Connect with us

ঢালিউড

সিনেমা হলে ‘বিউটি সার্কাস’ বনাম ‘অপারেশন সুন্দরবন’

সিনেমাওয়ালা রিপোর্টার

Published

on

‘বিউটি সার্কাস’ ও ‘অপারেশন সুন্দরবন’

‘বিউটি সার্কাস’ ও ‘অপারেশন সুন্দরবন’ সিনেমার পোস্টার (ছবি: ইমপ্রেস টেলিফিল্ম ও র‍্যাব কো-অপারেটিভ সোসাইটি)

টেরাম টেরাম যুদ্ধ হবে তারায় তারায়! আজ (২৩ সেপ্টেম্বর) একইসঙ্গে মুক্তি পেতে যাচ্ছে প্রতীক্ষিত দুই সিনেমা ‘বিউটি সার্কাস’ ও ‘অপারেশন সুন্দরবন’। দুটিতেই রয়েছে তারকার সমারোহ। ফলে আশা করা যাচ্ছে, জমজমাট হয়ে উঠবে সিনেমা হল।

আবহমান বাংলার সার্কাস শিল্প নিয়ে মাহমুদ দিদারের প্রথম সিনেমা ‘বিউটি সার্কাস’-এ আছেন দুই বাংলার জনপ্রিয় অভিনেত্রী জয়া আহসান। সার্কাসকন্যা বিউটির ভূমিকায় দেখা যাবে তাকে। তার বিপরীতে অভিনয় করেছেন দুই প্রজন্মের দুই তারকা ফেরদৌস আহমেদ ও এবিএম সুমন। মির্জা মোহাম্মদ বখতিয়ার চরিত্রে আছেন ফেরদৌস এবং রংলালের ভূমিকায় পর্দায় হাজির হবেন এবিএম সুমন।

বিউটি সার্কাস

‘বিউটি সার্কাস’ সিনেমায় জয়া আহসান ও ফেরদৌস (ছবি: ইমপ্রেস টেলিফিল্ম)

ফেরদৌস ও জয়া এর আগে অভিনয় করেন ‘গেরিলা’ ও ‘পুত্র’ সিনেমায়। কাকতালীয় হলো, ‘গেরিলা’র জন্য জয়া এবং ‘পুত্র’র জন্য ফেরদৌস জাতীয় পুরস্কার পেয়েছেন। ‘গেরিলা’ মুক্তির ১১ বছর পর তাদের রসায়ন দেখা যাবে আবার।

‘বিউটি সার্কাস’-এ গ্রামীণ মেলা কমিটির সভাপতি নবাবের ভূমিকায় থাকছেন তৌকীর আহমেদ। প্রয়াত হুমায়ূন সাধুর সবশেষ সিনেমা এটি। এছাড়া আছেন শতাব্দী ওয়াদুদ, গাজী রাকায়েত ও প্রয়াত এসএম মহসীন। এতে চিরকুট ব্যান্ডের শারমিন সুলতানা সুমির কণ্ঠে ‘বয়ে যাও নক্ষত্র’ এবং অ্যাশেজ ব্যান্ডের জুনায়েদ ইভানের কণ্ঠে ‘নিরুদ্দেশ’ গান দুটি আছে। সিনেমাটির কাহিনি, চিত্রনাট্য ও সংলাপ লিখেছেন মাহমুদ দিদার নিজেই।

বিউটি সার্কাস

‘বিউটি সার্কাস’ সিনেমায় হুমায়ূন সাধু ও জয়া আহসান (ছবি: ইমপ্রেস টেলিফিল্ম)

সিনেমা হল সংখ্যার দিক দিয়ে এগিয়ে আছে ‘অপারেশন সুন্দরবন’। এটি দেখা যাবে ৩৩টি সিনেমা হলে। এর বিপরীতে ১৯টি সিনেমা হলে মুক্তি পাচ্ছে ‘বিউটি সার্কাস’।

এবিএম সুমন

‘বিউটি সার্কাস’ সিনেমায় এবিএম সুমন (ছবি: ইমপ্রেস টেলিফিল্ম)

সরকারি অনুদান ও ইমপ্রেস টেলিফিল্মের প্রযোজনায় নির্মিত ‘বিউটি সার্কাস’-এর সিনেমা হলের তালিকায় রয়েছে ঢাকার স্টার সিনেপ্লেক্সের বসুন্ধরা সিটি (পান্থপথ), এসকেএস টাওয়ার (মহাখালী) ও বঙ্গবন্ধু সামরিক জাদুঘর (বিজয় সরণি), সনি স্কয়ার (মিরপুর-১), ব্লকবাস্টার সিনেমাস (যমুনা ফিউচার পার্ক), লায়ন সিনেমাস (কেরানীগঞ্জ), চট্টগ্রামের সিলভার স্ক্রিন, সিলেটের গ্র্যান্ড সিলেট সিনেপ্লেক্স এবং বিজিবি, খুলনার সংগীত সিনেমা, বগুড়ার মম-ইন, দিনাজপুরের মডার্ন সিনেমা, ময়মনসিংহের পূরবী, নওগাঁর তাজ সিনেমা, মুক্তারপুরের পান্না সিনেমা, কুলিয়ারচরের রাজ সিনেমা, মধুপুরের মাধবী সিনেমা, গুরুদাসপুরের আনন্দ সিনেমা এবং নাগরপুরের রাজিয়া সিনেমা।

সিয়াম আহমেদ ও নুসরাত ফারিয়া

সিয়াম আহমেদ ও নুসরাত ফারিয়া (ছবি: ফেসবুক)

দীপংকর দীপন পরিচালিত দ্বিতীয় সিনেমা ‘অপারেশন সুন্দরবন’-এ জুটি বেঁধেছেন সিয়াম আহমেদ ও নুসরাত ফারিয়া এবং জিয়াউল রোশান ও কলকাতার দর্শনা বনিক। কাকতালীয় ব্যাপার হলো, জাজ মাল্টিমিডিয়ার হাত ধরে বড় পর্দায় আসেন সিয়াম, রোশান ও ফারিয়া। এবারই প্রথম একসঙ্গে দেখা যাবে তিনজনকে।

২০১৯ সালে ‘শাহেনশাহ’ সিনেমার মাধ্যমে সবশেষ বড় পর্দায় দেখা গেছে নুসরাত ফারিয়াকে। প্রায় তিন বছর পর রুপালি পর্দায় ফিরছেন তিনি।

সিয়াম আহমেদ ও নুসরাত ফারিয়া

সিয়াম আহমেদ ও নুসরাত ফারিয়া (ছবি: ফেসবুক)

গত মে মাসে ‘শান’ সিনেমায় পুলিশ চরিত্রে দর্শক মাতিয়েছেন সিয়াম। এবার ‘অপারেশন সুন্দরবন’-এ র‍্যাবের মেজর সায়েম চরিত্রে বড় পর্দায় আসছেন তিনি। কমান্ডারের ভূমিকায় দেখা যাবে রোশানকে। বাংলাদেশে ‘অপারেশন সুন্দরবন’ই দর্শনা বনিকের প্রথম সিনেমা। এতে তাকে দেখা যাবে চিকিৎসকের ভূমিকায়।

জিয়াউল রোশান ও দর্শনা বনিক (ছবি: ফেসবুক)

সিনেমাটির মাধ্যমে রিয়াজ সাড়ে ছয় বছর পর বড় পর্দায় ফিরছেন। এতে আরও অভিনয় করেছেন তাসকিন রহমান, মনোজ প্রামাণিক, রাইসুল ইসলাম আসাদ, শতাব্দী ওয়াদুদ, রওনক হাসানসহ অনেকে।

‘বিউটি সার্কাস’ ও ‘অপারেশন সুন্দরবন’ সিনেমা দুটির কয়েকজন কলাকুশলীর মধ্যে অন্যরকম মিল আছে। ‘ঢাকা অ্যাটাক’ মুক্তির চার বছর পর পরিচালক দীপংকর দীপন ও চিত্রনায়ক এবিএম সুমনের নতুন কাজ দেখা যাবে।

বিউটি সার্কাস

‘বিউটি সার্কাস’ সিনেমায় শতাব্দী ওয়াদুদ (ছবি: ইমপ্রেস টেলিফিল্ম)

প্রায় কাছাকাছি সময়ে ক্যারিয়ার শুরু করা চিত্রনায়ক রিয়াজ ও ফেরদৌসের নতুন সিনেমা অনেক বছর পর মুক্তি পাচ্ছে একই দিনে। জাতীয় পুরস্কার বিজয়ী অভিনেতা শতাব্দী ওয়াদুদকে দেখা যাবে দুই সিনেমাতেই। নাগরিক নাট্যসম্প্রদায়ের সদস্য গাজী রাকায়েত ‘বিউটি সার্কাস’ এবং রওনক হাসান আছেন ‘অপারেশন সুন্দরবন’ সিনেমায়।

জিয়াউল রোশান ও দর্শনা বনিক

জিয়াউল রোশান ও দর্শনা বনিক (ছবি: ফেসবুক)

সুন্দরবনকে দস্যুমুক্ত করতে র‌্যাবের দুঃসাহসিক অভিযানের গল্প নিয়ে র‍্যাব কো-অপারেটিভ সোসাইটির প্রযোজনায় নির্মিত ‘অপারেশন সুন্দরবন’-এর সিনেমা হলের তালিকায় রয়েছে ঢাকার স্টার সিনেপ্লেক্সের বসুন্ধরা সিটি (পান্থপথ), এসকেএস টাওয়ার (মহাখালী), সীমান্ত সম্ভার (ধানমন্ডি), বঙ্গবন্ধু সামরিক জাদুঘর (বিজয় সরণি) ও সনি স্কয়ার (মিরপুর-১), ব্লকবাস্টার সিনেমাস (যমুনা ফিউচার পার্ক), মধুমিতা (মতিঝিল), শ্যামলী, আনন্দ (ফার্মগেট), চিত্রামহল (ইংলিশ রোড), সৈনিক ক্লাব (বনানী), গীত (ধোলাইপাড়) এবং বিডিআর (পিলখানা), কেরানীগঞ্জের লায়ন সিনেমাস (কদমতলী), নারায়ণগঞ্জের সিনেস্কোপ এবং নিউ মেট্রো, কাঁচপুরের চাঁদমহল, সাভারের চন্দ্রিমা (শ্রীপুর) এবং সেনা অডিটোরিয়াম (নবীনগর), সিলেটের গ্র্যান্ড সিলেট সিনেপ্লেক্স, চট্টগ্রামের সিলভার স্ক্রিন, সিনেমা প্যালেস এবং সুগন্ধা, বরিশালের অভিরুচি, খুলনার শঙ্খ এবং লিবার্টি সিনেমা, যশোরের মণিহার, ময়মনসিংহের ছায়াবাণী, রংপুরের শাপলা, সিরাজগঞ্জের রুটস সিনেক্লাব, বগুড়ার মধুবন সিনেপ্লেক্স, জয়দেবপুরের বর্ষা, শেরপুরের সত্যবতী, কিশোরগঞ্জের আনন্দ (কুলিয়ারচর)।

‘অপারেশন সুন্দরবন’-এর প্রচারণার অংশ হিসেবে পোস্টার হাতে আঁকা হয়েছে। এছাড়া সিনেমাটির তিনটি গান প্রকাশিত হয়েছে। এগুলো হলো বাপ্পা মজুমদারের গাওয়া ‘এ মন ভিজে যায়’, হাবিব ওয়াহিদ ও নন্দিতার কণ্ঠে ‘অভিমানী রোদ্দুরে’ এবং ইমরান মাহমুদুল ও কণার কণ্ঠে ‘তার হাওয়াতে চলে যে ডানা’। গানগুলো লিখেছেন গোধূলি শর্মা, এসকে দীপ ও সংযুক্তা সাহা। সুর ও সংগীত পরিচালনা করেছেন কলকাতার অম্লান চক্রবর্তী। সংগীতায়োজনে বব এসএন ও ইমন চৌধুরী।

ঢালিউড

জোড়া সিনেমা নিয়ে ফিরছেন আফরান নিশো

সিনেমাওয়ালা রিপোর্টার

Published

on

আফরান নিশো (ছবি: ফেসবুক)

‘সুড়ঙ্গ’ পেরিয়ে ফিরছেন অভিনেতা আফরান নিশো। নতুন দুটি সিনেমায় চুক্তিবদ্ধ হয়েছেন তিনি। দুটিতেই প্রধান চরিত্রে দেখা যাবে তাকে। তবে পরিচালক ও ছবি দুটির নাম এখনো জানা যায়নি। শিগগিরই আনুষ্ঠানিকভাবে এসব ঘোষণা আসবে বলে আশা করা হচ্ছে।

নতুন সিনেমা দুটি প্রযোজনা করবে এসভিএফ আলফা-আই এন্টারটেইনমেন্ট। ভারতীয় প্রযোজনা প্রতিষ্ঠান শ্রী ভেঙ্কটেশ ফিল্মস (এসভিএফ) ও ঢাকার প্রযোজনা প্রতিষ্ঠান আলফা-আই এন্টারটেইনমেন্ট লিমিটেডের যৌথ উদ্যোগে গঠিত হয়েছে এসভিএফ আলফা-আই এন্টারটেইনমেন্ট লিমিটেড। এসভিএফ আলফা-আই এন্টারটেইনমেন্ট লিমিটেডের ব্যবস্থাপনা পরিচালক শাহরিয়ার শাকিল ও এসভিএফ-এর চেয়ারম্যান মহেন্দ্র সোনি।

২০২৩ সালে ঈদুল আজহায় রায়হান রাফী পরিচালিত ‘সুড়ঙ্গ’ সিনেমার মাধ্যমে বড় পর্দায় অভিষেক হয় আফরান নিশোর। এতে তার অভিনয় প্রশংসা কুড়িয়েছে। এরপর থেকে তার নতুন কাজের ব্যাপারে কৌতূহল ছিলো ভক্ত-দর্শকদের। অবশেষে বড় পর্দায় ফেরার সুখবর দিলেন তিনি।

পড়া চালিয়ে যান

ঢালিউড

‘তুফান’ টিজারে শাকিবের হুংকার

সিনেমাওয়ালা রিপোর্টার

Published

on

‘তুফান’ সিনেমার টিজারে শাকিব খান (ছবি: চরকি)

ঢালিউড সুপারস্টার শাকিব খানের আলোচিত সিনেমা ‘তুফান’-এর টিজার প্রকাশ্যে এলো। রায়হান রাফীর পরিচালনায় এতে অপ্রতিরোধ্য গ্যাংস্টারের আমেজে দেখা গেছে তাকে। বিভিন্ন অ্যাকশন দৃশ্যে তার লুক ও মেজাজ আভাস দিচ্ছে, তুফান বয়ে যাবে সিনেমাহলে!

১ মিনিট ২৮ সেকেন্ডের টিজারের শুরুতে শাকিব বলেন, ‌‘পূর্বের কথা মোতাবেক, এখন থেকে পুরো দেশকে তুফানের হাতে তুলিয়া দেবো। সে যা চাইবে পাইবে, যা করিতে চাইবে করিবে। তাহাকে কোনো কিছুতেই বাধা দেয়ার এখতিয়ার কেউই রাখিতে পারিবে না। আর এর ব্যত্যয় ঘটিলে…।’ এরপরই শুরু হয় তার আগ্রাসী কর্মকাণ্ড।

‘তুফান’ সিনেমার টিজারে শাকিব খান (ছবি: চরকি)

টিজারে শেষ দৃশ্যের আগে অন্যমাত্রা নিয়ে হাজির হন অভিনেতা চঞ্চল চৌধুরী। তিনি উপহাস মোড়ানো হাসি দিয়ে বলেন, ‘তুফান খুব ভয় পাইছিরে।’ এরপর বাথটাবে পানিতে বসে থাকা শাকিব হুংকার ছাড়েন।

‘তুফান’ সিনেমার টিজারে চঞ্চল চৌধুরী (ছবি: চরকি)

গতকাল (৭ মে) বিকেলে সিনেমাটির তিন প্রযোজনা প্রতিষ্ঠান আলফা আই, চরকি ও এসভিএফ-এর সোশ্যাল মিডিয়া পেজে ও ইউটিউব চ্যানেলে প্রকাশিত হয় টিজার।

টিজারে ধুন্ধুমার অ্যাকশন দৃশ্যের সঙ্গে জুড়ে দেওয়া হয়েছে টাইটেল গান। এর কথা এমন– ‘প্রলয়ের তুফান, আসছে এ তুফান, প্রলয়ের তুফান, থামাও এ তুফান’। এটি গেয়েছেন আরিফ রহমান জয়। তার সঙ্গে সহ-কণ্ঠ দিয়েছেন সাম্যব্রত দৃপ্ত। র‍্যাপ গেয়েছেন র‍্যাপস্টা দাদু। এর কথা লিখেছেন তাহসান শুভ, সুর ও সংগীত পরিচালনা করেছেন নাভেদ পারভেজ।

টিজার প্রসঙ্গে পরিচালক রায়হান রাফী বলেন, “বাংলা সিনেমাকে বিশ্ব দরবারে নতুনভাবে চেনাবে ‘তুফান’। অনেক সিনেমা ইন্ডাস্ট্রি পরিবর্তন করে। ‘তুফান’ তেমন একটি সিনেমা হতে যাচ্ছে। বাংলা সিনেমার মানদণ্ড অন্য উচ্চতায় নিয়ে যাবে। বলা যায়, ‘তুফান’ আমার জীবনের একটি স্বপ্নের প্রকল্প। শাকিব ভাইকে এই সিনেমায় পাওয়া আশীর্বাদ।”

‘তুফান’ সিনেমার টিজারে শাকিব খান (ছবি: চরকি)

‘তুফান’ দর্শকের মধ্যে ঝড় তুলবে বলে আশাবাদী এসভিএফ-এর পরিচালক ও সহ-প্রতিষ্ঠাতা মহেন্দ্র সোনি, আলফা-আই স্টুডিওসের ব্যবস্থাপনা পরিচালক শাহরিয়ার শাকিল এবং চরকির প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা রেদওয়ান রনি। তিনজনই জানিয়েছেন, টিজার প্রকাশের পর দারুণ সাড়া মিলছে।

আসন্ন ঈদুল আজহায় সিনেমাহলে মুক্তি পাবে ‘তুফান’। এতে শাকিব ও চঞ্চলের পাশাপাশি অভিনয় করেছেন মিমি চক্রবর্তী, মাসুমা রহমান নাবিলাসহ অনেকেই।

পড়া চালিয়ে যান

ঢালিউড

‘ফাতিমা’ সিনেমাহলে কবে আসছে জানালেন ফারিণ

সিনেমাওয়ালা রিপোর্টার

Published

on

তাসনিয়া ফারিণ (ছবি: ফেসবুক)

বাংলাদেশের বড় পর্দায় অভিষেক হচ্ছে অভিনেত্রী তাসনিয়া ফারিণের। তার নতুন সিনেমা ‘ফাতিমা’ আগামী ২৪ মে সিনেমাহলে মুক্তি পেতে যাচ্ছে। এতে নাম ভূমিকায় দেখা যাবে তাকে।

গতকাল (৫ মে) সোশ্যাল মিডিয়ায় ‘ফাতিমা’র পোস্টার শেয়ার দিয়ে ফারিণ লিখেছেন, “আসছে দুই সময়ের দুই সংগ্রামের আখ্যান ‘ফাতিমা’। দেখুন আগামী ২৪ মে থেকে আপনার কাছের সিনেমা হলে!”

‘ফাতিমা’র পোস্টারে তাসনিয়া ফারিণ (ছবি: আউটকাস্ট ফিল্মস)

পোস্টারে দেখা যাচ্ছে, তাসনিয়া ফারিণ একদৃষ্টিতে একদিকে তাকিয়ে আছেন। এতে ১৯৭১ ও ২০২৩ সাল উল্লেখ রয়েছে। মুক্তিযুদ্ধের সময়কার ও ২০২৩ সালের দুটি পৃথক সময়ের গল্প নিয়ে তৈরি হয়েছে সিনেমাটি। পোস্টারের নিচের অংশে গরুর গাড়িতে চড়ে ও পায়ে হেঁটে অনেককে আশ্রয়ের খোঁজে যেতে দেখা যাচ্ছে।

‘ফাতিমা’য় অসাধারণ অভিনয়ের জন্য ইরানের ৪২তম ফজর আন্তর্জাতিক ফিল্ম ফেস্টিভ্যালে পুরস্কার পেয়েছেন তাসনিয়া ফারিণ। ইস্টার্ন ভিস্তা শাখায় ক্রিস্টাল সিমোর্গ স্বীকৃতি দেওয়া হয়েছে তাকে।

তাসনিয়া ফারিণ (ছবি: ফেসবুক)

ইরানের পর গত বছর অরল্যান্ডো ফিল্ম ফেস্টিভ্যাল এবং ইন্ডি গ্যাদারিং আন্তর্জাতিক ফিল্ম ফেস্টিভ্যালের অফিসিয়াল সিলেকশনে স্থান পায় ‘ফাতিমা’।

‘ফাতিমা’য় তাসনিয়া ফারিণ ছাড়াও অভিনয় করেছেন ইয়াশ রোহান, সংগীতশিল্পী পান্থ কানাই, তারিক আনাম খান, মানস বন্দ্যোপাধ্যায়, আয়েশা মনিকা, গাউসুল আলম শাওন।

আউটকাস্ট ফিল্মস প্রযোজিত ‘ফাতিমা’র নাম শুরুতে ছিলো ‘দাহকাল’। ২০১৭ সালে এর শুটিং শুরু হলেও অর্থনৈতিক জটিলতার কারণে কাজ শেষ করে সাত বছর লেগেছে। চিত্রগ্রহণ করেছেন তুহিন তমিজুল।

তাসনিয়া ফারিণ (ছবি: ইয়াকুব)

সিনেমাটি প্রযোজনা ও পরিচালনা করেছেন ধ্রুব হাসান। গল্পটি তারই। তিনি ও আদনান হাবিব চিত্রনাট্য লিখেছেন। তারাই সম্পাদনা ও নির্বাহী প্রযোজকের দায়িত্ব পালন করেছেন। সহ-প্রযোজক আরমান কাদরী, আরজু মানারা বেগম, শামসুর রাহমান আলভী ও তুনাজ্জিনা চৌধুরী পুনম। শিল্প নির্দেশনায় তারেক বাবলু, শিহাব নুরুন নবী ও উত্তম গুহ। শব্দসজ্জা করেছেন শৈব তালুকদার। পোশাক পরিকল্পনায় জুনায়েদ বোগদাদি জিমি ও এদিলা ফারিদ তুরিন।

গানের সুর ও সংগীত এবং আবহ সংগীত পরিচালনা করেছেন পাভেল আরীন। শারমিন সুলতানা সুমি লেখার পাশাপাশি একটি কণ্ঠ দিয়েছেন। এছাড়া রয়েছে সোমনূর মনির কোনালের গাওয়া একটি গান।

পশ্চিমবঙ্গের ‘আরো এক পৃথিবী’ সিনেমার মাধ্যমে বড় পর্দায় অভিষেক হয় তাসনিয়া ফারিণের। এটি মুক্তি পায় ২০২৩ সালের ফেব্রুয়ারিতে।

পড়া চালিয়ে যান

সিনেমাওয়ালা প্রচ্ছদ