Connect with us

ঢালিউড

‘হাওয়া’য় ভেসে থাকার ১০০ দিন পূর্তি

সিনেমাওয়ালা রিপোর্টার

Published

on

‘হাওয়া’ সিনেমার দৃশ্য

‘হাওয়া’ সিনেমার দৃশ্য (ছবি: ফেসবুক)

দেশীয় ফিল্ম ইন্ডাস্ট্রির পালে সুদিনের ‘হাওয়া’ বয়ে আনা সিনেমার মধ্যে অন্যতম মেজবাউর রহমান সুমন পরিচালিত ‘হাওয়া’। এটি মুক্তি পায় গত ২৯ জুলাই। এরপর অভাবনীয় সাফল্য পেয়েছে এই সিনেমা। দেশ-বিদেশের দর্শকরা এটি দেখে মুগ্ধতা প্রকাশ করেছেন। শুরু থেকেই এর জয়জয়কার দেখা গেছে। সিনেমা হলে ‘হাওয়া’ মুক্তির ১০০তম দিন পূর্ণ হলো আজ (৫ নভেম্বর)। দিনটি বিশেষভাবে উদযাপন করতে ঢাকার মহাখালীর এসকেএস টাওয়ারের স্টার সিনেপ্লেক্সে ‘হাওয়া’র বিশেষ প্রদর্শনীর আয়োজন করা হয়েছে।

পরিবেশনা সংস্থা জাজ মাল্টিমিডিয়ার সূত্র অনুযায়ী, এখন ঢাকার স্টার সিনেপ্লেক্স ও ব্লকবাস্টার সিনেমাসসহ দেশের কয়েকটি সিনেমা হলে চলছে ‘হাওয়া’। সিনেপ্লেক্সে এখনো সাপ্তাহিক ছুটির দিনে এর প্রদর্শনী হাউসফুল থাকে। ‘হাওয়া’য় ভাসতে সিনেমা হলের টিকিট কাউন্টারের সামনে রীতিমতো সংগ্রাম করতে হয়েছে দর্শকদের। তাদের অনেকের মতে, ‘হাওয়া’ যেন বাংলা সিনেমাকে নতুন উচ্চতায় নিয়ে গেলো। ‘হাওয়া’র নির্মাণ, চিত্রনাট্য, চিত্রগ্রহণ, সাউন্ড ডিজাইন, সংগীত, খুলনার আঞ্চলিক ভাষার সংলাপ, অভিনয়, রঙসহ সবই প্রাণবন্ত। দর্শকরা মগ্ন হয়ে এসব উপভোগ করেছেন।

নাজিফা তুষি

‘হাওয়া’ সিনেমায় নাজিফা তুষি (ছবি: ফেসবুক)

গত ৯৯ দিনে দর্শকদের প্রশংসার বিপরীতে বিভিন্ন প্রতিবন্ধকতার মুখেও পড়েছে ‘হাওয়া’। শালিক পাখিকে খাঁচাবন্দি করে রাখা ও পাখির মাংস খাওয়ার দৃশ্যকে কেন্দ্র করে পরিচালক মেজবাউর রহমান সুমনের বিরুদ্ধে ২০ কোটি টাকা ক্ষতিপূরণ চেয়ে মামলা করে বন্যপ্রাণী অপরাধ দমন ইউনিট। ‘হাওয়া’র বিরুদ্ধে মামলা অবিলম্বে প্রত্যাহার, ‘শনিবার বিকেল’কে সেন্সর ছাড়পত্র দেওয়াসহ ৫ দফা দাবি জানাতে বিভিন্ন প্রজন্মের নির্মাতা, শিল্পী ও কলাকুশলীরা ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটিতে কাঁটাতার দেওয়া মঞ্চে সমবেত হন। পরে সমঝোতার ভিত্তিতে মামলাটি প্রত্যাহার করে নেওয়া হয়।

৯৫তম অ্যাকাডেমি অ্যাওয়ার্ডস তথা অস্কারের আন্তর্জাতিক ফিচার ফিল্ম (বিদেশি ভাষার প্রতিযোগিতা) শাখার জন্য বাংলাদেশ থেকে মনোনয়ন পেয়েছে মেজবাউর রহমান সুমন পরিচালিত ‘হাওয়া’। কলকাতায় চতুর্থ বাংলাদেশ চলচ্চিত্র উৎসবে সিনেমাটি দেখতে দর্শকদের উপচেপড়া ভিড় দেখা গেছে।

মেজবাউর রহমান সুমন

মেজবাউর রহমান সুমন (ছবি: সান মিউজিক অ্যান্ড মোশন পিকচার্স লিমিটেড)

পরিচালনার পাশাপাশি ‘হাওয়া’র কাহিনী ও সংলাপ লিখেছেন মেজবাউর রহমান সুমন। তার সঙ্গে মিলে চিত্রনাট্য সাজিয়েছেন সুকর্ন সাহেদ ধীমান ও জাহিন ফারুক আমিন। চিত্রগ্রহণে কামরুল হাসান খসরু। গানের সংগীতায়োজন করেছেন ইমন চৌধুরী। আবহ সংগীতে রাশিদ শরীফ শোয়েব।

সান মিউজিক অ্যান্ড মোশন পিকচার্স লিমিটেড প্রযোজিত ‘হাওয়া’র গল্প সাজানো হয়েছে গভীর সমুদ্রে মাছ ধরতে যাওয়া আট জেলে এবং রহস্যময় বেদেনী গুলতিকে কেন্দ্র করে। মেয়েটির আগমনে জেলেদের মধ্যে সন্দেহ, দ্বন্দ্ব ও ভয় বাড়ে। মাছ ধরার বড় নৌকা ‘নয়নতারা’র সরদার চাঁন মাঝি চরিত্রে অভিনয় করেছেন চঞ্চল চৌধুরী। জেলে ইব্রাহীম চরিত্রে আছেন শরিফুল রাজ। গুলতি রূপে রয়েছেন নাজিফা তুষি। এছাড়া অভিনয় করেছেন নাসিরউদ্দিন খান (নাগু), সুমন আনোয়ার (ইজা), সোহেল মন্ডল (উরকেস), রিজভি রিজু (পারকেস), বাবলু বোস (ফনি) ও মাহমুদ আলম (মোরা)।

নাজিফা তুষি ও শরিফুল রাজ

‘হাওয়া’ সিনেমায় নাজিফা তুষি ও শরিফুল রাজ (ছবি: ফেসবুক)

সিনেমাটির গান ‘সাদা সাদা কালা কালা’ ব্যাপক জনপ্রিয় হয়েছে। হাশিম মাহমুদের কথায় এটি গেয়েছেন আরফান মৃধা শিবলু। এতে আরও আছে বাসুদেব দাস বাউলের গাওয়া ‘আটটা বাজে দেরি করিস না’ গানটি। সংগীতায়োজনে ইমন চৌধুরী। এছাড়া সিনেমাটিকে কেন্দ্র করে মেঘদল ব্যান্ড দীর্ঘ বিরতির পর নতুন গান ‘এ হাওয়া’ নিয়ে হাজির হয়। পরিচালক মেজবাউর রহমান সুমন মেঘদল ব্যান্ডের প্রতিষ্ঠাতা সদস্য।

ঢালিউড

মিশা-ডিপজল পরিষদের একচেটিয়া জয়, কে পেলেন কত ভোট

সিনেমাওয়ালা রিপোর্টার

Published

on

মনোয়ার হোসেন ডিপজল ও মিশা সওদাগর (ছবি: ফেসবুক)

বাংলাদেশ চলচ্চিত্র শিল্পী সমিতির নির্বাচনে (২০২৪-২৬) একচেটিয়া জয় পেয়েছে মিশা-ডিপজল পরিষদ। সভাপতি পদে মিশা সওদাগর ও সাধারণ সম্পাদক পদে নির্বাচিত হয়েছেন মনোয়ার হোসেন ডিপজল। এছাড়া মোট প্রার্থীর তিন জন ছাড়া বাকি সবাই জিতেছেন এই প্যানেল থেকে।

আজ (২০ এপ্রিল) সকালে নির্বাচনের ফল ঘোষণা করেন প্রধান নির্বাচন কমিশনার খোরশেদ আলম খসরু। এবারের নির্বাচনে ৫৭০ ভোটারের মধ্যে ভোট পড়েছে ৪৭৫টি।

বাংলাদেশ চলচ্চিত্র শিল্পী সমিতির নির্বাচনের (২০২৪-২৬) ফল

সভাপতি পদে মিশা সওদাগর ভোট পেয়েছেন ২৬৫টি। এ নিয়ে তৃতীয়বার সভাপতি নির্বাচিত হলেন তিনি। তার প্রতিদ্বন্দ্বী মাহমুদ কলি ১৭০ ভোট পেয়ে হেরেছেন।

সাধারণ সম্পাদক প্রার্থী অভিনেতা-প্রযোজক মনোয়ার হোসেন ডিপজল ২২৫ ভোট পেয়েছেন। তার প্রতিদ্বন্দ্বী চিত্রনায়িকা নিপুণ আক্তার ২০৯ ভোট এবং শ্রাবণ শাহ পেয়েছেন মাত্র ১ ভোট।

মিশা সওদাগর ও মনোয়ার হোসেন ডিপজল (ছবি: ফেসবুক)

মিশা-ডিপজল পরিষদের হয়ে নির্বাচিত হয়েছেন সহ-সভাপতি পদে মাসুম পারভেজ রুবেল (২৩১ ভোট) ও ডি এ তায়েব (২৩৪ ভোট), সহ-সাধারণ সম্পাদক পদে আরমান (২৩৭ ভোট), সাংগঠনিক সম্পাদক পদে জয় চৌধুরী (২৫০ ভোট), আন্তর্জাতিক বিষয়ক সম্পাদক হিসেবে আলেকজান্ডার বো (২৮৬ ভোট), দফতর ও প্রচার সম্পাদক পদে জ্যাকি আলমগীর (২৪৫ ভোট) এবং কোষাধ্যক্ষ পদে কমল (২৩১)। এছাড়া সংস্কৃতি ও ক্রীড়া সম্পাদক হিসেবে কলি-নিপুণ প্যানেলের মামনুন ইমন (২৩৫ ভোট) বিজয়ী হয়েছেন।

বাংলাদেশ চলচ্চিত্র শিল্পী সমিতির নির্বাচনের (২০২৪-২৬) ফল

কার্যনির্বাহী সদস্য পদে মিশা-ডিপজল পরিষদ থেকে নির্বাচিত হয়েছেন রত্না কবির (২৬৩ ভোট), চুন্নু (২৪৮ ভোট), শাহনূর (২৪৫ ভোট), রোজিনা (২৪৩ ভোট), আলীরাজ (২৩৯ ভোট), সুচরিতা (২২৮ ভোট), সুব্রত (২১৬ ভোট), দিলারা ইয়াসমিন (২১৮ ভোট), নানা শাহ (২১০ ভোট)। এছাড়া কলি-নিপুণ পরিষদ থেকে পলি (২২০ ভোট) ও সনি রহমান (২৩০ ভোট) কার্যনির্বাহী সদস্য হিসেবে নির্বাচিত হয়েছেন।

গতকাল (১৯ এপ্রিল) কড়া নিরাপত্তার মধ্যে এফডিসিতে চলচ্চিত্র শিল্পী সমিতির কার্যালয়ে সকাল থেকে বিকাল পর্যন্ত ভোটগ্রহণ অনুষ্ঠিত হয়। আজ সন্ধ্যা ৬টা ২০ মিনিটে ভোটগ্রহণ শেষ হয়।

পড়া চালিয়ে যান

ঢালিউড

‘প্রিয় মালতী’ হয়ে বড় পর্দায় আসছেন মেহজাবীন

সিনেমাওয়ালা রিপোর্টার

Published

on

(বাঁ থেকে) শঙ্খ দাশগুপ্ত, মেহজাবীন চৌধুরী, আদনান আল রাজীব ও রেদওয়ান রনি (ছবি: চরকি)

অভিনেত্রী মেহজাবীন চৌধুরীর জন্মদিন আজ (১৯ এপ্রিল)। জন্মদিনে নতুন সিনেমার ঘোষণায় হাজির তিনি। এর নাম ‘প্রিয় মালতী’। এটি পরিচালনা করছেন শঙ্খ দাশগুপ্ত। আদনান আল রাজীবের ফ্রেম পার সেকেন্ড এবং চরকির যৌথ প্রযোজনায় এই সিনেমা চলতি বছরেই মুক্তি পাবে বড় পর্দায়।

আজ (১৯ এপ্রিল) বিকেলে ঢাকার একটি পাঁচতারকা হোটেলে জমকালো আয়োজনে ‘প্রিয় মালতী’র ঘোষণা দেওয়া হয়। অনুষ্ঠানে শুরুতে মঞ্চে আসেন তারকা দম্পতি মোস্তফা সরয়ার ফারুকী ও নুসরাত ইমরোজ তিশা। মেহজাবীনকে নিয়ে তারা মজার কিছু তথ্য দেন। তিশা বলেন, ‘মেহজাবীন তার প্রজন্মের সবচেয়ে বলিষ্ঠ অভিনেত্রী। সিনেমার জন্য সে নিজেকে দুর্দান্তভাবে প্রস্তুত করেছে।’

এরপর মঞ্চে আসেন আরেক তারকা দম্পতি আশফাক নিপুন ও এলিটা করিম। মেহজাবীনকে নিয়ে তারাও মজার কিছু তথ্য জানান। আশফাক নিপুন বলেন, ‘মেহজাবীন অভিনয়ে নিজেকে যেভাবে গড়েছেন সেটা সত্যিই প্রশংসার দাবি রাখে।’

মেহজাবীন চৌধুরী (ছবি: চরকি)

ফ্রেম পার সেকেন্ড-এর প্রযোজক আদনান আল রাজীব বলেন, “প্রযোজনার কাজটা আমার জন্য একটু ভিন্ন। প্রথমত, পুরো বিশ্বে প্রযোজনা মানে শুধু টাকা বিনিয়োগ না। এটা আসলে সৃজনশীলতার সঙ্গে থাকা, টিজি কারা হবে, গল্পটা কেমন হবে, সিনেমা মুক্তি নিয়ে কাজ করা। এটা পুরো একটা প্রক্রিয়া। আমি এই প্রক্রিয়ার সঙ্গেই থাকতে চেয়েছি। আর দ্বিতীয়ত, ‘প্রিয় মালতী’র গল্প একদম ইউনিক। গল্পটা শঙ্খ (পরিচালক) যখন আমাদের সঙ্গে শেয়ার করে তখনই সবার ভালো লেগেছে। এমন গল্প আমরা কখনও দেখিনি। সেই সঙ্গে মেহজাবীন এই সিনেমায় যুক্ত হওয়ায় অন্য একটা মাত্রা যোগ হয়েছে।’

চরকির প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা রেদওয়ান রনি বলেন, ‘এই সিনেমার সঙ্গে থাকতে পারা আমার জন্য খুব আবেগের। প্রতিটি সিনেমাই স্পেশাল। কাছের মানুষ নিয়ে একটা সিনেমা নির্মাণের আনন্দ ভাষার প্রকাশ করার নয়। গুণী পরিচালক, গুণী অভিনেত্রীসহ দুর্দান্ত একটি টিম এই সিনেমায় যুক্ত হয়েছে। সিনেমাহলে দর্শকের কাছ পর্যন্ত পৌঁছানোটা এখন আমাদের অপেক্ষা।’

মেহজাবীন চৌধুরী (ছবি: চরকি)

পরিচালক শঙ্খ দাশগুপ্ত বলেন, “ফিল্মমেকিং আমার কাছে সবসময় কষ্টের কাজ মনে হয়। তবে ‘প্রিয় মালতী’ কাজটা আমার জন্য একেবারে সহজ করে দিয়েছে দুই প্রযোজক। আমি শুধু নির্মাণ ও গল্প নিয়েই ভেবেছি। সেই সঙ্গে যাদের কাস্ট হিসেবে চিন্তা করেছি তাদেরকে সাথে পেয়েছি। মেহজাবীনের মতো অভিনেত্রীতে ডিরেক্ট করতে পারাটাও আনন্দের। এই সিনেমার ক্যামেরার সামনে-পেছনে যারাই কাজ করেছেন তাদের প্রতি কৃতজ্ঞতা।’

সিনেমার ঘোষণা দেওয়ার পাশাপাশি কেক কেটে মেহজাবীনের জন্মদিন উদযাপন করা হয়। অনুষ্ঠানে আরো ছিলেন মোস্তফা মন্ওয়ার, জেফার রহমান, রাকা নওশীন নাওয়ারসহ অনেকে।

চরকিতে ‘রেডরাম’ সিনেমা দিয়ে ওটিটিতে যাত্রা শুরু করেন মেহজাবীন চৌধুরী। ‘প্রিয় মালতী’ নিয়ে তিনি বেশ রোমাঞ্চিত। তার কথায়, ‘জন্মদিনে সিনেমার ঘোষণা আমার জন্য খুব স্পেশাল। সিনেমাটিতে দর্শক ভিন্ন এক মেহজাবীনকে দেখতে পাবেন আশা করি। এমন একটি টিমের সঙ্গে কাজ করতে পেরে নিজেকে সত্যিই ভাগ্যবতী মনে হচ্ছে।’

মেহজাবীনের পাশাপাশি ‘প্রিয় মালতী’তে অভিনয় করেছেন নাদের চৌধুরী, শাহজাহান সম্রাট, রিজভী রিজুসহ অনেকে। গত বছরের সেপ্টেম্বর-অক্টোবরে ঢাকা-বরিশালসহ দেশের বিভিন্ন স্থানে এর শুটিং হয়েছে।

পড়া চালিয়ে যান

ঢালিউড

২৬ এপ্রিল থেকে আমেরিকা মাতাবে ‘ওমর’

সিনেমাওয়ালা রিপোর্টার

Published

on

‘ওমর’ সিনেমায় শরিফুল রাজ ও নাসিরউদ্দিন খান (ছবি: সিনেমাওয়ালা)

ঈদে মুক্তিপ্রাপ্ত মুহাম্মদ মোস্তফা কামাল রাজের ‘ওমর’ ঢাকাসহ দেশের বিভিন্ন জেলার সিনেমাহলে সগৌরবে চলছে। সব বয়সী দর্শকরা সিনেমাটির প্রশংসা করেছেন। প্রতিদিনই মাল্টিপ্লেক্সে এর প্রতিটি শো হাউসফুল যাচ্ছে। দেশের গণ্ডি পেরিয়ে এবার আমেরিকা মাতাতে যাচ্ছে এটি।

আগামী ২৬ এপ্রিল নিউইয়র্কে মুক্তি পাবে ‘ওমর’। জ্যামাইকা মাল্টিপ্লেক্সে ৩০ এপ্রিল পর্যন্ত চলবে এই সিনেমা। এছাড়া সান ফ্রান্সিসকোর সিনে লাউঞ্জ ফ্রিমন্ট সেভেন, শিকাগোর সিনে লাউঞ্জ নাইলস এবং ডালাসের ফান এশিয়া রিচার্ডসনে ২৬ এপ্রিল থেকে ২৮ এপ্রিল পর্যন্ত উপভোগ করা যাবে এটি।

আমেরিকার আরো অনেক শহর এবং কানাডায় ‘ওমর’ যাবে মে মাসে।

‘ওমর’ সিনেমায় নাসিরউদ্দিন খান (ছবি: মাস্টার কমিউনিকেশন্স)

অ্যাকশন কাট এন্টারেটেইনমেন্টের পরিবেশনায় ঈদের দিন থেকে ২১টি সিনেমা হলে চলছে ‘ওমর’। এরমধ্যে ঢাকার ব্লকবাস্টার সিনেমাসে ঈদের তৃতীয় দিনে শো বেড়েছে।

‘ওমর’ সিনেমার পোস্টার (ছবি: সিনেমাওয়ালা)

‘ওমর’ সিনেমায় অভিনয় করেছেন শরিফুল রাজ, নাসিরউদ্দিন খান, শহীদুজ্জামান সেলিম, ফজলুর রহমান বাবু, এরফান মৃধা শিবলু, আবু হুরায়রা তানভীর, নাফিস আহমেদ, রোজি সিদ্দিকী, তানজিলা হক মাইশা, আইমন সিমলা। মাস্টার কমিউনিকেশন্সের ব্যানারে সিনেমাটি প্রযোজনা করেছেন খোরশেদ আলম। চিত্রনাট্য লিখেছেন সিদ্দিক আহমেদ। চিত্রগ্রহণ করেছেন রাজু রাজ। শিল্প নির্দেশনায় সামুরাই মারুফ।

‘ওমর’ সিনেমায় শরিফুল রাজ (ছবি: মাস্টার কমিউনিকেশন্স)

সিনেমাটির গান গেয়েছেন দিলশাদ নাহার কনা, আরফিন রুমি, ‘নাসেক নাসেক’ তারকা অনিমেষ রায় ও ভারতের ঈশান মিত্র। গানের কথা লিখেছেন জনি হক, সোমেশ্বর অলি ও রাসেল মাহমুদ। সুর ও সংগীত পরিচালনায় নাভেদ পারভেজ এবং ভারতের স্যাভি। ‘ভাইরাল বেবি’ গানে নেচেছেন ভারতীয় নায়িকা দর্শনা বণিক।

পড়া চালিয়ে যান

সিনেমাওয়ালা প্রচ্ছদ