাংলা)

‘কোক স্টুডিও বাংলা’র তৃতীয় মৌসুমের প্রথম গানে কণ্ঠ মেলালেন দুই বাংলার জনপ্রিয় অভিনেত্রী জয়া আহসান। এর শিরোনাম ‘তাঁতী’। মাইক্রোফোন হাতে পর্দায় হাজির হয়েছেন তিনি। তাঁত বোনার আবহ ছড়ানো সুসজ্জিত সেটে গানটির সহশিল্পী হিসেবে দেখা গেছে তাকে।

গতকাল (১৩ এপ্রিল) রাতে ইউটিউবে ‘কোক স্টুডিও বাংলা’র চ্যানেলে ‘তাঁতী’র ভিডিও প্রকাশিত হয়েছে। পাশাপাশি স্পটিফাই চ্যানেলে এটি শোনা যাচ্ছে।

ঈদের দিন (১১ এপ্রিল) প্রকাশিত প্রচারণামূলক ভিডিওতে জয়া আহসানকে একঝলক দেখা যায়। এতে তিনি ‘গান গাই আমার মন রে বোঝাই’ গানের সঙ্গে ঠোঁট মিলিয়েছেন। এতে আভাস মিলেছে, একটি গানে তার উপস্থিতি ঘটবে। সেটাই সত্যি হয়েছে!

‘তাঁতী’ গানের ভিডিওতে জয়া আহসান (ছবি: কোক স্টুডিও বাংলা)

জয়া আহসান মনে করেন, বাংলাদেশের তাঁতিদের এবং তাঁত শিল্পের ঐতিহ্যের এক গুরুত্বপূর্ণ নিদর্শন হয়ে থাকবে এই গান। তার আশা, নববর্ষের আগমনে নতুন গানটি দেশের শাড়ি এবং তাঁত শিল্পকে আরো বর্ণময় করে বিশ্বের আঙিনায় পৌঁছে দেবে।

গতকাল রাত ১০টার দিকে সোশ্যাল মিডিয়া ফেসবুকে নিজের পেজে জয়া আহসান আরো লিখেছেন, “শাড়ি আমার প্রাণের অহংকার, শাড়ি আপামর বাংলাদেশের ঐতিহ্য, প্রতি সুতোর বুননে বাংলাদেশের শিল্পীদের মুন্সিয়ানা প্রতিফলিত। এবার সেই শাড়ির ঐতিহ্য নিয়েই আমরা কয়েকজন গলা মেলালাম কোক স্টুডিও বাংলার নতুন গান ‘তাঁতি’তে। আমি নিজে শাড়ি খুব ভালোবাসি, বাংলাদেশের জামদানি, মসলিনসহ সমস্ত দেশীয় শাড়ি আমার ব্যক্তিত্বের অংশ হয়ে গেছে অচিরেই। আমি বিশ্ব আঙিনায় বহুবার বাংলাদেশের জামদানি শাড়ি পরিবেশন করেছি। শাড়ির প্রতি সেই ভালোবাসা এবং অর্ণবের আন্তরিক অনুরোধ থেকেই এই গানের সঙ্গে আমার যুক্ত হওয়া। দুর্দান্ত একটি টিমের সঙ্গে কাজ করার অভিজ্ঞতা হলো আমার সব মিলিয়ে। যারা গান পছন্দ করেন, শাড়ি এবং তার সঙ্গে জড়িয়ে থাকা ঐতিহ্যকে সম্মান করেন, আমি নিশ্চিত এই গান তাদের ভালো লাগবে। নববর্ষে এই গান সকলে শুনুন।”

আজ (১৪ এপ্রিল) দুপুরে ফেসবুকে নিজের অ্যাকাউন্টে গানটি শেয়ার করে জয়া লিখেছেন, ‘বাঙালি নারীর সৌন্দর্যের প্রকৃত জাদু হলো শাড়ি। আর তা যদি হয় জামদানি শাড়ি, তাহলে তো কথাই নেই! আনমনে সুরে সুতার প্যাঁচ আর চরকার তালে তালে বাহারি শাড়ি বোনা তাঁতিদের গল্পে কোক স্টুডিও বাংলার তৃতীয় মৌসুমের প্রথম গান শুনতে শুনতে মনে হচ্ছিল বর্ষবরণের আনন্দে তাঁতি পাড়া সরগরম হয়ে উঠেছে। আপনারাও শুনুন, ভালো লাগবে।’

মূল কণ্ঠশিল্পী হিসেবে এই গান গেয়েছেন শায়ান চৌধুরী অর্ণব, গঞ্জের আলী ও বাংলাদেশে বসবাসকারী নাইজেরিয়ান সংগীতশিল্পী লুইস অ্যান্থনি। তিনি ‘ওলি বয়’ নামে পরিচিত। গানটিতে রয়েছে তার অ্যাফ্রোবিটের ফিউশন। ভিডিওতে তিনজনের পরিবেশনা রয়েছে।

‘তাঁতী’র কথা লিখেছেন শতরূপা ঠাকুরতা রায়, গঞ্জের আলী ও লুইস অ্যান্থনি। সুর করেছেন গঞ্জের আলী ও অর্ণব। এটি প্রযোজনা করেছেন ‘কোক স্টুডিও বাংলা’র তৃতীয় মৌসুমের সংগীত কিউরেটর অর্ণব।

‘তাঁতী’ গানের ভিডিওতে জয়া আহসান (ছবি: কোক স্টুডিও বাংলা)

গানটি প্রসঙ্গে ‘কোক স্টুডিও বাংলা’র সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়েছে, ‘তাঁতি একজন শিল্পী, কাপড়ের বুননে যিনি ফুটিয়ে তোলেন আমাদের সংস্কৃতির সমৃদ্ধ ইতিহাস। কাপড় বোনার সময় একধরনের ছন্দ তৈরি হয়। তাঁতের শব্দের সাথে প্রতিটি সুতা যেন হয়ে ওঠে গানের এক একটি চরণ। আর প্রতিটি চরণ এই ঐতিহ্যকে বহন করে নিয়ে চলে প্রজন্ম থেকে প্রজন্মান্তরে। এই শব্দ, এই বিষয়টিই তুলে ধরা হয়েছে কোক স্টুডিও বাংলার নতুন গানটিতে।’

দেশীয় সংস্কৃতি উদযাপন করতে বাংলাদেশসহ বিশ্বের বিভিন্ন দেশের ১৮০ জনের বেশি শিল্পী ও সুরকারের পরিবেশনা থাকছে তৃতীয় মৌসুমে। এবার আসবে ঐতিহ্যবাহী ও আধুনিক সুরে সাজানো মোট ১১টি গান। এরমধ্যে প্রথমবারের মতো কোক স্টুডিও বাংলায় গাইবেন হাবিব ওয়াহিদ। মেঘদল ব্যান্ড এবারও একটি গান করছে। সংগীত প্রযোজক হিসেবে অর্ণবের সঙ্গে থাকছেন প্রীতম হাসান, ইমন চৌধুরী, শুভেন্দু দাশ শুভ ও অন্যরা।

‘কোক স্টুডিও বাংলা’র তৃতীয় মৌসুমের ভিডিও নির্মাণ করেছেন ডোপ প্রোডাকশনের কৃষ্ণেন্দু চট্টোপাধ্যায় ও রানআউট ফিল্মসের আদনান আল রাজীব।

পড়া চালিয়ে যান

গান বাজনা

২০ বছর পর আবার

সিনেমাওয়ালা রিপোর্টার

Published

on

আঁখি আলমগীর ও শওকত আলি ইমন (ছবি: ধ্রুব মিউজিক স্টেশন)

কণ্ঠশিল্পী আঁখি আলমগীরের গাওয়া ‘জল পড়ে পাতা নড়ে’, ‘বাবুজি’, ‘শ্যাম পিরিতি’, ‘রাজকুমারী’ গানগুলো সুরকার ও সংগীত পরিচালক শওকত আলী ইমন। সিনেমায় তারা দুটি দ্বৈত গান গেয়েছিলেন। এরমধ্যে সর্বশেষটি ছিলো দুই দশক আগে। ২০ বছর পর আবার একসঙ্গে গাইলেন জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার জয়ী এই দুই শিল্পী। অডিওতে এটাই তাদের প্রথম দ্বৈত গান।

শওকত আলী ইমন ও আঁখি আলমগীরের গাওয়া নতুন গানটির শিরোনাম ‘কফির পেয়ালা’। এর কথায় ফুটে উঠেছে প্রিয় মানুষকে কাছে পাওয়ার আকুলতা। এটি লিখেছেন গীতিকবি আশিক মাহমুদ, সুর করেছেন আকাশ মাহমুদ। সংগীতায়োজনে শওকত আলী ইমন।

আঁখি আলমগীর ও শওকত আলি ইমন (ছবি: ধ্রুব মিউজিক স্টেশন)

গানটির ভিডিও নির্মাণ করেছেন শিথিল রহমান। এতে মডেল হয়েছেন শওকত আলী ইমন ও আঁখি আলমগীর। তারা বলেন, ‘আমরা ভালো একটি গান উপহার দেওয়ার চেষ্টা করেছি। আমাদের বিশ্বাস, রোমান্টিক ধাঁচের গানটি শ্রোতাদের ভালো লাগবে।’

শওকত আলি ইমন ও আঁখি আলমগীর (ছবি: ধ্রুব মিউজিক স্টেশন)

গানটি প্রকাশ করছে ধ্রুব মিউজিক স্টেশন (ডিএমএস)। আগামী ৩১ মার্চ ইউটিউবে ধ্রুব মিউজিক স্টেশন চ্যানলে অবমুক্ত হবে ‘কফির পেয়ালা’র ভিডিও। সেই সঙ্গে গানটি শোনা যাবে দেশি ও আন্তর্জাতিক একাধিক অ্যাপে।

পড়া চালিয়ে যান

গান বাজনা

‘সরলতার প্রতিমা’র গায়ক খালিদ মারা গেছেন

সিনেমাওয়ালা রিপোর্টার

Published

on

খালিদ (ছবি: ফেসবুক)

সংগীতশিল্পী খালিদ মারা গেছেন। আজ (১৮ মার্চ) সন্ধ্যা ৭টা ১৫ মিনিটে ঢাকার গ্রিন রোডে একটি বেসরকারি হাসপাতালে হৃদরোগে আক্রান্ত হয়ে শেষ নিশ্বাস ত্যাগ করেন তিনি (ইন্নালিল্লাহি ওয়া ইন্না ইলাইহি রাজিউন)। তার বয়স হয়েছিলো ৫৮ বছর।

কয়েক বছর ধরেই হৃদরোগে ভুগছিলেন খালিদ। আজ সন্ধ্যায় হঠাৎ অসুস্থ হয়ে পড়লে তাকে তাৎক্ষণিক নিকটস্থ হাসপাতালে নেওয়া হয়। চিকিৎসকেরা জানান, হাসপাতালে আনার আগেই তার মৃত্যু হয়েছে। তিনি স্ত্রী ও এক ছেলে রেখে গেছেন।

অনেকের কৈশোর-তারুণ্যের প্রিয় গায়ক ছিলেন খালিদ। কালজয়ী কিছু গান রেখে চিরতরে হারিয়ে গেলেন তিনি। তার মায়াবী কণ্ঠ নিস্তব্ধ হয়ে গেলো।

খালিদের মৃত্যুর খবরে সংগীতাঙ্গনে শোকের ছায়া নেমে এসেছে। সোশ্যাল মিডিয়ায় অনেকে স্মৃতিচারণ করেছেন। তাদের মধ্যে উল্লেখযোগ্য– কণ্ঠশিল্পী আসিফ আকবর, ডলি সায়ন্তনী, অয়ন চাকলাদার, অভিনেত্রী শ্রাবন্তী, কুসুম সিকদার।

খালিদ (ছবি: ফেসবুক)

আজ রাত ১১টায় গ্রিন রোড জামে মসজিদে খালিদের জানাজা হবে। এরপর তার মরদেহ নিয়ে যাওয়া হবে গোপালগঞ্জে গ্রামের বাড়িতে। সেখানে পারিবারিক কবরস্থানে তাকে সমাহিত করা হবে।

১৯৬৫ সালের ১ আগস্ট গোপালগঞ্জে জন্মগ্রহণ করেন খালিদ। ১৯৮১ সালে সংগীতাঙ্গনে পথচলা শুরু হয় তার। ১৯৮৩ সালে চাইম ব্যান্ডে যোগ দেন তিনি।বেশ কিছু মিক্সড অ্যালবামে তার গাওয়া গান শ্রোতাদের মন ছুঁয়েছে। এরমধ্যে রয়েছে ‘সরলতার প্রতিমা’, ‘যতটা মেঘ হলে বৃষ্টি নামে’, ‘কোনো কারণে ফেরানো গেলো না তাকে’, ‘যদি হিমালয় হয়ে দুঃখ আসে’, ‘তুমি নেই তাই’ ইত্যাদি।

পড়া চালিয়ে যান

সিনেমাওয়ালা প্রচ্ছদ