Connect with us

ঢালিউড

এমআর-নাইন: এবিএম সুমনের সঙ্গে হলিউডের আরও তিন তারকা

সিনেমাওয়ালা রিপোর্টার

Published

on

এবিএম সুমন

(বাঁ থেকে) মাইকেল জেই হোয়াইট, এবিএম সুমন, ম্যাট পাসমোর ও রেমি গ্রিলো (ছবি: ডেডলাইন)

বাংলাদেশের অভিনেতা এবিএম সুমন হলিউড তারকাদের সঙ্গে অভিনয় করতে যাচ্ছেন। ‘এমআর-নাইন’ সিনেমায় কিছুদিন আগে যুক্ত হয়েছেন ‘ক্যাপ্টেন আমেরিকা: দ্য উইন্টার সোলজার’ (২০১৪) এবং ‘ক্যাপ্টেন আমেরিকা: সিভিল ওয়ার’-এর (২০১৬) অভিনেতা ফ্রাঙ্ক গ্রিলো। এবার আরও তিন আন্তর্জাতিক তারকা এতে অভিনয়ের জন্য চুক্তিবদ্ধ হলেন।

‘এমআর-নাইন’ সিনেমায় ফ্রাঙ্ক গ্রিলোর ছেলে রেমি গ্রিলোকে দেখা যাবে। এর মাধ্যমে বড় পর্দায় অভিষেক হবে তার। এছাড়া বিখ্যাত আরও দুই অভিনেতা থাকছেন। তারা হলেন ক্রিস্টোফার নোলানের ‘দ্য ডার্ক নাইট’ সিনেমার অভিনেতা মাইকেল জেই হোয়াইট এবং ‘জিগসো’ সিনেমার অস্ট্রেলিয়ান অভিনেতা ম্যাট পাসমোর।

১৯৬৬ সালে প্রকাশিত কথাসাহিত্যিক কাজী আনোয়ার হোসেনের মাসুদ রানা সিরিজের প্রথম উপন্যাস ‘মাসুদ রানা: ধ্বংস পাহাড়’ অবলম্বনে গোয়েন্দা থ্রিলারধর্মী সিনেমাটি পরিচালনা করবেন আসিফ আকবার। চিত্রনাট্য লিখেছেন আসিফ আকবার, আব্দুল আজিজ ও নাজিম উদ দৌলা। এর শুটিং হবে যুক্তরাষ্ট্রের নেভাদা অঙ্গরাজ্যের লাস ভেগাস ও ক্যালিফোর্নিয়ার লস অ্যাঞ্জেলস এবং বাংলাদেশের ঢাকায়।

ফ্রাঙ্ক গ্রিলো

‘ক্যাপ্টেন আমেরিকা: দ্য উইন্টার সোলজার’ সিনেমায় ফ্রাঙ্ক গ্রিলো (ছবি: টুইটার)

এবিএম সুমন ছাড়াও বাংলাদেশের অভিনয়শিল্পীদের মধ্যে আরও আছেন আনিসুর রহমান মিলন ও শহিদুল আলম সাচ্চু। অন্য তারকাদের মধ্যে রয়েছেন ভারতের সাক্ষী প্রধান, ওমি বৈদ্য, হলিউডের নিকো ফস্টার, জ্যাকি সিগেল এবং ইউক্রেনিয়ান-আমেরিকান সাবেক পেশাদার রেসলার ওলেগ প্রুডিয়ুস।

শোনা যাচ্ছে, বাংলাদেশ কাউন্টার ইন্টেলিজেন্স এজেন্সির গোয়েন্দা রানা চরিত্রে থাকছেন এবিএম সুমন। তার কোড নেম এমআর-নাইন। মূল খলচরিত্রে দেখা যাবে ফ্রাঙ্ক গ্রিলোকে। বাংলা ও ইংরেজি ভাষায় তৈরি হবে সিনেমাটি।

সিনেমায় যৌথভাবে লগ্নি করেছে বাংলাদেশের জাজ মাল্টিমিডিয়া, লস অ্যাঞ্জেলস ভিত্তিক আল ব্র্যাভো ফিল্মস এবং এমআর-নাইন ফিল্মস। নির্বাহী প্রযোজক হিসেবে থাকছেন নিকো ফস্টার, পিটার নুয়েন ও ফিলিপ বি. গোল্ডফাইন। প্রযোজনায় আল ব্র্যাভো, হেমডি কিওয়ানুকা, কলিন বেটস, ফিলিপ ট্যান, আব্দুল আজিজ ও আসিফ আকবার।

ঢালিউড

হাউসফুল ‘ওমর’, বাড়লো শো, দর্শক-তারকা সবার মুখে রাজের প্রশংসা

সিনেমাওয়ালা রিপোর্টার

Published

on

‘ওমর’ সিনেমার পোস্টার (ছবি: সিনেমাওয়ালা)

মুহাম্মদ মোস্তফা কামাল রাজ পরিচালিত ‘ওমর’ দেখে মুগ্ধতা প্রকাশ করেছেন সাধারণ দর্শক ও শোবিজ তারকারা। দর্শক চাহিদা থাকায় মুক্তির দুই দিন যেতেই শো-টাইম বাড়ানো হয়েছে। পরিবার-পরিজন ও বন্ধুবান্ধব নিয়ে সিনেমাহলে ভিড় করেছেন অনেকে। সিনেমাটির প্রতি সবার আগ্রহ দিন দিন বেড়ে চলেছে।

বেশিরভাগ দর্শক ‘ওমর’ সিনেমায় শুরু থেকে শেষ পর্যন্ত থাকা টুইস্টের প্রশংসা করেছেন। তাদের মন্তব্য, পুরোটাই সাসপেন্স! এজন্য দর্শকেরা আটকে ছিলেন বড় পর্দায়। মুহাম্মদ মোস্তফা কামাল রাজের নির্মাণশৈলী ও অভিনয়শিল্পীদের নৈপুণ্য বেশ প্রশংসিত হচ্ছে। ৫-এ ৪ রেটিং দিচ্ছেন সবাই। সাধারণ দর্শকদের কথায়, ‘গল্পটাই হিরো! এমন গল্প নিয়ে বাংলাদেশে খুব একটা সিনেমা হয়নি। ব্যতিক্রম ও অসাধারণ একটি গল্প। শ্বাসরুদ্ধকর উত্তেজনা, হাসি, থ্রিলার সবকিছুতে ভরপুর। এক সেকেন্ডের জন্য বিরক্তি আসেনি। এ ধরনের বাংলা সিনেমা কখনো দেখিনি। কেউ এই সিনেমা দেখলে বাসায় গিয়ে আরো পাঁচজনকে দেখতে বলবে।’

‘ওমর’ সিনেমায় শরিফুল রাজ ও দর্শনা বণিক (ছবি: সিনেমাওয়ালা)

ওমর চরিত্রে অভিনয় করেছেন শরিফুল রাজ। তার প্রতি ভালো লাগা থেকে অনেক দর্শক সিনেমাটি দেখেছেন। তাদের বেশিরভাগই এই তারকার অভিনয় দক্ষতাকে প্রশংসায় ভাসিয়েছেন। পাশাপাশি নাসিরউদ্দিন খানের অভিনয়ের গুনগান গেয়েছেন ভক্তরা।

প্রয়াত নন্দিত কথাসাহিত্যিক ও চলচ্চিত্র নির্মাতা হুমায়ূন আহমেদ এবং চিত্রনায়ক মান্নাকে উৎসর্গ করা হয়েছে ‘ওমর’। এজন্য কৌতূহল থেকে সিনেমাটি দেখছেন অনেক দর্শক।

‘ওমর’ সিনেমার পোস্টার (ছবি: সিনেমাওয়ালা)

অভিনেত্রী নুসরাত ইমরোজ তিশা, “মুহাম্মদ মোস্তফা কামাল রাজের ক্যারিয়ারের শুরু থেকেই তাকে আমরা কাছ থেকে দেখেছি। ‘ওমর’ দেখে বুঝলাম সে এখন অনেক পরিণত। তার উন্নতিতে আমার খুব ভালো লাগছে। সিনেমাটিতে শুরু থেকে শেষ পর্যন্ত দর্শকদের যে সাসপেন্স দেওয়া দরকার, সবই এই গল্পে আছে। দর্শকদের সম্পৃক্ত করার আবেগ যতটা দরকার ততটুকুই আছে। প্রত্যেক অভিনয়শিল্পীর কাজ দারুণ লেগেছে। আমার মনে হয়েছে, একটি নৌকায় সব কলাকুশলী একসঙ্গে ট্রাভেল করছে। কেউই নৌকা থেকে পড়ে যায়নি। সবাই সমান্তরাল অভিনয় করেছেন। এটি একজন পরিচালকের কৃতিত্ব।”

অভিনেত্রী মেহজাবীন চৌধুরী বলেন, ‘আমরা যেটা ভাবছি কিংবা অনুমান করছি, কিছুক্ষণ পরপর সেই বিষয়টা বদলে যাচ্ছে। পুরোপুরি রোমাঞ্চকর জার্নি বলা যায় গল্পটিকে। যেকোনো সম্পর্কই মানুষের জীবনে অনেক গুরুত্বপূর্ণ। এখানে বাবা, ছেলে, ভাইবোনের সম্পর্ক দেখানো হয়েছে। শেষটা এতো আবেগপ্রবণ যে, সবারই ভালো লাগার মতো।’

অভিনেত্রী সাবিলা নূর বলেন, “আগে থেকেই শরিফুল রাজের অভিনয় ভালো লাগে। ‘ওমর দেখার পর সেই ভালো লাগা আরো বেড়ে গেলো। প্রত্যেকেই দুর্দান্ত অভিনয় করেছেন। বিভিন্ন জনরার মিশ্রণ বলা যায় এই সিনেমাকে। শেষটা দেখলে সবাই আবেগপ্রবণ হয়ে যাবেন।”

‘ওমর’ সিনেমায় শরিফুল রাজ ও নাসিরউদ্দিন খান (ছবি: সিনেমাওয়ালা)

পরিচালক চয়নিকা চৌধুরী সোশ্যাল মিডিয়ায় লিখেছেন, ‘মুহাম্মদ মোস্তফা কামাল রাজ যদি আমার বড় ভাই হতো তাহলে আজ তার পা ছুঁয়ে ধন্যবাদ জানাতাম। অবাক হয়ে গেলাম একজন পরিচালক পুরো একটি সিনেমায় নায়িকা ছাড়া শুধু গল্প, নির্মাণ ও অভিনয় দিয়ে টানটান উত্তেজনায় দর্শকদের বসিয়ে রাখলেন। এমন ঘটনা দেখিনি কখনোই। আমি শতভাগ নিশ্চিত কোনো দর্শক চোখের পলক ফেলতে পারেননি। চোখ ফেরাতেও পারেননি। এত সুন্দর সিনেমা! ‍মুহাম্মদ মোস্তফা কামাল রাজ তার আগের সব সিনেমাকে ছাপিয়ে বানিয়েছেন ‘ওমর’। প্রত্যেক শিল্পী এককথায় অসাধারণ।’

ঢাকার ব্লকবাস্টার সিনেমাসে ‘ওমর’ ঈদের প্রথম দুই দিন তিনটি শো টাইম থাকলেও তৃতীয় দিনে বেড়ে হয়েছে চারটি শো। যমুনা ফিউচার পার্কে অবস্থিত এই মাল্টিপ্লেক্সে সিনেমাটি দেখা যাচ্ছে সকাল ১১টা ৩৫ মিনিট, দুপুর ১টা ৩৫ মিনিট, বিকেল ৪টা ৩০ মিনিট ও সন্ধ্যা ৭টা ২৫ মিনিটে।

‘ওমর’ সিনেমায় শরিফুল রাজ (ছবি: মাস্টার কমিউনিকেশন্স)

আরেক অভিজাত মাল্টিপ্লেক্স স্টার সিনেপ্লেক্সে বিভিন্ন শাখায় প্রতিদিন ‘ওমর’ সিনেমার ১১টি প্রদর্শনী হচ্ছে। এগুলো হলো ঢাকার পান্থপথের বসুন্ধরা সিটি শপিং মল (সকাল ১১টা, দুপুর ১টা ৪৫ মিনিট, সন্ধ্যা ৭টা), ধানমন্ডির সীমান্ত সম্ভার (সকাল ১১টা ১৫ মিনিট, বিকেল ৪টা ৫০ মিনিট), মহাখালীর এসকেএস টাওয়ার (দুপুর ২টা ১০ মিনিট, সন্ধ্যা ৭টা ৪৫ মিনিট), মিরপুর-১ নম্বরের সনি স্কয়ার (দুপুর ২টা, সন্ধ্যা ৭টা ২০ মিনিট) এবং চট্টগ্রামের বালি আর্কেড শাখা (সকাল ১১টা ২০ মিনিট, বিকেল ৪টা ৫০ মিনিট)।

অ্যাকশন কাট এন্টারেটেইনমেন্টের পরিবেশনায় ঈদের দিন থেকে ২১টি সিনেমা হলে চলছে ‘ওমর’। বাকি ১৫টি পর্দা হলো– লায়ন সিনেমাস (কেরানীগঞ্জ), সিলভার স্ক্রিন, সিনেমা প্যালেস (চট্টগ্রাম), মিতালী (সরাইগাছি, রাজশাহী), চিত্রালী (খুলনা), রাজমণি (মুলাডুলি, পাবনা), রাধানাথ (রেলস্টেশন রোড, শ্রীমঙ্গল), তাজ (নওগাঁ), উল্কা (জয়দেবপুর, গাজীপুর), বিলাস (সাভার), মধুমিতা (ভৈরব), সোনিয়া (বগুড়া), সত্যবতী (শেরপুর), আনন্দ (কুলিয়ারচর), বিজিবি অডিটোরিয়াম (সিলেট)।

‘ওমর’ সিনেমার পোস্টার (ছবি: সিনেমাওয়ালা)

‘ওমর’ সিনেমায় শরিফুল রাজ ছাড়াও অভিনয় করেছেন নাসিরউদ্দিন খান, শহীদুজ্জামান সেলিম, ফজলুর রহমান বাবু, এরফান মৃধা শিবলু, আবু হুরায়রা তানভীর, নাফিস আহমেদ, রোজি সিদ্দিকী, তানজিলা হক মাইশা, আইমন সিমলা। মাস্টার কমিউনিকেশন্সের ব্যানারে এটি প্রযোজনা করেছেন খোরশেদ আলম। সিনেমাটির চিত্রনাট্য লিখেছেন সিদ্দিক আহমেদ। চিত্রগ্রহণ করেছেন রাজু রাজ। শিল্প নির্দেশনায় সামুরাই মারুফ।

সিনেমাটির গান গেয়েছেন দিলশাদ নাহার কনা, আরফিন রুমি, ‘নাসেক নাসেক’ তারকা অনিমেষ রায় ও ভারতের ঈশান মিত্র। গানের কথা লিখেছেন জনি হক, সোমেশ্বর অলি ও রাসেল মাহমুদ। সুর ও সংগীত পরিচালনায় নাভেদ পারভেজ এবং ভারতের স্যাভি। আইটেম গান ‘ভাইরাল বেবি’তে নেচেছেন ভারতীয় নায়িকা দর্শনা বণিক।

পড়া চালিয়ে যান

ঢালিউড

ঈদে মুক্তি পেলো রেকর্ডসংখ্যক ১১ সিনেমা, কোনটি কতটি সিনেমাহলে

সিনেমাওয়ালা রিপোর্টার

Published

on

ঈদুল ফিতরে রেকর্ডসংখ্যক ১১টি নতুন সিনেমা মুক্তি পেলো। এগুলো হলো গিয়াসউদ্দিন সেলিমের ‘কাজলরেখা’, মুহাম্মদ মোস্তফা কামাল রাজের ‘ওমর’, হিমেল আশরাফের ‘রাজকুমার’, মিশুক মনি পরিচালিত ‘দেয়ালের দেশ’, কামরুজ্জামান রোমানের ‘মোনা: জ্বীন-২’ ও ‘লিপস্টিক’, কাজী হায়াতের ‘গ্রিন কার্ড’, ছটকু আহমেদের ‘আহারে জীবন’, ফুয়াদ চৌধুরীর ‘মেঘনা কন্যা’, জসিম উদ্দিন জাকিরের ‘মায়া: দ্য লাভ’ এবং জাহিদ হোসেনের ‘সোনার চর’। কোনটি কত সিনেমাহলে চলছে জেনে নিন।

বাংলাদেশ চলচ্চিত্র প্রদর্শক সমিতির সূত্রে জানা যায়, এবারের ঈদের সিনেমা প্রদর্শনের জন্য প্রস্তুতি সম্পন্ন করেছে দেশের নিয়মিত ৬০-৭০টি সিনেমাহল। এছাড়া ঈদ উৎসবে খুলেছে গত ঈদুল আজহার পর থেকে বন্ধ থাকা বেশ কিছু সিনেমাহল। পাশাপাশি স্টার সিনেপ্লেক্স, ব্লকবাস্টার সিনেমাস, লায়ন সিনেমাস, চট্টগ্রামের সিলভার স্ক্রিন, সিরাজগঞ্জের রুটস সিনেক্লাবসহ মাল্টিপ্লেক্সে পর্দার সংখ্যা ৩৫। মাল্টিপ্লেক্সের মধ্যে সবচেয়ে বেশি শাখা স্টার সিনেপ্লেক্সের। এর সাতটি শাখায় ১৯টি পর্দা। সব মিলিয়ে প্রেক্ষাগৃহের সংখ্যা ২০০ ছুঁই ছুঁই। দর্শকদের স্বস্তির জন্য সব সিনেমাহল পরিষ্কার-পরিচ্ছন্ন করা হয়েছে। কিছু সিনেমাহলে রয়েছে আলোকসজ্জা। সিনেমাপাড়া থেকে শুরু করে সোশ্যাল মিডিয়ায় এখন ঈদের সিনেমা নিয়ে জম্পেশ আলোচনা।

‘রাজকুমার’ সিনেমার পোস্টারে শাকিব খান (ছবি: ভার্সেটাইল মিডিয়া)

রাজকুমার (১২৭টি সিনেমাহল)
ঢালিউড সুপারস্টার শাকিব খান অভিনীত হিমেল আশরাফের ‘রাজকুমার’ সিনেমাহলের সংখ্যায় অনেক এগিয়ে। ভার্সেটাইল মিডিয়ার প্রযোজনা ও পরিবেশনায় সব মাল্টিপ্লেক্সসহ দেশের ১২৭টি সিনেমাহলে দেখা যাচ্ছে এটি। এতে শাকিবের বিপরীতে বাংলাদেশের সিনেমায় নাম লিখিয়েছেন আমেরিকান তারকা কোর্টনি কফি। এছাড়া আছেন তারিক আনাম খান, এরফান মৃধা শিবলুসহ অনেকে। শাকিবের মায়ের চরিত্রে চমক মাহিয়া মাহি।

‘ওমর’ সিনেমার পোস্টার (ছবি: সিনেমাওয়ালা)

ওমর (২১টি সিনেমাহল)
মুহাম্মদ মোস্তফা কামাল রাজ পরিচালিত ‘ওমর’ অ্যাকশন কাট এন্টারেটেইনমেন্টের পরিবেশনায় মাল্টিপ্লেক্সসহ মুক্তি পেয়েছে ২১টি সিনেমাহলে। এতে অভিনয় করেছেন শরিফুল রাজ, নাসিরউদ্দিন খান, শহীদুজ্জামান সেলিম, ফজলুর রহমান বাবু, এরফান মৃধা শিবলু, আবু হুরায়রা তানভীর, নাফিস আহমেদ, রোজি সিদ্দিকী, তানজিলা হক মাইশা, আইমন সিমলা। মাস্টার কমিউনিকেশন্সের ব্যানারে এটি প্রযোজনা করেছেন খোরশেদ আলম। প্রয়াত কথাসাহিত্যিক-নির্মাতা হুমায়ূন আহমেদ ও চিত্রনায়ক-প্রযোজক মান্নাকে উৎসর্গ করা হয়েছে ‘ওমর’। সিনেমাটির চিত্রনাট্য লিখেছেন সিদ্দিক আহমেদ। চিত্রগ্রহণ করেছেন রাজু রাজ। শিল্প নির্দেশনায় সামুরাই মারুফ।

‘দেয়ালের দেশ’ সিনেমার পোস্টারে শরিফুল রাজ ও শবনম বুবলী (ছবি: মেট্রো সিনেমা ফিল্মওয়ার্কস)

দেয়ালের দেশ (১৩টি সিনেমাহল)
সরকারি অনুদান ও মেট্রো সিনেমা ফিল্মওয়ার্কস প্রযোজিত ‘দেয়ালের দেশ’ অভি কথাচিত্রের পরিবেশনায় মুক্তি পেয়েছে ১৩টি সিনেমাহলে। এতে প্রথমবার জুটি বেঁধেছেন শরিফুল রাজ ও শবনম বুবলী। এর কাহিনি, সংলাপ, চিত্রনাট্য ও পরিচালনায় মিশুক মনি। এতে আরো অভিনয় করেছেন জিনাত শানু স্বাগতা, শাহাদাৎ হোসেন, আজিজুল হাকিম, সমাপ্তি মাসুক, সাবেরি আলম, এ কে আজাদ সেতু। আবহ সংগীতে ইমন চৌধুরী।

‘কাজলরেখা’ সিনেমার পোস্টার (ছবি: বাঙাল ফিল্মস)

কাজলরেখা (১০টি সিনেমাহল)
গিয়াস উদ্দিন সেলিম পরিচালিত গীত নির্ভর সিনেমা ‘কাজলরেখা’ জাজ মাল্টিমিডিয়ার পরিবেশনায় মুক্তি পেয়েছে ঢাকার মাল্টিপ্লেক্স স্টার সিনেপ্লেক্স, ব্লকবাস্টার সিনেমাস, সিনেস্কোপ, লায়ন সিনেমাস ও চট্টগ্রামের সিলভার স্ক্রিনে। সরকারি অনুদানে বাঙাল ফিল্মসের ব্যানারে নির্মিত সিনেমাটিতে অভিনয় করেছেন মন্দিরা চক্রবর্তী, সাদিয়া আয়মান, রাফিয়াত রশিদ মিথিলা, শরিফুল রাজ, খাইরুল বাসার, আজাদ আবুল কালাম, ইরেশ যাকের, সাহানা রহমান সুমি, গাউসুল আলম শাওন ও ইরফান সেলিম সুজয়।

‘মায়া: দ্য লাভ’ সিনেমার পোস্টার (ছবি: ব্রাদার্স প্রোডাকশন হাউস)

মায়া: দ্য লাভ (৯টি সিনেমাহল)
জসিম উদ্দিন জাকিরের কাহিনি, সংলাপ, চিত্রনাট্য ও পরিচালনায় ‘মায়া: দ্য লাভ’ মুক্তি পেয়েছে ৯টি সিনেমাহলে। এতে চিত্রনায়িকা শবনম বুবলীর বিপরীতে অভিনয় করেছেন সাইমন সাদিক, জিয়াউল রোশান ও আনিসুর রহমান মিলন। আলীনুর আশিক ভূঁইয়া প্রযোজিত সিনেমাটির পরিবেশনায় কাজ করছে ব্রাদার্স প্রোডাকশন হাউস।

‘লিপস্টিক’ সিনেমার পোস্টার (ছবি: ক্লিওপেট্রা ফিল্মস)

লিপস্টিক (৭টি সিনেমাহল)
কামরুজ্জামান রোমান পরিচালিত আরেক সিনেমা ‘লিপস্টিক’ অভি কথাচিত্রের পরিবেশনায় মুক্তি পেয়েছে ৭টি সিনেমাহলে। এতে জুটি বেঁধেছেন আদর আজাদ ও পূজা চেরি। এছাড়া আছেন শহীদুজ্জামান সেলিম, মিশা সওদাগর, ফারজানা ছবি, মনিরা মিঠু, নাদের চৌধুরী, মাহমুদুল ইসলাম মিঠু, এরফান মৃধা শিবলু, চিকন আলি, তনুশ্রী তন্বী, পারভেজ সুমন, এল কে সীমান্ত। এর কাহিনি ও সংলাপ লিখেছেন আব্দুল্লাহ জহির বাবু। প্রযোজনায় ক্লিওপেট্রা ফিল্মস।

‘মোনা: জ্বীন-২’ সিনেমার পোস্টার (ছবি: জাজ মাল্টিমিডিয়া)

মোনা: জ্বীন-২ (৬টি সিনেমাহল)
জাজ মাল্টিমিডিয়ার প্রযোজনা ও পরিবেশনায় ‘মোনা: জ্বীন-২’ মুক্তি পেয়েছে তিনটি মাল্টিপ্লেক্সে। এগুলো হলো স্টার সিনেপ্লেক্স, ব্লকবাস্টার সিনেমাস ও লায়ন সিনেমাস। কামরুজ্জামান রোমানের পরিচালনায় এতে অভিনয় করেছেন তারিক আনাম খান, দীপা খন্দকার, কাজী নওশাবা আহমেদ, আরিয়ানা জামান, সামিনা বাশার, সাজ্জাদ হোসেন, মাহমুদুল ইসলাম মিঠু, রেবেকা, শেহজাদ ওমর, শামীম, সাদিয়া মিম ও সুপ্রভাত। অতিথি চরিত্রে আছেন প্রয়াত অভিনেতা আহমেদ রুবেল। তাকেই সিনেমাটি উৎসর্গ করা হয়েছে।

‘মেঘনা কন্যা’ সিনেমার পোস্টার (ছবি: আনোয়ার আজাদ ফিল্মস)

মেঘনা কন্যা (৫টি সিনেমাহল)
ফুয়াদ চৌধুরীর পরিচালনা ও অভি কথাচিত্রের পরিবেশনায় ৫টি মাল্টিপ্লেক্সে মুক্তি পেয়েছে। এতে অভিনয় করেছেন কাজী নওশাবা আহমেদ, সেমন্তী সৌমি, ফজলুর রহমান বাবু, শতাব্দী ওয়াদুদ, মোহাম্মদ বারী, জয়শ্রী কর জয়া, সানজিদা মিলা, সাইকা আহমেদ, সাজ্জাদ হোসাইন, আমিরুল ইসলাম, শেখ স্বপ্না, উপমা। সরকারি অনুদানে এটি প্রযোজনা করেছে আনোয়ার আজাদ ফিল্মস ও এস জে মোশনস পিকচার্স।

‘গ্রিন কার্ড’ সিনেমার পোস্টার (ছবি: কাজী হায়াৎ ফিল্মস)

গ্রিন কার্ড (৩টি সিনেমাহল)
কাজী হায়াৎ ও রওশন আরা নীপা পরিচালিত ‘গ্রিন কার্ড’ জাজ মাল্টিমিডিয়ার পরিবেশনায় মুক্তি পেয়েছে ৩টি সিনেমাহলে। এর পুরো শুটিং হয়েছে আমেরিকায়। এতে অভিনয় করেছেন কাজী মারুফ।

‘আহারে জীবন’ সিনেমার পোস্টার (ছবি: ঠিকানা চলচ্চিত্র)

আহারে জীবন (১টি সিনেমাহল)
চিত্রনায়ক ফেরদৌস ও চিত্রনায়িকা পূর্ণিমা জুটির ‘আহারে জীবন’ ঠিকানা চলচ্চিত্রের প্রযোজনা ও কিবরিয়া ফিল্মসের পরিবেশনায় মুক্তি পেয়েছে শুধু মাল্টিপ্লেক্সে। এর কাহিনি, চিত্রনাট্য, সংলাপ ও পরিচালনায় ছটকু আহমেদ। সরকারি অনুদানে নির্মিত সিনেমাটিতে আরো অভিনয় করেছেন সুচরিতা, মিশা সওদাগর, কাজী হায়াৎ, তুষার খান, জয় চৌধুরী, মৌমিতা মৌ, মারুফ আকিব, অহনা, শাহনূর, আনোয়ার সিরাজী, রেবেকা, শিমু খান, আরিয়ান আরিশ।

‘সোনার চর’ সিনেমার পোস্টার (ছবি: এক্সেল ফিল্মস)

সোনার চর
এক্সেল ফিল্মসের প্রযোজনা ও অভি কথাচিত্রের পরিবেশনায় মুক্তি পেয়েছে ‘সোনার চর’। জাহাঙ্গীর সিকদার প্রযোজিত ও জাহিদ হোসেন পরিচালিত সিনেমাটিতে অভিনয় করেছেন মৌসুমী, জায়েদ খান, ওমর সানি, স্নিগ্ধা, শহীদুজ্জামান সেলিম।

পড়া চালিয়ে যান

ঢালিউড

বিনাকর্তনে ছাড়পত্রের পর মেট্রোরেলে ‘ওমর’ সিনেমার অভিনব প্রচারণা

সিনেমাওয়ালা রিপোর্টার

Published

on

মেট্রোরেল ‘ওমর’ সিনেমার প্রচারণা (ছবি: সিনেমাওয়ালা)

মুহাম্মদ মোস্তফা কামাল রাজ পরিচালিত ‘ওমর’ সিনেমার অভিনব প্রচারণা চালানো হলো মেট্রোরেলে। আজ (২ এপ্রিল) ঢাকার উত্তরা উত্তর স্টেশন থেকে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় স্টেশন পর্যন্ত এর বিভিন্ন দৃশ্য সংবলিত প্ল্যাকার্ড নিয়ে ঘুরেছেন কয়েকজন তরুণ। এছাড়া কাওরান বাজার স্টেশনে দেখা গেছে তাদের। ফলে মেট্রোরেলের যাত্রীদের মধ্যে সিনেমাটির প্রতি ব্যাপক আগ্রহ তৈরি হয়েছে।

সোশ্যাল মিডিয়া ফেসবুকে ‘ওমর’ সিনেমার পেজে মেট্রোরেলে প্রচারণার কিছু স্থিরচিত্র প্রকাশিত হয়েছে। অনেকে এই পোস্ট শেয়ার করে সংশ্লিষ্টদের বাহবা দিয়েছেন। নির্মাতা আদনান আল রাজীবের দৃষ্টিতে ‘খুব অভিনব।’ তার শেয়ার করা পোস্টে অভিনেতা চঞ্চল চৌধুরী মন্তব্য করেছেন, ‘একদম।’ আরেক অভিনেতা মিলন ভট্টাচার্যের মন্তব্য, ‘দারুণ আইডিয়া।’

মাসরিকুল আলম নামের একজন একই পোস্ট শেয়ার করে লিখেছেন, ‘ফেসবুকের প্রমোশনের ওপর নির্ভর না করে এভাবেই প্রমোশন করা উচিত।’

শরিফুল রাজ ও মুহাম্মদ মোস্তফা কামাল রাজ (ছবি: সিনেমাওয়ালা)

এর আগে মধ্যরাতে দরিদ্রদের মাঝে সেহরি বিতরণ করে সাধুবাদ পেয়েছেন পরিচালক রাজ ও অভিনেতা রাজ।

এদিকে সেন্সর বোর্ড থেকে বিনা কর্তনে ছাড়পত্র পেয়েছে ‘ওমর’। সিনেমাটির দৈর্ঘ্য ২ ঘণ্টা ৫ মিনিট ৩১ সেকেন্ড। মাস্টার কমিউনিকেশন্সের ব্যানারে এটি প্রযোজনা করেছেন খোরশেদ আলম।

‘ওমর’ সিনেমার পোস্টার (ছবি: সিনেমাওয়ালা)

প্রয়াত কথাসাহিত্যিক-নির্মাতা হুমায়ূন আহমেদ ও চিত্রনায়ক-প্রযোজক মান্নাকে উৎসর্গ করা হয়েছে ‘ওমর’। সিনেমাটি দেখলে এর কারণ জানা যাবে বলে জানিয়েছেন পরিচালক রাজ।

‘ওমর’ সিনেমায় অভিনয় করেছেন শরিফুল রাজ, নাসিরউদ্দিন খান, শহীদুজ্জামান সেলিম, ফজলুর রহমান বাবু, এরফান মৃধা শিবলু, আবু হুরায়রা তানভীর, নাফিস আহমেদ, রোজি সিদ্দিকী, তানজিলা হক মাইশা।

‘ওমর’ সিনেমায় শরিফুল রাজ ও দর্শনা বণিক (ছবি: সিনেমাওয়ালা)

কয়েকদিন আগে ‘ওমর’-এর ১ মিনিট ৩৩ সেকেন্ডের এক ঝলক প্রকাশিত হয়েছে। এতে থ্রিলার ও টানটান উত্তেজনায় ভরা গল্পের আভাস পাওয়া গেছে। এরপর আইটেম গান ‘ভাইরাল বেবি’র রিল এসেছে। এতে নেচেছেন ভারতীয় নায়িকা দর্শনা বণিক। সিনেমাটির নাম দিয়েছেন অভিনেত্রী মেহজাবীন চৌধুরী।

‘ওমর’ সিনেমার পোস্টার (ছবি: সিনেমাওয়ালা)

সিনেমাটির গান গেয়েছেন দিলশাদ নাহার কনা, আরফিন রুমি, ‘নাসেক নাসেক’ তারকা অনিমেষ রায় ও ভারতের ঈশান মিত্র। গানের কথা লিখেছেন জনি হক, সোমেশ্বর অলি ও রাসেল মাহমুদ। সুর ও সংগীত পরিচালনায় নাভেদ পারভেজ এবং ভারতের স্যাভি।

‘ওমর’ সিনেমার চিত্রনাট্য লিখেছেন সিদ্দিক আহমেদ। চিত্রগ্রহণ করেছেন রাজু রাজ। শিল্প নির্দেশনায় সামুরাই মারুফ।

পড়া চালিয়ে যান

সিনেমাওয়ালা প্রচ্ছদ