Connect with us

টালিউড

একটি শেষ না হতেই আরেকটি সিনেমায় জায়েদের নায়িকা সায়ন্তিকা

সিনেমাওয়ালা রিপোর্টার

Published

on

‘ছায়াবাজ’ সিনেমায় জায়েদ খান ও সায়ন্তিকা ব্যানার্জি (ছবি: ফেসবুক)

কলকাতার তারকা সায়ন্তিকা ব্যানার্জির সঙ্গে ‘ছায়াবাজ’-এর প্রথম ধাপের শুটিং শেষ হতেই আরেকটি সিনেমায় জুটি বাঁধছেন চিত্রনায়ক জায়েদ খান। এর নাম ‘টাইগার’। মজার ঘটনা হলো, কক্সবাজার থেকে ঢাকা হয়ে কলকাতায় ফিরে যাওয়ার পথে বিমানবন্দরেই নতুন সিনেমার চুক্তিতে সই করেছেন নায়িকা।

গত ৭ সেপ্টেম্বর অভ্যন্তরীণ ফ্লাইটে ঢাকায় ফেরেন সায়ন্তিকা ও জায়েদ খান। হযরত শাহজালাল বিমানবন্দরে অপেক্ষায় ছিলেন ‘টাইগার’ সিনেমার পরিচালক কামরুজ্জামান রোমান ও চিত্রনাট্যকার আবদুল্লাহ জহির বাবু। তাদের দেখে চমকে যান নায়ক-নায়িকা। বিমানবন্দরের লাউঞ্জে বসে চুক্তিতে সই করে সায়ন্তিকা কলকাতার ফ্লাইট ধরেন।

(বাঁ থেকে) আব্দুল্লাহ জহির বাবু, জায়েদ খান, সায়ন্তিকা ব্যানার্জি ও কামরুজ্জামান রোমান (ছবি: ফেসবুক)

জানা গেছে, অ্যাকশন-থ্রিলার ‘টাইগার’ সিনেমায় কয়েকদিন আগে চুক্তিবদ্ধ হন জায়েদ। গোল্ড মাল্টিমিডিয়ার ব্যানারে আগামী ডিসেম্বরে বাংলাদেশে এর প্রথম ধাপের শুটিং হবে। তারপর বেশ কিছু অংশের কাজ হবে লন্ডনে। ২০২৪ সালের শুরুর দিকেই সিনেমাটি মুক্তির ইচ্ছে পরিচালকের।

জায়েদ খান ও সায়ন্তিকা ব্যানার্জি (ছবি: ফেসবুক)

তাজু কামরুলের পরিচালনায় ‘ছায়াবাজ’ সিনেমার শুটিং করতে গত ৩০ আগস্ট সকালে ঢাকায় এসেছিলেন সায়ন্তিকা। বিমানবন্দরে তাকে ফুল দিয়ে বরণ করেন জায়েদ খান। এরপর তাদের গন্তব্য ছিলো কক্সবাজার। বিশ্বের দীর্ঘতম সমুদ্র সৈকতের শহরে টানা আট দিন শুটিং করেছেন তারা। এবারই প্রথম জুটি বেঁধেছেন দুই বাংলার দুই অভিনয়শিল্পী।

‘ছায়াবাজ’ সিনেমায় সায়ন্তিকা ব্যানার্জি (ছবি: ফেসবুক)

কক্সবাজারে থাকাকালে সোশ্যাল মিডিয়ায় শুটিংয়ের বিভিন্ন স্থিরচিত্র এবং জিমে ঘাম ঝরানো ও হোটেলের করিডোরে নাচের ভিডিও শেয়ার দিয়েছেন সায়ন্তিকা। কক্সবাজারে সূর্যাস্তের সময় সৈকতে দাঁড়িয়ে তোলা একটি ছবি ফেসবুক কাভারে রেখেছেন তিনি। এতে সাদা শাড়িতে দেখা গেছে তাকে।

‘ছায়াবাজ’ সিনেমায় জায়েদ খান ও সায়ন্তিকা ব্যানার্জি (ছবি: ফেসবুক)

কক্সবাজারে সায়ন্তিকার কাজের প্রতি আন্তরিকতা ও সহশিল্পীর প্রতি সম্মান দেখে মুগ্ধ জায়েদ খান। নায়িকার কাছ থেকে অনেক কিছু শিখেছেন তিনি। তার আশা, তাদের জুটি দুই বাংলার দর্শকদের ভালো লাগবে।

‘ছায়াবাজ’ সিনেমায় সায়ন্তিকা ব্যানার্জি ও জায়েদ খান (ছবি: ফেসবুক)

পারিবারিক আবেগকে কেন্দ্র করে দুই ভাইয়ের গল্প থাকছে ‘ছায়াবাজ’ সিনেমায়। এতে একটি বিশেষ চরিত্রে অভিনয় করছেন মিশা সওদাগর। এর চিত্রনাট্য লিখেছেন আবদুল্লাহ জহির বাবু।

সায়ন্তিকা ব্যানার্জি ও জায়েদ খান (ছবি: ফেসবুক)

বাংলাদেশি নায়কের বিপরীতে দ্বিতীয়বারের মতো অভিনয় করছেন সায়ন্তিকা। এর আগে যৌথ প্রযোজনায় নির্মিত রাজিব কুমার বিশ্বাসের ‘নাকাব’ (২০১৮) সিনেমায় শাকিব খানের নায়িকা ছিলেন তিনি।

‘ছায়াবাজ’ সিনেমায় সায়ন্তিকা ব্যানার্জি (ছবি: ফেসবুক)

প্রসেনজিতের ‘হ্যাংওভার’ (২০১০), ‘পাপী’ (২০১১), জিতের ‘আওয়ারা’ (২০১২), ‘পাওয়ার’ (২০১৬), ‘অভিমান’ (২০১৬), দেবের ‘বিন্দাস’ (২০১৪), ‘হিরোগিরি’ (২০১৫), ‘কেলোর কীর্তি’ (২০১৬) “ শুটার” সিনেমায় অভিনয় করেছেন সায়ন্তিকা।

টালিউড

কোটা আন্দোলন নিয়ে স্বস্তিকা, ‘অস্থির লাগছে, আমিও তো সন্তানের জননী’

সিনেমাওয়ালা ডেস্ক

Published

on

স্বস্তিকা মুখার্জি (ছবি: ফেসবুক)

সরকারি চাকরির নিয়োগে কোটা পদ্ধতি সংস্কারের দাবিতে শিক্ষার্থীদের আন্দোলনকে কেন্দ্র করে সহিংসতায় উদ্বিগ্ন পশ্চিমবঙ্গের অভিনেত্রী স্বস্তিকা মুখার্জি। জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ে সংঘর্ষের ভিডিও দেখে নিজের উৎকণ্ঠার কথা জানিয়েছেন তিনি। একইসঙ্গে কয়েক মাস আগে বাংলাদেশে আসার স্মৃতি রোমন্থন করেছেন ৪৩ বছর বয়সী এই তারকা। বুক উঁচিয়ে দুই হাত প্রসারিত করে দাঁড়িয়ে থাকায় পুলিশের গুলিতে নিহত আবু সাঈদের একটি গ্রাফিক্স শেয়ার দিয়েছেন তিনি। 

গতকাল দিবাগত রাত ৩টা ৩০ মিনিটে সোশ্যাল মিডিয়ায় নিজের অ্যাকাউন্টগুলোতে স্বস্তিকা লিখেছেন, ‘আজ একটা ভিডিও দেখলাম, গুলির ধোঁয়া। বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্রছাত্রীরা আক্রান্ত। ছাত্র বয়স গেছে সেই কবে, তবে জাহাঙ্গীরনগর আর আমার যাদবপুর খুব কাছাকাছি। কাঠগোলাপের গাছগুলোও কেমন একই রকম। একই রকম আকাশের মেঘগুলোও। কেবল আজ ওখানে বারুদের গন্ধ।’

স্বস্তিকা শুরুতে উল্লেখ করেন, ‘প্রায় এক মাস হলো আমি নিজের দেশে নেই। যুক্তরাষ্ট্রের খবরের চ্যানেলে তৃতীয় বিশ্বের কোনো খবরই তেমন একটা চলে না। আর আমি খুব একটা মোবাইল ফোনের পোকা নই, তাই এতো খারাপ একটা খবর কানে আসতে দেরি হলো।’

এরপর বাংলাদেশ নিয়ে স্মৃতিচারণ করেন অভিনেত্রী, ‘এই তো কয়েক মাস আগে বাংলাদেশ গেলাম। চারুকলা যাওয়ার সৌভাগ্য হয়েছিলো, জীবনের একটা স্মরণীয় দিন হয়ে থাকবে। খুব ইচ্ছে ছিলো জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ে যাওয়ার। প্রতিবার আসি, কিন্তু ব্যস্ততায় যাওয়া হয় না। মা-ও খুব যেতে চাইতেন বাংলাদেশ, তাকে নিয়ে যাওয়া হয়নি।’

স্বস্তিকা মুখার্জি (ছবি: ফেসবুক)

বাংলাদেশ ও বাংলাদেশিদের প্রশংসা করে স্বস্তিকা লিখেছেন, ‘এমন এক আপ্যায়ন প্রিয় জাতি দেখিনি, খাবারের নিমন্ত্রণ যেন শেষ হতেই চায় না। অমন সুন্দর করে সারা রাস্তা জুড়ে ভাষার আল্পনা আর কোথায় দেখবো? নয়নজুড়ানো দেয়াল লেখা? এ বোধহয় মুক্তিযুদ্ধের শপথ নেওয়া একটা জাতির পক্ষেই সম্ভব।’

ফেসবুক ও ইনস্টাগ্রাম পোস্টে ভারতীয় কবি শঙ্খ ঘোষের ‘আন্দোলন’ কবিতার কয়েকটি পঙক্তি জুড়ে দিয়েছেন স্বস্তিকা।
‘ময়দান ভারী হয়ে নামে কুয়াশায়
দিগন্তের দিকে মিলিয়ে যায় রুটমার্চ
তার মাঝখানে পথে পড়ে আছে ও কি কৃষ্ণচূড়া?
নিচু হয়ে বসে হাতে তুলে নিই
তোমার ছিন্ন শির, তিমির।’

স্বস্তিকা মুখার্জি (ছবি: ফেসবুক)

সবশেষে স্বস্তিকার প্রত্যাশা, ‘আজ অস্থির লাগছে। আমিও তো সন্তানের জননী। আশা করবো বাংলাদেশ শান্ত হবে। অনেকটা দূরে আছি, এই প্রার্থনাটুকুই করতে পারি। অন্ধকারের উৎস হতে উৎসারিত আলো– সেই আমাদের আলো…আলো হোক, ভালো হোক সকলের।’

পড়া চালিয়ে যান

ছবি ও কথা

সোহিনী-শোভন: দেখা হওয়ার এক বছরে একই সাথে একই ঘরে

সিনেমাওয়ালা ডেস্ক

Published

on

পশ্চিমবঙ্গের অভিনেত্রী সোহিনী সরকার ও সংগীতশিল্পী শোভন গাঙ্গুলী ঘর বাঁধলেন। দক্ষিণ চব্বিশ পরগনার একটি খামারবাড়িতে আইনিভাবে তাদের বিয়ের আনুষ্ঠানিকতা সম্পন্ন হয়েছে। আজ (১৫ জুলাই) ঘনিষ্ঠ বন্ধুদের উপস্থিতিতে ধুমধাম আয়োজনে এই যুগলের চার হাত এক হলো। ছবিতে দেখুন সোহিনী-শোভনের শুভ পরিণয়।

সোহিনী সরকার বিয়ের ছবি সোশ্যাল মিডিয়ায় পোস্ট করে লিখেছেন, ‘দেখা হওয়ার এক বছরে একই সাথে একই ঘরে।’

২০২৩ সালের ১৫ জুলাই শোভনের সঙ্গে দেখা হয় সোহিনীর। সেই প্রথম দেখার বর্ষপূর্তিতেই বিয়ের বন্ধনে জড়ালেন তারা।

বিয়েতে বেনারসি ও সোনার গয়নায় বাঙালি সাজে সেজেছিলেন সোহিনী। শোভনের পরনে ছিল সাদা সিল্কের ধুতি ও পাঞ্জাবি।

মালাবদলের পর সোহিনীর গালে ভালোবাসার চুম্বন দেন শোভন।

সম্প্রতি মুক্তি পেয়েছে সোহিনীর নতুন সিনেমা ‘অথৈ’। এতে তার সহ-অভিনেতা অনির্বাণ ভট্টাচার্য।

পড়া চালিয়ে যান

টালিউড

মৃণাল সেনের ভূমিকায় নতুন পোস্টারে চঞ্চল, ‘পদাতিক’ মুক্তির তারিখ ঘোষণা

সিনেমাওয়ালা ডেস্ক

Published

on

‘পদাতিক’ সিনেমার পোস্টারে চঞ্চল চৌধুরী ও কোরাক সামন্ত (ছবি: ফ্রেন্ডস কমিউনিকেশন)

ভারতের খ্যাতিমান চলচ্চিত্রকার মৃণাল সেনের বায়োপিক ‘পদাতিক’ মুক্তি পেতে যাচ্ছে আগামী ১৫ আগস্ট। এতে প্রয়াত নির্মাতার চরিত্রে বড় পর্দায় আসছেন বাংলাদেশের অভিনেতা চঞ্চল চৌধুরী। সিনেমাটির নতুন পোস্টার শেয়ার করে মুক্তির তারিখ জানিয়েছেন তিনি। ভারতের স্বাধীনতা দিবসে তাকে মৃণাল সেনের ভূমিকায় দেখা যাবে।

নতুন পোস্টারে চঞ্চলকে মধ্যবয়সী ও পূর্ণবয়স্ক মৃণাল সেনের অবয়বে দেখা গেছে। এর সঙ্গে তরুণ মৃণাল সেনের ভূমিকায় আরেকজনের স্থিরচিত্র স্থান পেয়েছে।

ফেসবুকে চঞ্চল লিখেছেন, “অনেক অপেক্ষার পর আসছে ‘পদাতিক’।” এর সঙ্গে টিজারের লিংক পোস্ট করেছেন তিনি।

গত ১৪ মে প্রকাশিত হয় ‘পদাতিক’-এর ১ মিনিটি ৩৭ সেকেন্ডের টিজার। এতে মৃণাল সেনের ভূমিকায় চঞ্চল চৌধুরীকে দেখে চমকে গেছেন দর্শকেরা। সিনেমায় মৃণাল সেনের শৈশব থেকে শুরু করে ফিল্মমেকিংয়ে আসার ঘটনা ও ব্যক্তিজীবনের অজানা গল্প পাওয়া যাবে বলে আশা করা হচ্ছে।

চঞ্চল চৌধুরী ও সৃজিত মুখার্জি (ছবি: ফেসবুক)

‘পদাতিক’ পশ্চিমবঙ্গে চঞ্চল চৌধুরীর প্রথম সিনেমা। এটি পরিচালনা ও সম্পাদনা করেছেন সৃজিত মুখার্জি। ‘পদাতিক’ নামটি মৃণাল সেনের একটি সিনেমার নাম থেকে নেওয়া। কলকাতা শহরকে নিয়ে ট্রিলজি নির্মাণ করেন তিনি। এগুলো হলো ‘ইন্টারভিউ’ (১৯৭১), ‘কলকাতা ৭১’ (১৯৭১) এবং ‘পদাতিক’ (১৯৭৩)।

২০২৩ সালের ১৪ মে ছিলো মৃণাল সেনের জন্মশতবার্ষিকী। এ উপলক্ষে তার জীবন, কর্ম ও সময়ের গল্প নিয়ে তৈরি হয়েছে ‘পদাতিক’। কলকাতা ও মুম্বাই ছাড়াও ভারতের বাইরে কিছু দৃশ্যের চিত্রায়ন হয়েছে। ফ্রেন্ডস কমিউনিকেশন এবং বিগ স্ক্রিন প্রোডাকশন্স হাউসের ব্যানারে এটি প্রযোজনা করেছেন ফিরদাউসুল হাসান ও প্রবাল হালদার। সহ-প্রযোজনায় শুভজিৎ মণ্ডল।

চঞ্চল চৌধুরী ও মনামী ঘোষ (ছবি: ইনস্টাগ্রাম)

সিনেমাটিতে মৃণাল সেনের স্ত্রী গীতা সেনের ভূমিকায় অভিনয় করেছেন কলকাতার অভিনেত্রী মনামী ঘোষ। এছাড়া অন্যান্য চরিত্রে আছেন কোরাক সামন্ত, সম্রাট চক্রবর্তীসহ অনেকে। কিছুদিন আগে নিউইয়র্ক ইন্ডিয়ান ফিল্ম ফেস্টিভ্যালে সেরা চিত্রনাট্যের পুরস্কার পেয়েছে ‘পদাতিক’।

গত ৮ জুন ‘পদাতিক’-এর প্রথম গান অবমুক্ত হয়েছে। এর শিরোনাম ‘তু জিন্দা হ্যায়’। এটি গেয়েছেন ভারতের জনপ্রিয় দুই কণ্ঠশিল্পী সনু নিগাম ও অরিজিৎ সিং। এবারই প্রথম কোনো গানে এই দুই জনের গায়কী শোনা গেলো। ভারতীয় প্রযোজনা প্রতিষ্ঠান জি মিউজিক ‘তু জিন্দা হ্যায়’ গানটি মুক্তি দিয়েছে। এর কথা লিখেছেন শৈলেন্দ্র, সুর করেছেন সলিল চৌধুরী। প্রয়াত এই দুই জনের সৃষ্টির সঙ্গে সনু নিগাম ও অরিজিৎ সিংয়ের কণ্ঠের সম্মিলনে ইতিহাস সৃষ্টিকারী একটি গান হয়েছে বলে ইউটিউবে মন্তব্য করেছেন অনেকে।

পোস্টারে দেওয়া তথ্যানুযায়ী, সিনেমায় রবীন্দ্রসংগীত থাকছে। এছাড়া কবীর সুমন গান বেঁধেছেন। আবহ সংগীত করেছেন ইন্দ্রদীপ দাসগুপ্ত।

পড়া চালিয়ে যান
Advertisement

সিনেমাওয়ালা প্রচ্ছদ