Connect with us

হলিউড

হলিউডে পাঁচ মাসের একটি ধর্মঘটের ইতি ঘটছে, অভিনয়শিল্পীদের দাবির কী হবে?

সিনেমাওয়ালা ডেস্ক

Published

on

হলিউডের গল্পকার-চিত্রনাট্যকারদের ইউনিয়নের ধর্মঘট (ছবি: এক্স)

একনজরে

  • স্ট্রিমিং প্ল্যাটফর্মে পারিশ্রমিক বৃদ্ধি এবং কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা (এআই) ব্যবহারের প্রভাবকে ঘিরে ধর্মঘটের সূত্রপাত।
  • তিন বছরের নতুন শ্রমচুক্তির ব্যাপারে অবশ্যই ডব্লিউজিএ নেতা ও সাধারণ সদস্যদের অনুমোদন থাকতে হবে।
  • ডব্লিউজিএ বলছে, তাদের নিজেদের আর্থিক লাভ ও সুরক্ষার জন্য অসাধারণ শ্রমচুক্তি হচ্ছে।
  • হলিউড এখনো অভিনয়শিল্পীদের ধর্মঘট অবসানের চুক্তির অপেক্ষায় আছে।

হলিউডে ধর্মঘটে থাকা গল্পকার-চিত্রনাট্যকারেরা অবশেষে বাঘা প্রযোজনা-পরিবেশনা সংস্থাগুলোর সঙ্গে তিন বছর মেয়াদি একটি প্রাথমিক শ্রমচুক্তিতে পৌঁছেছেন। এর মধ্য দিয়ে চলমান দুটি ধর্মঘটের মধ্যে একটির ইতি ঘটবে বলে আশা করা হচ্ছে। লেখকদের পাশাপাশি অভিনয়শিল্পীদের আন্দোলনের পরিপ্রেক্ষিতে অনেক সিনেমা ও টিভি অনুষ্ঠানের কাজ বন্ধ রয়েছে।

গল্পকার-চিত্রনাট্যকারদের ইউনিয়নকে সাধুবাদ জানিয়ে একটি বিবৃতি দিয়েছেন যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন। তিনি সবাইকে সবার ন্যায্য প্রদানের অনুরোধ করেছেন।

হলিউডের গল্পকার-চিত্রনাট্যকারদের ইউনিয়নের ধর্মঘট (ছবি: এক্স)

হলিউডে সিনেমা ও টেলিভিশন অনুষ্ঠানের জন্য কাজ করা ১১ হাজার ৫০০ জন গল্পকার-চিত্রনাট্যকারদের প্রতিনিধিত্ব করে রাইটার্স গিল্ড অব আমেরিকা (ডব্লিউজিএ)। তিন বছরের চুক্তিটি কার্যকর করতে সমিতির নেতাদের পাশাপাশি সব সদস্যের অনুমোদন পেতে হবে।

নতুন চুক্তিকে নিজেদের আর্থিক লাভ ও সুরক্ষার জন্য অসাধারণ হিসেবে বর্ণনা করেছে ডব্লিউজিএ। এক বিবৃতিতে মধ্যস্থতায় অংশ নেওয়া কমিটির সদস্যরা বলেন, ‘ডব্লিউজিএ সদস্যদের দৃঢ় সংহতি এবং টানা ১৪৬ দিন (প্রায় পাঁচ মাস) ধরে ধর্মঘটে আমাদের সঙ্গে যোগ দেওয়া ইউনিয়নের সতীর্থদের অভূতপূর্ব সমর্থনের সুবাদে নতুন চুক্তি সম্ভব হচ্ছে। গল্পকার-চিত্রনাট্যকারেরাই যেকোনও কন্টেন্টের মূল অংশ তৈরি করে, যেগুলোর মাধ্যমে প্রযোজনা-পরিবেশনা সংস্থা বিলিয়ন বিলিয়ন ডলার ঘরে তোলে।’

গত ২ মে থেকে ধর্মঘট করে আসছে ডব্লিউজিএ। পারিশ্রমিক বৃদ্ধি, আরো ভালো কর্মপরিবেশ, কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তার ব্যবহার নিয়ন্ত্রণ এবং স্ট্রিমিং প্ল্যাটফর্মের কন্টেন্টের জনপ্রিয়তা অনুযায়ী ন্যায্য সম্মানীসহ বিভিন্ন বিষয়ে আলোচনা ফলপ্রসূ না হওয়ায় রাজপথে নামেন সমিতির সদস্যরা।

হলিউডের সিনেমা ও টেলিভিশন অনুষ্ঠান প্রযোজকদের জোট অ্যালায়েন্স অব মোশন পিকচার অ্যান্ড টেলিভিশন প্রডিউচার্স (এএমপিটিপি)। ওয়াল্ট ডিজনি, নেটফ্লিক্স, ওয়ার্নার ব্রাদার্স ডিসকভারি এবং অন্যান্য প্রধান প্রযোজনা-পরিবেশনা সংস্থাগুলোর প্রতিনিধিত্বকারী বাণিজ্য গোষ্ঠী এটি। একটি সংক্ষিপ্ত বিবৃতিতে জোটের নেতারা বলেন, ‘ডব্লিউজিএ এবং এএমপিটিপি একটি অস্থায়ী চুক্তিতে পৌঁছেছে।’

কয়েক মাসের অচলাবস্থা কাটাতে হলিউডের চার হেভিওয়েট প্রযোজক ডিজনি’র প্রধান নির্বাহী বব ইগার, ওয়ার্নার ব্রাদার্স ডিসকভারির সিইও ডেভিড জাসলাভ, নেটফ্লিক্সের সহ-সিইও টেড সারানডোস এবং এনবিসিইউনিভার্সেল স্টুডিও গ্রুপের চেয়ার ডোনা ল্যাংলি চলতি সপ্তাহে আলোচনায় যোগ দেন।

ধর্মঘট করা লেখক-অভিনয়শিল্পীদের দাবি অবাস্তব বলে সমালোচনা করেছিলেন ডিজনি’র প্রধান নির্বাহী বব আইজিয়ার। তবে পরবর্তী সময়ে সৃজনশীল লেখকদের প্রতি সম্মান জানিয়ে সমঝোতামূলক একটি বার্তা লিখে পাঠান তিনি।

জানা যায়, প্রস্তাবিত চুক্তিটি এখনো প্রাথমিক পর্যায়ে রয়েছে। ডব্লিউজিএ’র আলোচক কমিটির তথ্যানুযায়ী, এটি চূড়ান্ত চুক্তিতে রূপ নেওয়ার পরেই বিস্তারিত শেয়ার করা হবে। এরপর আলোচকরা চুক্তিটি সমিতির নেতৃত্বের কাছে সুপারিশ করা হবে কিনা সেই বিষয়ে ভোট দেবেন। তারপর সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে তারা এটি ভোটের জন্য সাধারণ সদস্যদের কাছে উপস্থাপন করবেন কিনা।

হলিউডের অভিনয়শিল্পীদের ইউনিয়ন এসএজি-এএফটিআরএ’র ধর্মঘট (ছবি: এক্স)

ডব্লিউজিএ এবং প্রযোজনা-পরিবেশনা সংস্থাগুলোর মধ্যকার মীমাংসাকে মাইলফলক হিসেবে দেখা হলেও হলিউডে সহসাই স্বাভাবিক পরিস্থিতি ফিরছে না। কারণ অভিনয়শিল্পীদের সমিতি স্ক্রিন অ্যাক্টরস গিল্ড–আমেরিকান ফেডারেশন অব টেলিভিশন অ্যান্ড রেডিও আর্টিস্টস (এসএজি-এএফটিআরএ) এখনো ধর্মঘট অব্যাহত রেখেছে। এ’র সদস্য সংখ্যা ১ লাখ ৬০ হাজার। তাদের মধ্যে আছেন সিনেমা ও টেলিভিশন অভিনয়শিল্পী, স্টান্ট পারফরমার, ভয়েস ওভার শিল্পী ও অন্যান্য মিডিয়া পেশাদারকর্মীরা।

মিল্কেন ইনস্টিটিউটের অর্থনীতিবিদ কেভিন ক্লোডেনের ধারণা, এমন অচলাবস্থায় ক্যালিফোর্নিয়া এবং নিউ মেক্সিকো, জর্জিয়া ও নিউইয়র্কের শোবিজ অঙ্গনে আর্থিক ক্ষতির পরিমাণ অন্তত ৫০০ কোটি ডলার হতে পারে।

হলিউডে ৬৩ বছর পর অভিনেতা-অভিনেত্রী ও চিত্রনাট্যকারেরা আবার একযোগে ধর্মঘট পালন করেছেন। ১৯৬০ সালে চিত্রনাট্যকারেরা ২১ সপ্তাহ এবং অভিনয়শিল্পীরা ছয় সপ্তাহ কাজ বন্ধ রেখেছিলেন।

হলিউডে আবার একসঙ্গে দুটি ধর্মঘটের কারণে সিনেমা ও টিভি সিরিজের নির্মাণ বন্ধ আছে। এ কারণে বিভিন্ন টিভি চ্যানেলের রাতের জনপ্রিয় টক শোগুলো পুনঃপ্রচার হয়েছে। চলতি মাসে লেখকদের ছাড়াই ‘দ্য ড্রিউ ব্যারিমোর শো’সহ দিনের টক শো আবার চালুর প্রচেষ্টা আন্দোলনকারীদের সমালোচনার মুখে বাধাগ্রস্ত হয়েছে।

ধর্মঘটে ক্যামেরা অপারেটর, কাঠমিস্ত্রি, প্রোডাকশন অ্যাসিস্ট্যান্ট এবং অন্যান্য ক্রু সদস্যদের পাশাপাশি খাদ্যদ্রব্য সরবরাহকারী, ফুল বিক্রেতা, পোশাক সরবরাহকারী এবং সিনেমা ও টেলিভিশন অনুষ্ঠানে নির্মাণে সহায়ক অন্যান্য ক্ষুদ্র ব্যবসায়ীদের ওপর প্রভাব ফেলেছে ধর্মঘট।

২০০৭-০৮ সালে ১০০ দিনের ধর্মঘটে নতুন মিডিয়ার প্রেক্ষাপটে সিনেমা ও টিভি অনুষ্ঠান ডাউনলোডের পাশাপাশি বিজ্ঞাপন-সমর্থিত ইন্টারনেট সেবার মাধ্যমে সরবরাহ করা কন্টেন্টকে সামনে রেখে ডব্লিউজিএ’র সুরক্ষা প্রসারিত করার ওপর আলোকপাত করা হয়েছিলো। আর এবারের ধর্মঘটে স্ট্রিমিং প্ল্যাটফর্মের কন্টেন্ট থেকে লভ্যাংশ দাবি করেছেন লেখকেরা। একইসঙ্গে সৃজনশীল কর্মপ্রক্রিয়ায় কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা ব্যবহারের ক্ষেত্রে নিয়ন্ত্রণ ব্যবস্থা দাবি তাদের। আশঙ্কা করা হয়েছে, প্রযোজনা-পরিবেশনা সংস্থাগুলো এআইকে স্ক্রিপ্ট সংশোধনের জন্য তুলে দেবেন এবং লেখককে এটি পুনর্লিখন কিংবা ঘষামাজার জন্য কম হারে অর্থ প্রদান করা হবে। কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তাকে প্রশিক্ষণের জন্য স্ক্রিপ্ট ব্যবহার করলে বুদ্ধিবৃত্তিক স্বত্ব চুরির বিষয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করেছে অনেকে।

১৯৮৮ সালের পর চিত্রনাট্যকারদের সবচেয়ে দীর্ঘমেয়াদী ধর্মঘট দেখা গেছে এবার। এর সমাপ্তি উদযাপন করেছেন হলিউড প্রযোজকেরা। তবে এখনো অর্ধেক কাজ বাকি। অভিনয়শিল্পীদের কাজে ফিরিয়ে আনার পথ খুঁজে বের করতে হবে তাদের।

এক বিবৃতিতে এসএজি-এএফটিআরএ’র নেতাকর্মীরা প্রযোজনা-পরিবেশনা সংস্থাগুলোর কর্তাব্যক্তিদের আলোচনার টেবিলে ফিরে আসার এবং তাদের দাবি মেনে ন্যায্য চুক্তি করার আহ্বান জানিয়েছেন। অভিনয়শিল্পীদের দাবির মধ্যে রয়েছে– ন্যূনতম মজুরি, তাদের পারফরম্যান্স প্রতিস্থাপনকারী কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা ব্যবহারের বিরুদ্ধে সুরক্ষা ব্যবস্থা এবং স্ট্রিমিং প্ল্যাটফর্মের কন্টেন্ট থেকে লভ্যাংশ।

স্ক্রিন অ্যাক্টরস গিল্ড (এসএজি) ডিজিটাল প্রতিরূপের মাধ্যমে বেদখল হওয়া থেকে অভিনয়শিল্পীদের নিরাপদ রাখার দাবি তুলেছে। অভিনয়শিল্পীদের বদলি হিসেবে কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তার (এআই) সহায়তায় এবং কম্পিউটারে তৈরি মুখ ও কণ্ঠ ব্যবহার না করার নিশ্চয়তা চায় এসএজি। এছাড়া শীর্ষস্থানীয় স্ট্রিমিং প্ল্যাটফর্মগুলোর কাছে লভ্যাংশের ন্যায্য বিভাজন এবং আরো ভালো কর্মপরিবেশ চায় এসএজি।

সর্বশেষ ১৯৮০ সালের জুলাইয়ে এসএজি-এএফটিআরএ সদস্যরা ধর্মঘট করেন। তখন ক্যাবল টেলিভিশন এবং ভিডিওটেপের জন্য নির্মিত টিভি অনুষ্ঠান ও সিনেমা বিক্রির লভ্যাংশকে কেন্দ্র করে প্রযোজক-পরিবেশকদের সঙ্গে ইউনিয়নটির সদস্যদের দ্বন্দ্ব বেঁধেছিলো। উভয় পক্ষ নতুন সমঝোতার শর্তাবলী নিয়ে বিতর্কে জড়িয়ে পড়ে। সেইসব শর্তে দুটি পক্ষের দাবি ও বিভিন্ন বিষয়ে উদ্বেগের প্রতিফলন দেখা যায়।অভিনয়শিল্পীদের সেই ধর্মঘট ১০ সপ্তাহ স্থায়ী হয়েছিলো। এ কারণে প্রায় ১০ কোটি ডলারের লোকসান হয়েছিলো। বর্তমান সময়ে যা প্রায় ৩৭ কোটি মার্কিন ডলারের সমান।

গত জুন মাসে ডিরেক্টরস গিল্ড অব আমেরিকা একটি চুক্তি নিয়ে সফল আলোচনা করতে সক্ষম হয়েছে। ফলে ধর্মঘটে অংশ নিচ্ছেন না পরিচালকেরা।

হলিউড

ঢাকায় বড় পর্দায় আবার গডজিলা বনাম কং

সিনেমাওয়ালা রিপোর্টার

Published

on

‘গডজিলা এক্স কং: দ্য নিউ এম্পায়ার’ সিনেমার পোস্টার (ছবি:ওয়ার্নার ব্রাদার্স পিকচার্স)

মনস্টার জগতের দুই মহারথী গডজিলা ও কংয়ের দ্বৈরথ সিনেমাপ্রেমীদের কাছে বরাবরই বেশ উপভোগ্য। বিশাল আকারের এই দুটি চরিত্র আবার একসঙ্গে আসছে বড় পর্দায়। ‘গডজিলা এক্স কং: দ্য নিউ এম্পায়ার’ নামের সিনেমায় দেখা যাবে তাদের তাণ্ডব। ওয়ার্নার ব্রাদার্স পিকচার্সের পরিবেশনায় আগামীকাল (২৯ মার্চ) আন্তর্জাতিকভাবে মুক্তি পেতে যাচ্ছে এটি। একই দিনে বাংলাদেশের স্টার সিনেপ্লেক্সে মুক্তি পাবে এই সিনেমা।

সর্বশেষ ২০২১ সালে মুক্তিপ্রাপ্ত ‘গডজিলা ভার্সেস কং’ সিনেমায় কিং কং ও গডজিলার দ্বৈরথ দেখা গেছে। করোনা মহামারিতে এটি দর্শকদের দারুণ সাড়া পায়। এবার আসছে এর বহুল প্রতীক্ষিত সিক্যুয়েল। লিজেন্ডারি পিকচার্সের প্রযোজনায় আগের পর্বের সাফল্যের সুবাদে এবারের কিস্তিও পরিচালনা করেছেন অ্যাডাম উইনগার্ড। আগের সিনেমার অভিনয়শিল্পীদের মধ্যে ফিরছেন রেবেকা হল, ব্রায়ান টাইরি হেনরি ও কেইলি হটেল। নতুন যুক্ত হয়েছেন ড্যান স্টিভেনস, অ্যালেক্স ফার্নস, ফালা চেন, র‌্যাচেল হাউস।

‘গডজিলা এক্স কং: দ্য নিউ এম্পায়ার’ সিনেমার দৃশ্য (ছবি:ওয়ার্নার ব্রাদার্স পিকচার্স)

‘গডজিলা এক্স কং: দ্য নিউ এম্পায়ার’ হলো ‘মনস্টারভার্স’ ফ্রাঞ্চাইজের পঞ্চম কিস্তি, গডজিলা ফ্রাঞ্চাইজের ৩৮তম পর্ব এবং কিং কং ফ্রাঞ্চাইজের ১৩তম সিনেমা। ১ ঘণ্টা ৫৫ মিনিটের সিনেমাটি তৈরিতে খরচ হয়েছে ১৫ কোটি ডলার।

‘গডজিলা এক্স কং: দ্য নিউ এম্পায়ার’ সিনেমার দৃশ্য (ছবি:ওয়ার্নার ব্রাদার্স পিকচার্স)

গডজিলা আর কং প্রাগৈতিহাসিক দুই দানব। কং নির্জন রহস্যময় দ্বীপ স্কাল আইল্যান্ডের বাসিন্দা আর গডজিলা প্রশান্ত মহাসাগরের জলরাশির গভীর তলদেশ থেকে উঠে আসে। নতুন সিনেমায় বিশ্বে লুকিয়ে থাকা এক বিশাল অনাবিষ্কৃত হুমকি নিয়ে তাদের মধ্যে লড়াই হবে। গডজিলা আণবিক নিশ্বাস ছাড়লেও শেষ পর্যন্ত কাবু হয় কংয়ের বাহুবলের কাছে, নাকি ‘অবমানব’ কংয়ের মানবিক সত্তার কাছে? সেই উত্তর মিলবে গল্পে। টাইটানদের ইতিহাস, তাদের উৎস, স্কাল আইল্যান্ড এবং তার বাইরের রহস্যগুলো তুলে ধরা হয়েছে এই সিনেমায়। সেই সঙ্গে রয়েছে পৌরাণিক যুদ্ধ।

পড়া চালিয়ে যান

হলিউড

চতুর্থবার মা হলেন ‘ওয়ান্ডার ওম্যান’, এবারও কোলে মেয়ে

সিনেমাওয়ালা ডেস্ক

Published

on

গল গ্যাদত (ছবি: ইনস্টাগ্রাম)

হলিউডের ‘ওয়ান্ডার ওম্যান’ তারকা গল গ্যাদত চতুর্থবার মা হলেন। গত ৬ মার্চ তার কোল জুড়ে এসেছে আরেকটি কন্যাসন্তান। এতে চমকে গেছেন ভক্তরা। কারণ তার গর্ভধারণের কথা খুব একটা প্রকাশ্যে আসেনি।

সোশ্যাল মিডিয়ায় ছবি পোস্ট করে আচমকাই সুখবর দিয়েছেন ৩৮ বছর বয়সী এই ইসরায়েলি অভিনেত্রী। মা হওয়ার খবর জানিয়ে তিনি লিখেছেন, ‘আমার মিষ্টি মেয়ে, তোমাকে স্বাগত। সন্তান ধারণ করা সহজ নয়। তবে তুমি আমার জীবনে একরাশ আলো নিয়ে এসেছো। তাই তোমার নাম রেখেছি অরি। হিব্রু ভাষায় যার অর্থ আলো। আমাদের হৃদয় তোমায় পেয়ে পূর্ণ।’

 

View this post on Instagram

 

A post shared by Gal Gadot (@gal_gadot)

গল গ্যাদতের পোস্ট করা ছবিতে দেখা গেছে, তার কোলে শুয়ে আছে সদ্যজাত সন্তান। মেয়েকে নিয়ে তৃপ্তিতে চোখ বুজে আছেন তিনি।

গল গ্যাদত আরো তিন কন্যাসন্তানের মা। ইসরায়েলি রিয়েল এস্টেট ডেভেলপার জ্যারোন ভার্সানের সঙ্গে তার দাম্পত্য জীবন ১৬ বছরের। ২০০৮ সালে বিয়ে করেন তার। তাদের প্রথম মেয়ে আলমার জন্ম হয় ২০১১ সালে। এরপর মায়া আসে ২০১৭ সালে। তিনি তৃতীয়বার মা হন ২০২১ সালে। তিন বছর পর আবার মাতৃত্বের স্বাদ পেলেন এই তারকা।

গল গ্যাদত (ছবি: ইনস্টাগ্রাম)

গল গ্যাদতের হাতে এখন আছে দুটি সিনেমা। এরমধ্যে ‘স্নো হোয়াইট’ সিনেমায় সর্বনাশী রানির ভূমিকায় দেখা যাবে তাকে। মার্ক ওয়েবের পরিচালনায় এতে নাম ভূমিকায় থাকছেন র‌্যাচেল জেগলার। এর চিত্রনাট্য লিখেছেন ‘বার্বি’র পরিচালক গ্রেটা গারউইগ এবং এরিন ক্রেসিডা উইলসন। এটি হলো ১৯৩৭ সালে মুক্তিপ্রাপ্ত ডিজনির অ্যানিমেটেড সিনেমা ‘স্নো হোয়াইট অ্যান্ড দ্য সেভেন ডোয়র্ফস’-এর রূপান্তর।

গল গ্যাদত (ছবি: ইনস্টাগ্রাম)

অন্যদিকে জুলিয়ান শ্নাবেলের পরিচালনায় ‘ইন দ্য হ্যান্ড অব দান্তে’ সিনেমায় দ্বৈত চরিত্রে অভিনয় করছেন গল গ্যাদত। এতে আরো থাকছেন অস্কার আইজ্যাক, জেসন মোমোয়া, জেরার্ড বাটলার, আল পাচিনো, জন ম্যালকোভিচ। এটি নির্বাহী প্রযোজনা করছেন মার্টিন স্করসেসি।

গল গ্যাদতকে সর্বশেষ ২০২৩ সালের আগস্টে নেটফ্লিক্সের ‘হার্ট অব স্টোন’ সিনেমায় দেখা গেছে। এতে তার সহশিল্পী ছিলেন বলিউড অভিনেত্রী আলিয়া ভাট।

পড়া চালিয়ে যান

হলিউড

একবছরে আয়ে হলিউডের শীর্ষ ১০ তারকা, একজনেরই ৮০০ কোটি টাকা

সিনেমাওয়ালা ডেস্ক

Published

on

(বাঁ থেকে) অ্যাডাম স্যান্ডলার, মার্গো রবি ও টম ক্রুজ (ছবি: এক্স)

হলিউডে ২০২৩ সালে সবচেয়ে বেশি আয় করেছেন কোন তারকারা? আমেরিকান বিজনেস ম্যাগাজিন ফোর্বস সেই তালিকা প্রকাশ করেছে। এতে শীর্ষে আছেন অভিনেতা অ্যাডাম স্যান্ডলার। নেটফ্লিক্সের ‘মার্ডার মিস্টেরি টু’সহ চারটি সিনেমার সুবাদে গত একবছরে তিনি পকেটে ভরেছেন ৭ কোটি ৩০ লাখ ডলার (৭৯৮ কোটি টাকা)।

নেটফ্লিক্সের জন্য ২০২৩ সালে চারটি সিনেমায় অভিনয়ের পাশাপাশি প্রযোজনা করেছেন অ্যাডাম স্যান্ডলার। রোমান্টিক-কমেডি থ্রিলার ধাঁচের সিনেমা ‘মার্ডার মিস্টেরি’র (২০১৯) সিক্যুয়েলের গল্প দুর্ভাগা বেসরকারি গোয়েন্দা স্বামী-স্ত্রীকে ঘিরে। নেটফ্লিক্সে গত বছর ১৭ কোটি ৩০ লাখ ঘণ্টা ভিউ নিয়ে সবচেয়ে বেশি দেখা সিনেমার তালিকায় পঞ্চম হয় এটি।

গত ২১ নভেম্বর মুক্তিপ্রাপ্ত অ্যানিমেটেড সিনেমা ‘লিও’র চিত্রনাট্য লেখা ও প্রযোজনা ছাড়াও প্রধান চরিত্রে অভিনয় করেছেন অ্যাডাম স্যান্ডলার। এছাড়া ‘ইউ আর সো নট ইনভাইটেড টু মাই ব্যাট মিৎজভাহ’ ও ‘মার্ডার মিস্টেরি টু’ প্রযোজনার সঙ্গে অভিনয় এবং ‘দ্য আউট-লস’ প্রযোজনা করেছেন ৫৭ বছর বয়সী এই আমেরিকান তারকা। চলতি বছর নেটফ্লিক্সে মুক্তি পেয়েছে তার অভিনীত ‘স্পেসম্যান’।

২০২৩ সালের সবচেয়ে ব্যবসাসফল সিনেমা ‘বার্বি’র অভিনেত্রী ও প্রযোজক মার্গো রবি আছেন বেশি আয়ের তারকার তালিকায় দুই নম্বরে। গত বছরের আরেক হিট ‘সল্টবার্ন’ প্রযোজনা করেছেন তিনি। ৩৩ বছর বয়সী এই অস্ট্রেলিয়ান তারকা তালিকায় সবচেয়ে কনিষ্ঠ। ২০২৩ সালে তার আয়ের পরিমাণ ৬৪৫ কোটি টাকা।

ফোর্বসের তালিকায় তিন নম্বরে আছে টম ক্রুজের নাম। তার আয় ৪৯২ কোটি টাকা। চারে যৌথভাবে জায়গা করে নিয়েছেন ‘বার্বি’ তারকা রায়ান গসলিং এবং ম্যাট ডেমন। তাদের আয় ৪৭০ কোটি টাকা করে। ‘মার্ডার মিস্টেরি টু’তে অ্যাডাম স্যান্ডলারের সহশিল্পী জেনিফার অ্যানিস্টন আছেন ছয় নম্বরে। তার আয় ৪৬০ কোটি টাকা।

তালিকার সাত থেকে ১০ নম্বরে আছেন যথাক্রমে লিওনার্দো ডিক্যাপ্রিও (৪৪৮ কোটি টাকা), জেসন স্টেটহাম (৪৪৮ কোটি টাকা), বেন অ্যাফ্লেক (৪১৫ কোটি টাকা), ডেনজেল ওয়াশিংটন (২৬২ কোটি টাকা)।

২২ বছর পর ফোর্বসের হিসাবে হলিউডের শীর্ষ ১০ উপার্জনকারীর তালিকায় এক নম্বরে জায়গা পেলো অ্যাডাম স্যান্ডলারের নাম। ২০২২ সালে শীর্ষে ছিলেন টাইলার পেরি। এর আগে তিন বছর এক নম্বরে ছিলেন ডোয়াইন জনসন। কিন্তু এবারের তালিকায় তাদের কেউই শীর্ষ দশে নেই।

(বাঁ থেকে) অ্যাডাম স্যান্ডলার, মার্গো রবি, টম ক্রুজ ও রায়ান গসলিং (ছবি: এক্স)

ফোর্বসের হিসাবে ২০২৩ সালে হলিউডের শীর্ষ ১০ উপার্জনকারী
১. অ্যাডাম স্যান্ডলার (৭ কোটি ৩০ লাখ ডলার)
২. মার্গো রবি (৫ কোটি ৯০ লাখ ডলার)
৩. টম ক্রুজ (৪ কোটি ৫০ লাখ ডলার)
৪. রায়ান গসলিং (৪ কোটি ৩০ লাখ ডলার)
৫. ম্যাট ডেমন (৪ কোটি ৩০ লাখ ডলার)
৬. জেনিফার অ্যানিস্টন (৪ কোটি ২০ লাখ ডলার)
৭. লিওনার্দো ডিক্যাপ্রিও (৪ কোটি ১০ লাখ ডলার)
৮. জেসন স্টেটহাম (৪ কোটি ১০ লাখ ডলার)
৯. বেন অ্যাফ্লেক (৩ কোটি ৮০ লাখ ডলার)
১০. ডেনজেল ওয়াশিংটন (২ কোটি ৪০ লাখ ডলার)

পড়া চালিয়ে যান

সিনেমাওয়ালা প্রচ্ছদ